Are you the publisher? Claim or contact us about this channel


Embed this content in your HTML

Search

Report adult content:

click to rate:

Account: (login)

More Channels


Channel Catalog


Channel Description:

This is my Real Life Story: Troubled Galaxy Destroyed Dreams. It is hightime that I should share my life with you all. So that something may be done to save this Galaxy. Please write to: bangasanskriti.sahityasammilani@gmail.comThis Blog is all about Black Untouchables,Indigenous, Aboriginal People worldwide, Refugees, Persecuted nationalities, Minorities and golbal RESISTANCE.

older | 1 | .... | 23 | 24 | (Page 25) | 26 | 27 | .... | 302 | newer

    On Saradha Scam Mamata cries CBI-BJB nexus and remains Mum as Protests Against Her Grow Louder!

    I am least bothered with political equations.For me, the scam itself is all about financial management of India.It is all about day light robbery by politically protected free market forces,listed unlisted companies blooming with economic reforms and hindutva.Writing in English so that the Geo politics unit should be communicated.

    সারদার টাকায় জামায়াতের নাশকতা

    মমতার সাংসদের মাধ্যমে দফায় দফায় বিপুল পরিমাণ অর্থ সন্ত্রাসের জন্য


    Palash Biswas

    আজকালের প্রতিবেদন: কে কী বলল, সমালোচনা করল, সেদিকে কান না দিয়ে নিজের কাজে বিশ্বাস ও ভরসা রাখার কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি৷‌ বৃহস্পতিবার নজরুল মঞ্চে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানেই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'আসল হচ্ছে নৈতিকতা৷‌ নিজের ওপর ভরসা রাখতে হবে৷‌ নৈতিক চরিত্র গঠন করতে হবে৷‌ আয়নায় অন্যের মুখ দেখে লাভ নেই৷‌ নিজের মুখ দেখতে হবে৷‌ কে কী বলল, সমালোচনা করল তাতে কিছু এসে যায় না (হার্ডলি ম্যাটার)৷‌ নিজের কাজে বিশ্বাস রাখতে হবে৷‌ নিজের ওপরও ভরসা এবং বিশ্বাস রাখতে হবে৷‌'স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার ১২১ বছর উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে রামকৃষ্ণ ইনস্টিটিউট অফ কালচার৷‌ এই অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে স্বামীজির জীবনদর্শনের কথাও উল্লেখ করেন৷‌ বলেন, 'একতাই বল৷‌ কোনও ভাগাভাগি নয়, কুসংস্কার নয়, সাম্প্রদায়িকতা নয়৷‌ আমরা সবাই সবার জন্য (উই আর ফর অল)৷‌ স্বামীজি বারবারই একতার ওপর জোর দিয়েছেন৷‌'মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'স্বামীজির আর্দশে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশ গড়ার কাজে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে৷‌ ধ্বংস নয়, আমাদের সৃষ্টির দিকে থাকতে হবে৷‌'এদিন মুখ্যমন্ত্রী স্বামীজির মূর্তি দিয়ে সাজানো একটি রথের উদ্বোধন করে৷‌ আয়োজকদের তরফে তাঁকে বই উপহার দেওয়া হয়৷‌

    নজরে সাংসদের মৌলবাদী যোগ,জামাতের সন্ত্রাসেও সারদার টাকা  

    সে দেশের গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, বাংলাদেশে অস্থিরতা তৈরি করতে কাজে লাগানো হয়েছে সারদার কোটি কোটি টাকা। আর তার সঙ্গে জড়িত তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরান। ...  আরও»


    সারদাকাণ্ডে গ্রেফতার অসমের গায়ক সদানন্দ গগৈ

    Last Updated: Friday, September 12, 2014 - 19:54

    সারদাকাণ্ডে গ্রেফতার অসমের গায়ক সদানন্দ গগৈ


    কলকাতা: সারদা কেলেঙ্কারির তদন্তে অসমের প্রখ্যাত গায়ক এবং অ্যাড ফিল্ম মেকার সদানন্দ গগৈকে গ্রেফতার করল সিবিআই। সদানন্দ গগৈ সারদার জন্য একটি প্রমোশনাল অ্যাডফিল্ম বানাতে সুদীপ্ত সেনের থেকে চার কোটি টাকা নিয়েছিলেন। সেই টাকার অনেকটাই তিনি তছরুপ করেন বলে অভিযোগ। এছাড়াও সদানন্দ গগৈ অসমের প্রাক্তন মন্ত্রী ও প্রখ্যাত রাজনীতিক হিমন্ত বিশ্বশর্মার ঘনিষ্ঠ। হিমন্ত বিশ্বশর্মা তাঁর কাছ থেকে চাপ দিয়ে টাকা আদায় করেছিলেন বলে অভিযোগ সুদীপ্ত সেনের।

    এতেও সদানন্দ গগৈয়ের বড় ভূমিকা ছিল বলে অভিযোগ। সদানন্দ গগৈকে আর্থিক তছরুপ এবং ষড়যন্ত্রের অভিযোগে গ্রেফতার করেছে পুলিস। আগামিকাল তাঁকে আলিপুর আদালতে পেশ করা হবে।

    তৃণমূল নেতাদের শাস্তি দাবিতে সোচ্চার বাম জোট ও কংগ্রেস

    সারদা কেলেঙ্কারি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকার এবং শাসক দল যখন কোণঠাসা ঠিক সেই সময় প্রতারিত আমানতকারীদের নিয়ে আবার আন্দোলনে নামলেন বিরোধীরা। প্রতারিতদের নিয়ে নতুন উদ্যমে রাজপথে দেখা গেল সিপিএম ও কংগ্রেস নেতাদের। সঙ্গে ছোট দলের নেতারাও ছিলেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে কলকাতায় কলেজ স্কয়ার থেকে রানী রাসমণি এ্যাভিনিউ পর্যন্ত মিছিলে জনতার ভিড় উপচে পড়ে। 'চিটফান্ড সাফারার্স ইউনিটি ফোরাম'নামে মঞ্চের ডাকে এই মিছিল শুরু হয়। আমানতকারীদের টাকা ফেরতে দেয়ার দাবিতে বিভিন্ন সময় সরব হলেও ভুক্তভোগীদের এতবড় জমায়েত এর আগে হয়নি। কেবল টাকা ফেরতের দাবি জানিয়েই ওই মঞ্চের নেতারা থেমে থাকেননি বরং সারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িত রাজনৈতিক ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি করেন। শুধু সারদা কেলেঙ্কারি নিয়েই নয়, অন্য সব বেআইনী অর্থলগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধেও তদন্ত করার দাবি জানান তারা। পূজার পরে বৃহত্তর আন্দোলনের হুমকিও দেয়া হয়। সারদা কেলেঙ্কারি প্রকাশিত হবার পরে বিভিন্ন বেআইনী অর্থলগ্নি সংস্থার প্রতারিত আমানতকারীরাও একজোট হন। তারা টাকা ফেরতে দেয়ার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন। -আনন্দবাজার পত্রিকা

    দৈনিক জনকন্ঠের প্রতিবেদন

    সারদার টাকায় জামায়াতের নাশকতা

    মমতার সাংসদের মাধ্যমে দফায় দফায় বিপুল পরিমাণ অর্থ আসে

    বিশেষ প্রতিনিধি ॥ বাংলাদেশে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি করতে ভারতের সারদা গ্রুপ জামায়াতে ইসলামীকে কোটি কোটি টাকা দিয়েছে এমন দাবি করা হয়েছে ভারতের শীর্ষ বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার-এ। শুক্রবার পত্রিকাটিতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, এর সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরান জড়িত। সরকারিভাবে এ ঘটনার তদন্ত চেয়ে জামায়াতের রাজশাহীর আমির আতাউর রহমানকে গ্রেফতার করে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন রাজশাহীর সংসদ সদস্য ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা ও সাতক্ষীরার সংসদ সদস্য মুস্তাফা লুৎফুল্লাহ। ফজলে হোসেন বাদশা বলেন, 'গত সপ্তাহে যমুনা টেলিভিশনের টকশোতে রাজশাহী জামায়াতের আমির আতাউর রহমান বলেছেন, ভারতের কিছু রাজনৈতিক দলের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ আছে।'এর মাধ্যমে আনন্দবাজারে শুক্রবার প্রকাশিত সংবাদের সত্যতা নিশ্চিত হয় বলে মনে করেন ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। তিনি বলেন, তৃণমূল নেত্রী মমতার বিরোধিতার কারণে ভারতের সঙ্গে তিস্তা চুক্তি এবং সীমান্ত চুক্তি থেমে আছে। এ ঘটনার সঠিক তদন্ত করে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধী শক্তির সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে ভারত এবং বাংলাদেশে ব্যবস্থা নিলে তিস্তা চুক্তি এবং সীমান্ত চুক্তি সম্পাদিত হবে। ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রীর সম্পর্কের মধ্যে বিরাজমান সঙ্কট কেটে যাবে।

    ফজলে হোসেন বাদশা জনকণ্ঠকে বলেন, ভারত বাংলাদেশ পরীক্ষিত সম্পর্ক। এ দেশে ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীকে নির্মূল করতে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তি শাসিত সরকার সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে ভারতের কোন রাজনৈতিক দল বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত শক্তিকে অস্ত্র এবং টাকা দিয়ে সহযোগিতা করে যাবে- এটা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। তিনি সংসদে তার প্রতিবাদ উপস্থাপন করবেন জানিয়ে বলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ভারত সরকারের কাছে এর বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানাতে হবে। মনে করেন পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূলের অনেক সাংসদ এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত।'

    তিনি জানান, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের আগে সাতক্ষীরা থেকে জয়পুরহাট পর্যন্ত সীমান্তপথে প্রচুর অস্ত্র এবং গানপাউডার আনার তথ্য তারা নিশ্চিত হন। তিনি বলেন, তখন আমাদের সন্দেহ হয়, সীমান্তের ওপার থেকে কেউ না কেউ জামায়াতকে মদদ দিচ্ছে। এর পর কানসাটে গানপাউডার দিয়ে হামলা হলো, রাজশাহীর ট্রেন পুড়িয়ে দেয়া হলো। এ সব নাশকতার ঘটনা প্রমাণ করে সারদার দুর্নীতির টাকা বাংলাদেশে এসেছে। আর এই দুর্নীতির টাকা পেয়ে বিএনপির মদদে জামায়াত একের পর এক নাশকতা করে যাচ্ছে। আগামীতে জামায়াতের আরও ভয়াবহ হামলা করার আশঙ্কা রয়েছে বলে মনে করেন ফজলে হোসেন বাদশা এমপি। তিনি বলেন, বিএনপি এ ঘটনায় তাদের সম্পৃক্ততা অস্বীকার করতে চাইলে জামায়াতের বিরুদ্ধে তাদের অবস্থান প্রকাশ্যে জানাতে হবে।

    বাংলাদেশের গোয়েন্দা প্রতিবেদন উদ্ধৃত করে পত্রিকাটিতে বলা হয়েছে, ২০১২-১৩ সালে ইমরানের মাধ্যমে ভারত থেকে দফায় দফায় বিপুল পরিমাণ অর্থ পৌঁছেছে জামায়াতে ইসলামী ও তাদের বিভিন্ন শাখা সংগঠনের হাতে। শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকার জামায়াতের প্রথম সারির নেতাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের মামলা শুরুর পর বাংলাদেশে দাঙ্গা, নাশকতা ও সন্ত্রাস শুরু করেছিল মৌলবাদীরা। সরকার জামায়াতকে নিষিদ্ধ করার হুঁশিয়ারি দিলে 'হেফাজতে ইসলাম'নামে বকলমে নাম সর্বস্ব আরও একটি মৌলবাদী সংগঠন গজিয়ে ওঠে। তারা ঢাকা অবরোধ করে সরকার ফেলার ষড়যন্ত্র করেছিল।

    গোয়েন্দা সূত্র অনুসারে, সেই কাজে ইন্ধন জোগাতেই এই বিপুল পরিমাণ অর্থ বাংলাদেশে পাঠানো হয়েছিল। যার একটা বড় অংশ সারদা অর্থলগ্নি সংস্থার। ঢাকার অভিযোগের সত্যতা নয়াদিল্লী পেয়েছে, যার ভিত্তি ভারতের গোয়েন্দা প্রতিবেদন।

    বাংলাদেশের গোয়েন্দা প্রতিবেদনে ইমরানের মাধ্যমে অর্থের পাশাপাশি আগ্নেয়াস্ত্র ও বিস্ফোরকের কয়েকটি চালানও ভারত থেকে জামায়াতের হাতে দেয়া হয়েছে বলেও উল্লেখ করা হয়। আনন্দবাজার জানায়, ভারতের তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ ইমরান তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তিনি বলেছেন, জামায়াতের সঙ্গে তাঁর কোন সম্পর্ক নেই।

    আনন্দবাজারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ভারতের গোয়েন্দা প্রতিবেদন অনুযায়ী, সারদার বেশকিছু এ্যাম্বুলেন্সে কাঁচা টাকার বান্ডিল ভরে তা নিয়ে যাওয়া হতো বনগাঁ, বসিরহাট, নদিয়া, মালদহ, বালুরঘাট ও কোচবিহারের সীমান্ত সংলগ্ন অঞ্চলে। পরে তা বাংলাদেশী টাকা, ডলার বা ইউরোতে পরিবর্তন করে জামায়াতের এজেন্টদের হাতে তুলে দেয়া হয়। তৃণমূলের সাসপেন্ড হওয়া সাংসদ কুণাল ঘোষও ইডিকে লেখা চিঠিতে সারদার এ্যাম্বুলেন্সে করে বাংলাদেশে জামায়াতে ইসলামীর কাছে টাকার বান্ডিল চালান যাওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। এছাড়া হাওয়ালা ও হুন্ডির মাধ্যমেও গেছে সারদার টাকা। বাংলাদেশের গোয়েন্দা রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, জামায়াত পরিচালিত বেশকিছু হাসপাতাল, ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে বেনামে লগ্নিও করেছে সারদা। সেই অর্থও কার্যত জামায়াতের 'জ্বালাও-পোড়াও আন্দোলনে'খরচ হয়েছে।

    'পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা ভোটের আগে থেকেই বাংলাদেশের জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু উর্দুভাষী নেতার দহরম মহরম শুরু হয়। ২০১১ সালের ভোটে সীমান্ত এলাকায় জামায়াতকর্মীরা তৃণমূলের হয়ে কাজ করে। সে সময়ে তৃণমূলকে অর্থেরও যোগান দিয়েছিল জামায়াতে ইসলামী।

    গোয়েন্দা প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সেই সুসম্পর্ক থেকেই পরবর্তীকালে জামায়াতকে তৃণমূল শুধু পাল্টা সাহায্যই করেনি, তিস্তা চুক্তি ও স্থলসীমান্ত চুক্তি আটকে দিয়ে বাংলাদেশ সরকারকেও বিপদে ফেলার চেষ্টা করে।

    বাংলাদেশ সংক্রান্ত নীতির বিষয়ে মমতা বরাবর জামায়াতের সঙ্গে নিত্য যোগাযোগ রাখা উর্দুভাষী নেতাদের মতামতই মেনে চলেছেন বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ রয়েছে।

    এ সব কর্মকাণ্ডের প্রেক্ষিতে প্রাক্তন সিমি নেতা, বর্তমান তৃণমূল সাংসদ ইমরানকে নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে বিজেপি।

    দলের কেন্দ্রীয় নেতা সিদ্ধার্থনাথ সিংহ আনন্দবাজারকে বলেন, সিমিকে নিষিদ্ধ করার সময়ে মমতা কেন্দ্রে মন্ত্রী ছিলেন। তিনি সবই জানতেন। তারপরও কেন তিনি ইমরানকে রাজ্যসভায় পাঠালেন?

    তার দাবি, জামায়াতের সঙ্গে বোঝাপড়া করেই তৃণমূল নেত্রী এই প্রার্থী বাছাই করেছেন। মমতার এই কাজকে 'দেশদ্রোহ'বলে মন্তব্য করে ওই বিজেপি নেতার অভিযোগ, একজন মুখ্যমন্ত্রীর এমন কাজের জন্য রাজ্যে জঙ্গী ও দুষ্কৃতকারীরা সীমান্ত পেরিয়ে ঢুকছে। নাগরিকদের নিরাপত্তা বিপন্ন হচ্ছে।

    সারদা মামলায় প্রভাবশালীরা বাইরে, বোঝাতে পার্থর বিরুদ্ধে কোর্টে 'নথি'পেশ কুণালের

    রাজর্ষি দত্তগুপ্ত, এবিপি আনন্দ

    Friday, 12 September 2014 05:57 PM

    কলকাতা: সারদা মামলায় তৃণমূলের সাসপেন্ডেড সাংসদ কুণাল ঘোষের নিশানায় মুখ্যমন্ত্রীর পর এবার শিক্ষামন্ত্রী। জেলের বাইরে থাকা প্রভাবশালীরা প্রভাব খাটাচ্ছেন, এই দাবির স্বপক্ষে সওয়াল করতে গিয়ে শুক্রবার নগর দায়রা আদালতে, সারদাকাণ্ডে ধৃত কুণাল আঙুল তুললেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দিকে।

    নিজের জামিনের আর্জি জানাতে গিয়ে কুণাল এদিন আদালতে বলেন, সিবিআই আমাকে প্রভাবশালী আখ্যা দিয়ে জেলবন্দি করে রাখতে চাইছে। কিন্তু, আমি তেমন প্রভাবশালী নই। একথা বলেই ২০১২ সালের দক্ষিণ কলকাতার একটি পুজো কমিটির একটি কার্ড বের করে বিচারকের দিকে বাড়িয়ে দেন তিনি। তাঁকে কুণাল বলেন, কার্ডটা দেখুন। কার্ডে সারিবদ্ধভাবে চিটফান্ড সংস্থার নাম রয়েছে। পুজোর কর্পোরেট পার্টনার হিসেবে তাদের দেখানো হয়েছে। পুজো কমিটির প্রধান পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনি এখন শিক্ষামন্ত্রী।

    সিবিআই আমাকে প্রভাবশালী বলে জেলবন্দি করে রাখতে চাইছে। অথচ, বাইরে প্রভাবশালীরা রয়েছেন, প্রভাব খাটাচ্ছেন। এসব সিবিআই দেখুক।

    সারদা-মামলার সঙ্গে সম্পর্ক নেই, এমন অনেক তৃণমূলপন্থী আইনজীবী এদিন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তাঁরা কুণালের মন্তব্যের বিরোধিতায় রে রে করে ওঠেন। তাঁরা বলেন, রাজ্যের কোনও মন্ত্রীর নাম নেওয়া যাবে না। মামলা সম্পর্তিত বক্তব্য বলতে হবে। সিবিআইয়ের আইনজীবী এর বিরোধিতা করেন। শুরু হয়ে যায় বাদানুবাদ। সারদাকাণ্ডে ধৃত তৃণমূল নেতা রজত মজুমদার বৃহস্পতিবার আলিপুর আদালতে যে দাবি করেছিলেন, তা অসত্য বলেও এদিন পাল্টা দাবি করে কুণাল বলেন, তিনি মোটেই সিবিআইকে বলেননি যে, রজত মজুমদারের হাত দিয়ে মুখ্যমন্ত্রী ও মুকুল রায়ের কাছে টাকা পাঠাতেন সুদীপ্ত সেন।

    কুণাল এদিন আবেদন জানান, তাঁকে যেন আর জেল হেফাজতে পাঠানো না হয়ষ প্রয়োজনে ফের সিবিআই হেফাজতে পাঠানো হোক। দু'পক্ষের বক্তব্য শুনে, বিচারক কুণাল ঘোষকে ১৮ তারিখ পর্যন্ত জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

    গত শনিবার  আদালতে উপস্থিত হয়ে কুণাল দাবি করেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী ও সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকে জেরা করুক সিবিআই। এরপর সিবিআইয়ের অফিসে ঢোকার মুখেও ফের বোমা ফাটান তৃণমূলের সাসপেন্ডেড সাংসদ কুণাল। আঙুল তোলেন একেবারে মুখ্যমন্ত্রীর দিকে। বলেন, সারদা মিডিয়ার প্রত্যক্ষ এবং পরোক্ষ সুবিধা যদি সব থেকে বেশি কারও কাছে পৌঁছে থাকে, তাহলে তাঁর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়!

    কুণালের এই বিস্ফোরক মন্তব্য ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে ব্যাপক শোরগোল পড়ে যায়। তারপর থেকেই কুণাল যাতে মুখ না খুলতে পারে, তা নিশ্চিত করতে পুলিশ অতি তৎ‍পর বলে অভিযোগ বিরোধীদের। এদিনও কুণালকে নিরাপত্তার ঘেরাটোপে আদালতে পেশ করা হয়। আদালতকক্ষেও ছিল তৃণমূলপন্থী আইনজীবীদের ভিড়। কিন্তু, এরপরও কুণাল মুখ বন্ধ রাখেননি। এবার তিনি আঙুল তুললেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের দিকে, যা বিরোধীদের হাতে নয়া অস্ত্র তুলে দিল বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

    মন্ত্রিসভার বৈঠকে নেই মদন,শ্যামাপদ, সারদাকাণ্ডের জেরে ডানা ছাঁটা গেল? জল্পনা

    সুমন ঘরাই, এবিপি আনন্দ

    Friday, 12 September 2014 04:41 PM

    সারদা কেলেঙ্কারিতে সিবিআই তদন্ত ঘিরে রাজ্য রাজনীতিতে উত্তাপের মধ্যেই মন্ত্রিসভার বৈঠকে মদন মিত্র এবং শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের অনুপস্থিতি ঘিরে জল্পনা। বৈঠকে পরিবহণমন্ত্রী ও বস্ত্রমন্ত্রীর গরহাজিরার খবর ছড়িয়ে পড়তেই গুঞ্জন ছড়ায় নবান্নের অন্দরে। যদিও এ নিয়ে ফোনে যোগাযোগ করা হলে মদন মিত্রের দাবি, তিনি গড়িয়ায় কাজে গিয়েছিলেন। ফেরার পথে যাদবপুরে যানজটে আটকে পড়েন। পরিবহণমন্ত্রীর দাবি, বৈঠকের নির্দিষ্ট সময় পেরিয়ে যাওয়ায় তিনি নবান্নে না গিয়ে সিটিসির দফতরে বসেন। শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠমহলের তরফে জানানো হয়েছে, ভাইরাল ফিভার হওয়ায় মন্ত্রিসভার বৈঠকে আসতে পারেননি বস্ত্রমন্ত্রী।

    দুপুর ২টোয় বৈঠক শুরু হয়। ৩৫ মিনিটের বৈঠকের পর দুই গুরুত্বপূর্ণ মন্ত্রীর গরহাজিরার বিষয়টি এড়িয়ে যান শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। মন্ত্রিসভার বৈঠকে অনুপস্থিতি নিয়ে দুই মন্ত্রীও কারণ খাড়া করেছেন। যদিও ঘটনাক্রম থেকে অন্য গন্ধ পাচ্ছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। কারণ ইতিমধ্যেই সারদা কেলেঙ্কারিতে জড়িয়ে গিয়েছে বস্ত্রমন্ত্রী ও পরিবহণমন্ত্রীর নাম। বাঁকুড়ায় বস্ত্রমন্ত্রীর মালিকানাধীন একটি  লোকসানে চলা সিমেন্ট কারখানা লাটে ওঠা সংস্থার সারদার কর্ণধার সুদীপ্ত সেনকে বিক্রয় করার জন্য এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)-র জিজ্ঞাসাবাদের সম্মুখীণ হয়েছেন বস্ত্রমন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ। মদন মিত্রর প্রাক্তন সিএ বাপি করিমকে জেরা করেছে সিবিআই, গোয়েন্দা নজরে পরিবহণমন্ত্রীর আর এক ঘনিষ্ঠ প্রশান্ত প্রামাণিকও।

    দলের অন্য নেতা, সাংসদদের জেরা-গ্রেফতারের পাশাপাশি, সারদাকাণ্ডে এই দুই মন্ত্রীর নাম জড়ানোয় অস্বস্তি বেড়েছে তৃণমূলের। প্রশ্ন উঠছে, সরকারের শীর্ষ মহল থেকে তাহলে কি বৈঠকে আসতে বারণ করা হয়েছে মদন ও শ্যামাপ্রসাদকে? সারদাকাণ্ডের জেরে কি তাহলে শুরু হল অভিযুক্ত মন্ত্রীদের ডানা ছাঁটা?

    আনন্দবাজারের খবরঃ

    জামাতের সন্ত্রাসেও সারদার টাকা

    সারদার জল এ বার গড়াল বাংলাদেশেও। সে দেশের গোয়েন্দা সংস্থার দাবি, বাংলাদেশে অস্থিরতা তৈরি করতে কাজে লাগানো হয়েছে সারদার কোটি কোটি টাকা। আর তার সঙ্গে জড়িত তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরান। এ ব্যাপারে ভারতের কাছে সরকারি ভাবে অভিযোগও জানিয়েছে বাংলাদেশ। এই ঘটনার তদন্ত চেয়ে সরব হয়েছেন বাংলাদেশের জামাত-উপদ্রুত দুই এলাকা রাজশাহি ও সাতক্ষীরার দুই সাংসদ। যদিও ইমরান নিজে তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, জামাতের সঙ্গে তাঁর কোনও সম্পর্ক নেই। কী বলা হয়েছে বাংলাদেশের গোয়েন্দা রিপোর্টে?

    অনমিত্র চট্টোপাধ্যায়

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    নবান্নেও এসেছে সতর্কবার্তা, প্রশাসন অনড়ই

    তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরানের সঙ্গে একাধিক মৌলবাদী সংগঠনের যোগাযোগ নিয়ে রিপোর্ট দিয়েছে ঢাকার ভারতীয় দূতাবাসও। দূতাবাস থেকে পাঠানো ওই রিপোর্টে ভারতে নিষিদ্ধ মৌলবাদী সংগঠন, স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অব ইন্ডিয়া বা সিমি-র সঙ্গেও ইমরানের যোগসূত্রের কথা বলা হয়েছে। ইমরান রাজ্যসভার সাংসদ নির্বাচিত হওয়ার ঠিক পরেই বাংলাদেশে ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ সারন নয়াদিল্লিকে একটি 'ডশিয়ার'পাঠান। সেখানে বাংলাদেশের মাটিতে সক্রিয় ভারত-বিরোধী গোষ্ঠীগুলির সঙ্গে ইমরানের যোগাযোগের কথা ছিল।

    জগন্নাথ চট্টোপাধ্যায়

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    জেলে বসে কুণাল ঘোষের লেখা

    সারদা সংস্থার সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের 'স্বার্থের সম্পর্ক'নিয়ে সংবাদমাধ্যমের সামনে ইতিমধ্যেই মুখ খুলেছেন কুণাল ঘোষ। তাঁর দাবি, মমতা 'সচেতনভাবে'সারদা মিডিয়া থেকে 'সবচেয়ে বেশি সুবিধা'নিয়েছেন। তদন্তকারীদের হাতে থাকা তাঁর ৯১ পাতার লিখিত বয়ানেও আছে এই প্রসঙ্গের বিশদ বর্ণনা। মুখ্যমন্ত্রী মমতার একদা ঘনিষ্ঠ এবং সারদা কাণ্ডের জেরে বহিষ্কৃত তৃণমূল সাংসদ লিখেছেন, "মমতা ব্যানার্জির কাছাকাছি থেকেও তাঁর অন্যায় সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে লড়াই কতটা কঠিন এবং চাপের, বাইরে থেকে বোঝা যাবে না।"

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    কৌশলে নিলেন মমতা-মুকুলের নাম, সিবিআই হেফাজতে রজত

    সারদার টাকা কে বা কারা নিয়েছেন, এ নিয়ে আদালতে কেউই তাঁকে কোনও প্রশ্ন করেনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা মুকুল রায়ের নামও ওঠেনি। কিন্তু তিনি নিজে থেকেই আগ বাড়িয়ে সারদার লেনদেনের সঙ্গে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও তৃণমূলের সর্বভারতীয় সম্পাদক মুকুল রায়ের নামটা জড়িয়ে দিলেন।

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    রোগের দেখা নাই, হাসপাতাল ছুটি দিল রজতকে

    শেষরক্ষা হল না! বৃহস্পতিবার দুপুরে নীলরতন সরকার মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে ছুটি নিতেই হল রজত মজুমদারকে। যদিও বুধবার রাতে অসুস্থতা আরও বেড়েছে বলে দাবি করেছিলেন তিনি। এ দিন সকালে ডাক্তারদের উদ্দেশে তাঁর কাতর অনুরোধ ছিল, "শরীর খুব খারাপ। আমাকে দয়া করে ছুটি দেবেন না।"

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    বিবেক ঢালেই বিরোধিতা সামাল মমতার

    অনেকটাই এক বছর আগের বক্তৃতার 'অ্যাকশন রিপ্লে'। তবু স্বামী বিবেকানন্দের শিকাগো বক্তৃতার উদ্যাপন-মঞ্চে ফের তাঁকে ঢাল করেই সমালোচকদের জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রামকৃষ্ণ মিশনের ইনস্টিটিউট অব কালচার আয়োজিত অনুষ্ঠানটিতে নিজেই আসতে আগ্রহী ছিলেন তিনি।

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    শাসককে বাগে পেয়ে সুর চড়ল বিরোধীদের

    সারদা-কাণ্ডে রাজ্য সরকার এবং শাসক দল যখন কোণঠাসা, সেই সময়ে প্রতারিত আমানতকারীদের নিয়ে একযোগে ফের ময়দানে নামলেন বিরোধীরা। প্রতারিতদের নিয়ে নতুন উদ্যমে রাজপথে দেখা গেল সিপিএম ও কংগ্রেস নেতাদের। সঙ্গে আরও কিছু ছোট দলের নেতারাও।

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    তৃণমূলের বিক্ষোভ দেখে অবাক অসম-ওড়িশা

    বাধা দিচ্ছে শুধু পশ্চিমবঙ্গ সরকার ও পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল। সারদা-সহ বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থাগুলির কেলেঙ্কারির তদন্তে নেমে সিবিআইকে অসম বা ওড়িশায় কোনও সমস্যার মুখে পড়তে হচ্ছে না। পড়শি রাজ্যগুলির তুলনায় একেবারে বিপরীত মেরুতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল ও তাঁর সরকার।

    নিজস্ব প্রতিবেদন

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    চন্দ্রিমা, সোনালিরাও কি গণ্ডি ছাড়ালেন, প্রশ্ন ধর্নায়

    সল্টলেকে সিজিও কমপ্লেক্সের মূল ফটক বন্ধ। সামনের রাস্তার উপরে বসে বিধানসভার ডেপুটি স্পিকার সোনালি গুহ এবং রাজ্যের স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত আইন প্রতিমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য! তাঁদের নেতৃত্বে ধর্না-অবস্থান চালাচ্ছেন তৃণমূল মহিলা কংগ্রেসের শ'খানেক কর্মী-সমর্থক। পুলিশে ঘেরা জমায়েত থেকেই মাইকে বারবার সিবিআইয়ের বিরুদ্ধে স্লোগান উঠছে।

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    ধর্না দিয়ে অস্বস্তিই বাড়াল তৃণমূল

    চাপে পড়ে পাল্টা চাপ দেওয়ার চেষ্টা। আর তাতে উল্টে বেড়ে গেল আরও অস্বস্তি! রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে সিবিআই কাজ করছে, এমন অভিযোগ তুলে বৃহস্পতিবার সল্টলেকে সিজিও কমপ্লেক্সের বাইরে ধর্না-অবস্থানে বসল, টানা স্লোগান দিল তৃণমূলের প্রমীলা বাহিনী! যার পুরোভাগে মহিলা তৃণমূলের রাজ্য সভানেত্রী এবং রাজ্যের আইনমন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য! অবস্থানে সামিল ছিলেন বিধাননগর পুরসভার তৃণমূল চেয়ারপার্সন কৃষ্ণা চক্রবর্তীও।

    নিজস্ব সংবাদদাতা

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    সারদার ভূত, বিজেপির তাড়ায় ছুটছে শাসক দল

    অতৃপ্ত আত্মা আছে একাধিক! কিন্তু তারা প্রতিশোধ নেবে কি? অন্য ভূত যে ঘাড়ের উপরে চেপে বসেছে! শিখা মিত্র দান ছেড়ে দেবেন, অনেক দিন ধরেই ক্ষেত্র প্রস্তুত ছিল। ঝোপ বুঝে কোপ মারবেন ভেবে ঘুঁটি সাজাচ্ছিলেন শঙ্কুদেব পণ্ডা। শাসক দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক মুকুল রায়ের হাত মাথার উপরে ছিল। তৃণমূলের ছাত্র নেতা ভাবছিলেন, চৌরঙ্গি থেকেই বুক ফুলিয়ে সোজা বিধানসভায় পদার্পণ ঘটাবেন! কিন্তু সংসার-ধর্ম থেকে বেরিয়ে টিকিট নিয়ে চলে গেলেন নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়। ছাত্র সংগঠনের নানা কাজে বিব্রত তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের তরফে মুকুলও রক্ষা করতে পারলেন না ছাত্র নেতার স্বপ্ন!

    রোশনী মুখোপাধ্যায়

    ১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    eee


    Writing in English so that the Geopolitics unit should be communicated.


    Mamata speak:And not 17 lakh but 12 lakh investors were duped in the Saradha scam. He should cross check his facts from his friends," Banerjee said. She went on to claim, "We from our government treasury had returned money to five lakh investors.


    Saradha Scam in Bengal seems to be a political civil war as ruling TMC is trapped top to bottom and discredited Marxists may not return so soon. BJP is emerging as third alternative.It seems very interesting as daily exposure is covered with full details.

    For me,it is nothing but the result of decontrolled,deregulated free open market under minimum governance which runs a systematic ponzi economy injected with free flow of black money in FDI mode.It is the exposure of great Indian growth story based onbull run.


    I have been  covering the  day to day updates in Bengali inserting some English content. But it is crossing the borders.Bangladesh is involved as Saradha group is alleged to finance fundamental and terror network there to upset the apple cart of Hasin Wajed.It did vot succeed as Mamata succeeded to bring out the so called Parivartan killing the left and the project has been funded by Saradha group.Now,Mamata is dumping everyone exposed including her ministers in self defence and intensified her secular jihad against BJP and Modi.Her ministers are cying foul and trying their best to dismiss the case crying CBI BJP nexus.

    I am least bothered with political equations.For me, the scam itself is all about financial management of India.It is all about day light robbery by politically protected free market forces,listed unlisted companies blooming with economic reforms and hindutva.


    Thus, Trinamool Congress today alleged that there was a 'nexus' between BJP and CBI to malign the party and its chief Mamata Banerjee ahead of the Assembly by-polls in the state.Mind you,the Supreme Court had handed over the Saradha chit fund scam probe to CBI and asked the state governments to provide all logistical help to the CBI team investigating the matter. CBI has formed a Special Investigating Team (SIT) headed by Joint Director Rajeev Singh to also probe the role of Securities Exchange Board of India (SEBI) and RBI.

    "There is a nexus and a conspiracy which is going on to malign Trinamool Congress and our party supremo Mamata Banerjee, who is the most honest leader of the country, before the by-polls," prominent TMC leader Partha Chatterjee said.

    Chatterjee also alleged that the 'nexus' between the two was also aimed at 'politicising' the Saradha scam probe.

    "The way things have been politicised by the CBI is a shame and a day will come when the truth will come out. If they are talking about chit fund then we also need an answer to the question about where the huge money that was spent during the BJP's election campaign came from," he said.

    He said measures should be taken to return the money of all the duped investors who lost their money in various chit funds from 1980s.

    Chatterjee's outburst came after state Congress president Adhir Chowdhury questioned the silence of Trinamool Congress leadership on the arrest of Rajat Majumdar in the Saradha Ponzi scam.

    Chowdhury also said that days were not far off when several top TMC leaders would be arrested by the CBI in the Saradha case.

    Hindustan Times reports:

    Financial investigation agencies are probing whether a UAE-based financial firm linked to Trinamool Congress MP KD Singh was the destination of some of the funds raised from investors in the Saradha scam.

    The ED and the Serious Fraud Investigation Office (SFIO) are understood to be looking at whether Saradha used the hawala route to siphon off funds collected from its depositors and park them at Al Masah Capital Ltd, an asset management firm where Singh was vice-chairman.

    Sources in the Enforcement Directorate, which investigates foreign exchange violations and money laundering, said that Singh was likely to be examined soon.

    "We are trying to tap all possible links of Saradha Group both nationally as well as overseas. During the course of our investigations on these lines, we tracked Saradha's links in the UAE and there the name of Al Masah surfaced. We are going into details in the probe regarding Saradha's tax-haven links," said an SFIO official.

    Singh's office did not respond to repeated queries, but in an earlier conversation with HT, Singh had denied knowledge of any links between Saradha and Al Masah. He had said that he was offered the post of honorary vice-chairman of the UAE company for a year and had quit before entering the world of parliamentary politics.

    The Saradha scam, caused by the collapse of a Ponzi scheme run by the Saradha group, a consortium of over 200 companies running a wide variety of collective investment schemes in mainly in West Bengal, Assam and Odisha. The group collapsed in April 2013, causing an estimated loss of about Rs. 10,000 crore to over 1.7 million depositors.

    The Bengal government instituted an inquiry commission to probe the scam and set up a Rs. 500-crore fund to ensure that low-income investors got back some part of their investments. The Centre also launched a multi-agency probe.




    Manideepa Banerjee writes for NDTV,"Gali gali may shor hai, Mamata Banerjee chor hai" (In every lane, they are saying Mamata Banerjee is a thief).


    A year ago, even after the Saradha chit fund group collapsed, taking millions in depositors' hard-earned money with it, such a slogan against the West Bengal Chief Minister in Kolkata would have been considered as blasphemy. But now, Mamata Banerjee's image is taking a beating.


    On Thursday, hundreds of agents and investors of several chit funds, including Saradha, shouted that slogan as they held a march in Kolkata. They have been watching one leader after another of the ruling Trinamool Congress, led by Ms Banerjee, being called by the Central Bureau of Investigation or CBI for questioning in connection with the scam; and they are angry.


    "There is still time. Let Mamata Banerjee admit she is involved in wrong-doing. Let her try and return the money to the poor. This is our appeal," says Chittaranjan Das, a chit fund agent. He warns that the protests will become much stronger if their appeal is not heard.


    Meanwhile, members of the Trinamool Congress' woman's unit sat on adharna outside the CBI office in Salt Lake near Kolkata. They were protesting, according to them, the CBI's "political vendetta" against their leaders. Leading the dharna was Chandrima Bhattacharya, Law Minister and Minister of State for Health.


    "Their attitude and the steps they are taking, it proves they are only bent on maligning Trinamool Congress," she said as her supporters shouted, "CBI hai hai".


    In the last fortnight, many leaders of the Trinamool Congress have been called in for questioning by the CBI. Yesterday, Member of Parliament Srinjoy Bose was questioned for almost seven hours.


    Rajat Majumdar, who Trinamool leaders described as a "party associate", was arrested on Tuesday and taken into CBI custody today. Another party MP, Ahmed Hassan Imran, was quizzed recently, so was Asif Khan, who publicly quit the Trinamool yesterday after calling it "not clean".


    Trinamool Congress's Rajya Sabha lawmaker Kunal Ghosh was arrested last year and is currently being questioned by the CBI. All these leaders allegedly had some link or the other with the Saradha group or its boss Sudipta Sen.


    The Opposition is also piling up the charges.


    "85 lakh people have suffered in the chit fund scam and many of your ministers and MPs appear to be involved. There are newspaper reports about some of the Saradha money going to terrorist organisations too. Mamata Banerjee, you took a high moral ground on Tehelka(magazine's expose on the coffin scam, over which Ms Banerjee had resigned from the then NDA government), but as the Chief Minister, will you abandon your morality," said BJP leader Siddharth Nath Singh.


    The silence of Mamata Banerjee, who attended an event on Swami Vivekananda today, on her party men being allegedly tangled in the Saradha web is deafening.


    Indian Express reports:Chief Minister Mamata Banerjee in an interview to ETV News Bangla said, "Acche din nehi, ronek a din aa gaya."(the days of tears have come). she said this when asked about the first 100 days of Modi government in office. she further added, "the BJP government has committed no less than 100 mistakes in 100 days. They have sold the country in 100 days."


    On Saradha financial scam she said that her patience is being tried by the BJP government and the media. "None from my party took money from Saradha. Congress-CPM-BJP helped this chit fund companies to grow during their regime. The TMC government took action against the company and is now being targeted. "The moment the scam came to our notice, we took action and arrested the kingpin."


    "The BJP government has committed no less than 100 mistakes in 100 days. They have sold the country in 100 days," said Mamata Banerjee.


    On BJP president Amit Shah's statement on Saradha that 17 lakh people were cheated during an election rally in Kolkata on September 7, she said, "I have all evidence against the person who spoke here against me.


    The people of Gujarat handed several pen drives to me which had all evidence against these leaders. they themselves are accused in several cases and how dare point finger at me ?" The Trinamool Congress is the most transparent party in the country. There can be some rotten staff within but the moment they are identified action is taken against them.

    - See more at: http://indianexpress.com/article/cities/kolkata/bjp-committed-100-mistakes-in-100-days-mamata-banerjee/#sthash.jJKsGGmw.dpuf


    Central Bureau of Investigation on Friday arrested Assamese singer Sadananda Gogoi in connection with the Saradha scam.

    CBI spokesperson Kanchan Prasad said in Delhi that Gogoi has been arrested in Kolkata on the allegations of "conspiracy and misappropriation of funds" and he will be produced in Alipore court tomorrow.

    Gogoi was summoned at its CGO complex office in Kolkata for the fourth time today and was arrested after interrogation, CBI sources said.

    Saradha scam: CBI arrests Assamese singer Sadananda Gogoi

    Gogoi has been charged with criminal conspiracy and misappropriation of funds and will be produced in court on Saturday.

    Gogoi was allegedly acting as a conduit for Saradha Chairman-cum-Managing Director Sudipta Sen and lured influential people using his contacts, the sources said.

    With this arrest, a total of 10 persons have been nabbed by the CBI in connection with the scam which includes six who were arrested by West Bengal Police and taken into custody by the agency.

    A prominent lawyer from Odisha is expected to be questioned by CBI soon, the sources said.

    The agency has recently arrested former West Bengal DGP Rajat Majumdar for his alleged involvement in the scam.

    Majumdar, who had worked as Director General (Armed Police) in West Bengal, was allegedly associated with Saradha Group, which has been accused of duping thousands of investors of crores of rupees, they said.

    The agency has also arrested East Bengal club official Debabrata Sarkar and businessman Sandhir Agarwal

    CBI has registered four FIRs against Saradha Group in the chit fund scam in West Bengal whereas 44 cases have been registered in Odisha.

    The Supreme Court had handed over the Saradha chit fund scam probe to CBI and asked the state governments to provide all logistical help to the agency's team investigating the matter.

    CBI has formed a Special Investigating Team (SIT) headed by Joint Director Rajiv Singh also probe the role of some officials of Securities Exchange Board of India (SEBI) and RBI, the sources said.



    Saradha scam shocker: Mamata Banerjee's aide, TMC MP's link with terror group SIMI, Jamat exposed

    Kolkata, Sept 12: In a shocking twist in Saradha scam case, it has been alleged that money from the chief of the Saradha Group -- Sudipto Sen was collected by a Trinamool Congress (TMC) MP -- Ahmed Hasaan Imran. West Bengal BJP leaders on Thursday, Sept 11 held a press conference in Kolkata. The BJP leaders irked an old controversy after accusing Imran of sending huge amount of money to banned terror outfit in India -- SIMI and terror outfit in Bangladesh -- Jamat e Islam. Trinamool Congress supremo Mamata Banerjee had faced tremendous criticism over her decision of electing Imran as the Rajya Sabha MP. Media reports had claimed that Imran had direct connection with terror group. Now, BJP's latest allegations cornered Mamata government in West Bengal. Imran allegedly had siphoned off money to the banned Islamic fundamentalists in Bangladesh with Sudipto Sen's help. The Indian currency was then secretly converted to Bangladeshi Taka Media reports took information from sensation report of investigating agencies -- Central Bureau of Investigation (CBI) and Enforcement Directorate (ED). According to sources, many departments of Home Ministry were aware of Imran's alleged link with banned terror group SIMI (Students Islamic Movement of India). The CBI and ED reportedly had learnt that the funds collected from the public, through Saradha's chit fund schemes, were centrally deposited at the group's offices in Salt Lake in Kolkata. After being accounted for, hundreds of crores were transported to various centres close to the Indo-Bangladesh border, informed media reports. The cash was put in huge bags and taken by ambulances belonging to the Saradha group. The Indian currency was then secretly converted to Bangladeshi Taka and European currencies at a "Foreign Currency Convertor Centre", belonging to a man from Kolkata, added The New Indian Express report. The daily report also stated that armed couriers of radical Islamic outfits would then smuggle the converted currency across the border, under the cover of darkness. Former Special Director, Intelligence Bureau, Dhanesh Chandra Nath was quoted as saying, "We all know who this man is. It is unfortunate that West Bengal Chief Minister and TMC chief Mamata Banerjee sent Ahmed Hassan, alias Imran, to the Rajya Sabha, despite knowing his antecedents." Continuing his statement, he also added, "When SIMI was banned in 2001, Mamata was a Union Minister and she should have known about its leader's activities in the state. What is of serious concern to us is the planned infiltration of the known subversive elements, into the most sacred and highest corridors of power." OneIndia News Read in Bengali: সারদার পর দেশের দুশমনদের সঙ্গেও যোগ তৃণমূল সাংসদের, অভিযোগ


    Read more at: http://news.oneindia.in/india/mamata-banerjee-close-aide-tmc-mp-connection-with-terror-outfit-simi-bangladesh-1520240.html


    Saradha scam: CBI makes first arrest with direct TMC link

    Agency raided residence of a TMC leader and former DG of Armed Police Rajat Majumdar, Saradha employee

    BS Reporter  |  Kolkata  

    September 10, 2014 Last Updated at 00:39 IST

    CBI recently quizzed Asif Khan, an aide of TMC general secretary and Rajya Sabha MP Mukul Roy and conducted searches at his residence


    The Central Bureau of Investigation (CBI) on Tuesday arrested former West Bengal police chief and Trinamool Congress (TMC) leader Rajat Majumdar in connection with the multi-crore Saradha chit fund scam. While this is the third set of arrest by CBI in connection to the scam, Majumdar is the first TMC leader to be arrested by the investigative agency.


    Majumdar used to serve Sudipta Sen-led Saradha Group as 'security advisor'. Last month, CBI raided the residence of a TMC leader and former director general of armed police Rajat Majumdar, who was once an employee at Saradha group.


    Incidentally, former TMC MP and journalist Kunal Ghosh before being arrested by West Bengal police in connection to Saradha, in a 36-minute video broadcast on a local Bengali channel last year named Majumdar and several other TMC leaders for their alleged complicity in the Saradha scam.


    After taking over the investigation following Supreme Court order, CBI had earlier arrested East Bengal Football Club official Debabrata Sarkar and city-businessman Sandhir Agarwal. CBI recently quizzed Asif Khan, a close aide of TMC general secretary and Rajya Sabha MP Mukul Roy and conducted searches at his residence. The enforcement directorate, which is also carrying out a parallel probe into the money trail of Saradha, had earlier quizzed TMC Lok Sabha MP Arpita Paul and Rajya Sabha MP Ahmad Hassan Imran. Both were associated with Saradha group's media arm.

    http://www.business-standard.com/article/current-affairs/saradha-scam-cbi-makes-first-arrest-with-direct-tmc-link-114090901100_1.html



    সি বি আই-কে রজতের চ্যালেঞ্জ


    Google plus share

    Facebook share

    Twitter share

    LinkedIn share


    সব্যসাচী সরকার




    সি বি আইয়ের সঙ্গে সারদা তদম্তে সহযোগিতা করবেন না রজত মজুমদার, আদালতে তাঁর বক্তব্য থেকেই তা পরিষ্কার৷‌ সারদা-তদম্তে খোদ সি বি আইকেই চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিলেন গ্রেপ্তার-হওয়া রাজ্য পুলিসের প্রাক্তন ডি জি রজত মজুমদার৷‌ 'অসুস্হ'হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন, সুস্হ হয়ে ওঠেন বৃহস্পতিবার দুপুরে৷‌ তার পরেই তাঁকে আদালতে পেশ করে সি বি আই৷‌ আলিপুর আদালতে বিচারক হারাধন মুখোপাধ্যায়ের এজলাসে যখন শুনানি চলছিল, সেসময় রজতবাবু নিজেই কিছু বলতে চাওয়ার অনুমতি চান৷‌ বিচারক অনুমতি দিলে রজতবাবু সরাসরি সি বি আই-কে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, আমাকে দিয়ে কিছু বলিয়ে নিতে পারবেন না৷‌ ৭ দিন কেন ৭০ দিন রাখলেও না! এদিন, আদালত তাঁকে ৫ দিন সি বি আই হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয়৷‌ রজতবাবু সে-নির্দেশ শোনার পর বলেন, 'আমাকে পেটাতেও পারবে না৷‌ আমি সারদার টাকা দিয়েছি কাউকে, এ সমস্ত কথা আমাকে বলিয়ে নিতে পারবে না৷‌'রজতবাবুর বক্তব্যে স্বভাবতই আদালতের ভেতরে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়৷‌ সি বি আই এদিন চার্জশিট পেশ করতে পারেনি৷‌ সি বি আই তদম্তভার হাতে নেওয়ার পর বৃহস্পতিবার ছিল ৮৮ দিন৷‌ আরও দু'দিন সময় চেয়ে নেয় আদালতের কাছে৷‌ আগামী কাল, শনিবার চার্জশিট পেশ করবে৷‌ চার্জশিট দিলে এই মুহূর্তে এই মামলা থেকে জামিন পেতে পারেন আপাতত তিনজন৷‌ তাঁরা হলেন অরবিন্দ চৌহান, মনোজ নাগেল ও সোমনাথ দত্ত৷‌ তবে চার্জশিট দিলেও জামিন পাচ্ছেন না সুদীপ্ত সেন, দেবযানী মুখার্জি ও কুণাল ঘোষ৷‌ কেননা, ব্যাঙ্কশাল আদালতে তাঁদের অন্য মামলা রয়েছে৷‌ মঙ্গলবার সারদা-কাণ্ডে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল প্রাক্তন ডি জি রজত মজুমদারকে৷‌ গ্রেপ্তারের দিন রাতেই তিনি বুকে ব্যথা অনুভব করেন৷‌ তাঁকে নীলরতন সরকার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷‌ যদিও চিকিৎসকেরা সব ধরনের পরীক্ষা করেই দেখেছেন, তাঁর কোনও অসুখ নেই৷‌ এর পরেই তাঁকে ছুটি দেওয়ার সিদ্ধাম্ত নেন৷‌ অবশ্য রজতবাবু দুর্বল বোধ করায় তাঁকে হুইলচেয়ারে বসিয়ে আদালতে আনা হয়৷‌ আদালতে আনার পর অবশ্য তিনি আর অসুস্হ বোধ করেননি৷‌ সি বি আইয়ের বক্তব্য শুনেছেন৷‌ তার পরেই আদালতে নিজের বক্তব্য পেশ করেছেন৷‌ এদিকে, এই সংস্হার টাকা লগ্নি করা হয়েছিল অন্য চিট ফান্ডে৷‌ তদম্তে এমনই তথ্য পাচ্ছে সি বি আই৷‌ ২০১০ সাল থেকে সারদার যে বাড়বাড়ম্ত তার ফলেই বহু 'মুনি'র আগমন ঘটেছিল ওই সংস্হায়৷‌ রজত মজুমদার অবসর নেওয়ার পর সারদায় চলে আসেন কাজ করতে৷‌ তাঁকে বড় পদে বসিয়ে সারদা গোষ্ঠী কোন উদ্দেশ্য সাধন করছিল তদম্তে সেটা যেমন এক দিক, তেমনই অন্য দিক হল, তিনি জড়িয়ে পড়েছিলেন বহুমুখী কাজকর্মেও৷‌ পরামর্শদাতার পদে বসে মাইনে নিতেন৷‌ কিন্তু সেই পরামর্শটি কী এবার তা জানার চেষ্টা করবে সি বি আই৷‌ বৃহস্পতিবার সকালে সৃঞ্জয় বসু ও সমীর চক্রবর্তীর সি বি আই দপ্তরে হাজিরা দেওয়ার কথা ছিল৷‌ কিন্তু তাঁরা এদিন আসতে পারবেন না বলে সি বি আই-কে জানিয়েছেন৷‌ রজত মজুমদার, নীতু, সন্ধির এই সমস্ত মান্যবরদের নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ ছিল কি না সেটাও এই মুহূর্তে তদম্তের বিষয়৷‌ পরামর্শদাতা রজতবাবু ছিলেন শীর্ষে৷‌ সেবি-র কাজকর্ম সামলে দেওয়ার জন্য সুদীপ্ত সেন ধরেছিলেন সন্ধির আগরওয়ালকে৷‌ এই বৃত্তে কারা কারা শ্রেষ্ঠত্বের দাবি রেখেছেন তা দেখবে সি বি আই৷‌ সারদা গোষ্ঠীর জমি কেনাবেচা সংক্রাম্ত বিষয়ে পরামর্শদাতা রজতবাবুর আদৌ কি ভূমিকা ছিল? এই প্রশ্নে সি বি আইয়ের এক কর্তা জানান, সম্পত্তি বাড়ানোর ক্ষেত্রে সুদীপ্তবাবুর উদ্যোগে বহু মানুষই জড়িত ছিলেন৷‌ সন্দেহভাজন ১১ জনের তালিকা তৈরি করা আছে৷‌ সি বি আই এবং ই ডি ইতিমধ্যেই এ যাবৎ তদম্তের পর্যালোচনা করে আগামী দিনের তদম্ত-কৌশল ঠিক করেছে৷‌ গতকাল কাঁথিতে সারদার যে সম্পত্তি তালিকাভুক্ত করা হয়েছে, সেগুলির কাগজপত্র দেখা হচ্ছে৷‌ সারদার বাড়ি-জমি সংক্রাম্ত সাড়ে তিনশো কোটি টাকার সম্পত্তি ইতিমধ্যেই উদ্ধার হয়েছে৷‌ সি বি আই দিল্লি সূত্রের খবর, সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সারদা-কাণ্ডের চক্রাম্তকারীদের খুঁজে বের করার যে কাজ শুরু করেছিল সি বি আই তা সঠিক পথেই চলছে৷‌ চলতি মাসেই বেশ কয়েকজন রথী-মহারথীকে গ্রেপ্তার করে সি বি আই প্রমাণ করতে চায় দেশ ও বিদেশে গরিবের টাকা সরিয়ে ফেলার কুশীলব কারা৷‌


    http://www.aajkaal.net/12-09-2014/news/228523/

    BJP demands Mamata Banerjee's resignation over Saradha Chit Fund scam

    Thursday, 11 September 2014 - 5:23pm IST | Place: Kolkata | Agency: ANI

    Bharatiya Janata Party (BJP) leaderSiddharth Nath Singh said here on Thursday that the party has decided to start a Saradha Chit Fund scam 'andolan' demanding West Bengal Chief MinisterMamata Banerjee's resignation. "The state unit has decided under the leadership of state secretary that from Friday, all BJP workers will demonstrate in front of every police station of the state. We are starting a Saradha Cit Fund scam 'andolan' and will give a memorandum to West Bengal Governor, and at every police station, we will demand Chief Minister Mamata Banerjee's resignation," said Singh.

    Earlier on Wednesday, the TMC's women's wing staged a protest outside the Central Bureau of investigation (CBI) office in Kolkata against their party leaders being quizzed in connection with the multi-crore Saradha chit-fund scam. According to reports, the CBI has registered a total of 48 cases in the Saradha chit fund scam bringing under its lens regulatory body like the Securities Exchange Board of India (SEBI) and the Ministry of Corporate Affairs.

    Trinamool Congress leader and Rajya Sabha member Kunal Ghosh have been named in one of the FIRs along with Sudipta Sen, chairman of the Saradha group. There are four FIRs against Saradha Group in which it is alleged that thousands of investors were allegedly duped by the company officials and their associates who swindled their deposits. The Supreme Court had in May directed the CBI to probe the Saradha scam.



    0 0

    Where from would you get smart people for the smart cities?

    Palash Biswas

    Here you are!The digital nation has to get foreign territories and the latest brand equity of these foreign territories is defined as smart city as privatisation is referred as disinvestment and divestment , as black money recycle is known as FDI,as ponzi economics is glorified as minimum governance of decontrolling and regulation.


    'Smart leadership and smart people are essential pre-requisites for making cities smart' asserted the Minister of Urban Development and Housing & Urban Poverty Alleviation M.Venkaiah Naidu . He elaborated on the attributes of smart leadership and smart people while addressing the "National Conclave of States/UTs on Smart Cities" attended by the Ministers and Principal Secretaries in New Delhi .


    Government is planning to set up 100 smart cities across the country that will provide all modern amenities, education and employment opportunities.


    Mind you,Unanimously welcoming the Smart City initiative of the centre, states have demanded technical help to prepare project reports and higher financial assistance to execute the scheme.

    West Bengal claims to get ten of the PM declared smart cities while anti SEZ,anti landacquisition movement installed the PPP government in Bengal which is defined popularly as MAA Maanush Sarkar ,which is indulged in Ponzi fraud top to bottom.

    Does it mean the smart people needed for smart India`s smart cities should be experts of ponzi economics as well?



    Urban Development Minister Venkaiah Naidu reviewed the suggestions and views from states and Union Territories expressed at the national conclave held in New Delhi and directed officials to examine the suggestions in detail.

    He has also asked the concerned officials to prepare a proposal for discussion at an inter-ministerial meeting where Ministers of Finance and Defence, Highways and Surface Transport, Railways, Power, Environment and Forests are likely to attend.

    Reiterating the importance of smart leadership in developing smart cities, Mr Naidu said he would write to all the Chief Ministers on the need for proper decision making to enhance revenues of urban local bodies and improving urban governance.

    States have made ten broad suggestions for developing Smart Cities including seeking flexibility in implementation, capacity building, higher central assistance in view of the resource constraints of urban local bodies and expeditious clearances by the Centre, said a senior Urban Development official.

    Higher level of Viability Gap Funding with respect to solid waste management and water supply projects, capital expenditure to be borne by central government since private operators can only manage the operations and maintenance with utility charges and Special Purpose Vehicles to be created for executing the projects are some of the suggestions made by states at the conclave.

    Some states referred to the difficulties associated with adoption of Public Private Partnership model with respect to some urban projects in view of the complexities involved and levying of user charges.

    It is very clear that the project is once again PPP mdel Gujarati for which the Prime Swayam Sevak has ensured free flow of yen thanks to new strategic partnership with Japan beside the existing one,led by USA,UK and Israel.


    Varanasi, which Prime Minister Narendra Modi represents in the Lok Sabha, will be developed into a 'smart city' by using the experience of Kyoto, the 'smart city' of Japan, under a pact signed here on Saturday.


    A partner city MoU was signed by Indian ambassador Deepa Wadhwa and Kyoto mayor Daisaka Kadokawa at a ceremony witnessed by Modi and his Japanese counterpart Shinzo Abe.


    Hindustan times reports;

    Delhi could get two of the smart cities — a brand new one in the city's outskirts to be developed by the Delhi Development Authority and a second in New Delhi Municipal Council area.

    This has been proposed in the first blueprint of Modi government's ambitious project to develop 100 smart cities across India. Drafted by the urban development (UD) ministry, the concept note proposes to include 44 cities with a population between 1 to 4 million under the scheme.

    As first reported by HT on August 27, the UD ministry's concept note has estimated an annual investment of Rs. 35,000 crore for developing the 100 smart cities.

    However, the note stops short of elaborating on how the funds would be generated. The note, which was put online for public discussion, has knocked off parts from an earlier draft which proposed a host of measures for raising funds from the public.

    It says that a large part of the financing for smart cities will have to come from private sector and mentions broadly mentions imposing of user charges for utilities and a betterment levy for "enhancing the resource pool" without specifying how much fund would be generated from these measures.

    Some of the basic criteria proposed for selecting cities includes cities which have an approved Master Plan, which can commit to provide free right of way for laying optic fibre networks among others.

    The note says that a smart city would have facilities ranging from uninterrupted power and water supply, online delivery of all public services, and an effective public transport system among others.


    Bengal picks smart city contenders

    A STAFF REPORTER



    Calcutta, Aug. 16: The Bengal government has identified 10 locations in the state to be developed as smart cities and would make its representation to the Centre for development of these regions.

    The development comes at a time the state government has unveiled an urban policy that seeks to promote growth of the real estate sector in the state.

    "The central government has proposed the development of 100 smart cities. We have identified 10 locations in the state that could be developed as smart cities," said Debashis Sen, principal secretary in the urban development department of the Bengal government. He was speaking today at the sixth annual convention of NAR-India, the apex body of real estate brokers in the country.

    Sen said the locations identified by the state includes New Town — Rajarhat, Bolpur, Durgapur, Kalyani, Baruipur, Raghunathpur, Jaigaon, Phulbari, Gangasagar and Debanandapur.

    These smart cities in essence are existing mid-sized cities or satellite towns of large cities, which would be modernised to cater to urban housing and industrial requirements in the future.

    Sen said these cities could be developed to provide modern infrastructure along with information technology-based civic amenities.

    "These locations are identified on the basis of where urban population in Bengal is going to grow," said Sen, adding that the state government was working on the details.

    The Union finance ministry has budgeted Rs 7,060 crore in the current year for development of smart cities. '

    Real estate developers, however, said more clarity was required on the nature of infrastructure in these smart cities and the role of the government and that of real estate companies in developing such cities.

    Alapan Bandhopadhyay, principal secretary in the housing and transport department of the Bengal government, said the state was exploring the provision of allowing faster clearances of housing projects even though it would be difficult to permit critical clearances such as fire on a single-window basis without physical inspection.

    He said the state government was looking for inputs in this context from national bodies such as Credai and NAR-India.

    http://www.telegraphindia.com/1140817/jsp/business/story_18728368.jsp#.VBSZLJSSzN8

    DNA reports:

    The 100 smart cities project, which defines the grand ambition of the Narendra Modi government may not fully come to fruition but about 10 projects are likely to start during the tenure of this government. The target is to have 30 cities in 15 years.

    The project itself is conceived as a bypass to cut through the morbid mess that cities like Mumbai have become. The finance ministry has earmarked Rs7,000 crore for smart city projects this fiscal.

    To ensure that every states gets a share, the ministry will pick up sub cities inside the state capitals to develop into smarter models. Besides state capitals, cities that have a religious pilgrimage circuits including Shirdi, Varanasi, Amritsar, Allahabad and Tirupati will also be given the smarter design. Some of the industrial towns will also be included in the smart city project. While all the states have been lobbying to get a bigger scoop of cities for themselves, the ministry has received a concrete proposal from the West bengal government to create New Kolkata as a smart project.

    Kochi smart city being developed by Smart City Dubai in partnership with the government of Kerala is slated to be the first operational smart city in the country and the Dubai company is likely to develop another smart city in Madhya Pradesh after chief ministerShivraj Singh Chouhan met top officials of the company in Dubai on Friday.

    "The smart city model has to be self sustainable with civic infrastructure. The city will also have its own IT network linking every resident of the city," said a senior officer of theUrban development ministry. Aspects of energy management, water management, transport and traffic, safety and security and solid waste management will be covered. The smart cities will have its own health care facility with education hub and community service centres.

    Not all cities will be new cities. Several old cities will be brought into the smart circuit. In the case of bigger cities like Delhi, Mumbai or Bhopal, sub cities in a radius of 15km will be developed into smart cities.

    The ministry of urban development is yet to finalise the design and definition of a smart city, but at level 1, Gujarat's GIFT looks like the ideal Indian smart model. The GIFT city of Gujarat was conceptualised by Narendra Modi during his tenure as chief minister. The greenfield project is being constructed on 500 acres of land between Ahmedabad and Gandhinagar in Gujarat. Divided into three phases, the city will have a global IT hub, a Special Economic Zone and a residential township.

    IL&FS has invested close to Rs900 crore so far in GIFT City, according to RK Jha, the CEO & MD of GIFT City. He also said that the remaining Rs600 crore were raised by GIFT through internal accruals and debt.

    "We have sold some 10 million sqft space in GIFT City project so far. The funds received are being invested in the project," he said.

    "We have plans to develop 62 million sqft of built up area in GIFT City in three phases by 2023. We were targeting 10-12 million sqft in the first phase of the project, which we have already achieved. The second phase of the project will commence in March next year," Ramakant Jha, CEO & MD of GIFT City Limited, the project developer, told dna.

    The project aims to create 1 million direct and indirect jobs on completion in 2023. GIFT City Limited is a equal joint venture between Gujarat government and IL&FS. Jha said that they have invested Rs1,500 crore in the project so far.

    "The total investment will be to the tune of Rs50,000 crore, which includes Rs10,000 crore in infrastructure development and Rs30,000 crore in construction of buildings," he said.

    On completion, GIFT City will be home to 120 buildings, which will be 70 metre to 250 metre tall. The project will be spread over 886 acre land."We also propose to have one building, which will be 400 metre high, but that will be in the third and final phase. Earlier, central financial institutions were not keen to take up space in GIFT City for political reasons. Now, that will not be the case," he said.

    http://www.dnaindia.com/india/report-nda-government-s-gift-to-india-2012977

    Search Results

    1. India Today

    2. States seek financial help to develop Smart Cities

    3. Hindu Business Line-5 hours ago

    4. Unanimously welcoming the Smart City initiative of the Centre, States have demanded technical help to prepare project reports and higher ...

    5. Narendra Modi's imprint on smart city project

    6. India Today-14 hours ago

    7. Centre prepares concept note on smart cities

    8. Livemint-11-Sep-2014

    9. States should take the lead in smart cities project: Venkaiah

    10. The Hindu-12-Sep-2014

    11. Explore in depth (80 more articles)

    12. GIFT of 100 smart cities begins here

    13. Ahmedabad Mirror-10-Sep-2014

    14. Prime Minister Narendra Modi's vision for a hundred smart cities in the ... Gujarat International Finance Tec-City Ltd (GIFTL), one of Modi's pet ...

    15. Arab News

    16. Govt to open discussion on '100 smart cities' via portal

    17. Hindu Business Line-08-Sep-2014

    18. In the recent Budget, Finance Minister Arun Jaitley allocated ₹7,060 crore for the smart cities project over the fiscal. The concept, which doesn't ...

    19. Singapore wants to make Andhra capital smart city

    20. Business Standard-3 hours ago

    21. ... from the 14th Finance Commission as a grant for building the new capital ... Goh said the city-state had sought clarification on thesmart cities ...

    22. Women in Business: Q&A with Jocelyn Gailliot, Co-Founder and ...

    23. Huffington Post-1 hour ago

    24. After graduation, she moved to New York City and worked as an investment banking ... With a background in finance and investing, Jocelyn is the ... because he focused on creating a collegiate culture of smart, driven people.

    25. Smart city program to lift IT to 7% of GDP

    26. ecns-10-Sep-2014

    27. Shanghai smart city project will propel its information technology ... key sectors such as integrated circuits, Internet finance and Internet video.

    28. A worldly scion of Spanish finance picks up the torch

    29. Financial Times-7 hours ago

    30. "She's very smart, very articulate and quite focused and determined. ... Known in theCity of London as an efficient networker, Ms Botín ...

    31. Modi's vision of 'smart cities' takes shape as government commits to ...

    32. Daily Mail-29-Aug-2014

    33. Smart cities is the catchphrase as Prime Minister Narendra Modi's ... In the NDA government's maiden Union Budget, Finance Minister Arun ...

    34. Modi gives tips for rejuvenating Varanasi

    35. The Hindu-29-Aug-2014

    36. Explore in depth (12 more articles)

    37. France's Consulate General assures to develop Nagpur as Smart City

    38. Nagpur Today-12-Sep-2014

    39. Therefore, all help will be provided to develop Nagpur as Smart Cityand ... City Engineer Sanjay Gaekwad, Chief Accounts and FinanceOfficer ...

    40. The 4th Smart City Exposition will open on Sept 12th

    41. Ningbo Expat Life-09-Sep-2014Share

    42. Smart City Exposition China 2014 will be held from September 12 to 14. ... "In this show, we will display 'Smart Mailbox for Convenient Financial Payment'.



    More From Industries on NDTV Profit

    What are smart cities?

    ANUJ PURI


    Construction workers at one of the earliest smart city projects in India in Kochi.

    Construction workers at one of the earliest smart city projects in India in Kochi.

    With everyone talking of the 100 smart cities announced in this year's budget, Anuj Puri takes a closer look

    Across the world, the stride of migration from rural to urban areas is increasing. By 2050, about 70 per cent of the population will be living in cities, and India is no exception. It will need about 500 new cities to accommodate the influx.

    Interestingly, urbanisation in India has for the longest time been viewed as a by-product of failed regional planning. Though it is inevitable, and will only change when the benefits of urbanisation overtake the costs involved, it is an opportunity for achieving faster growth.

    With increasing urbanisation and the load on rural land, the government has now realised the need for cities that can cope with the challenges of urban living and also be magnets for investment. The announcement of '100 smart cities' falls in line with this vision.

    A 'smart city' is an urban region that is highly advanced in terms of overall infrastructure, sustainable real estate, communications and market viability. It is a city where information technology is the principal infrastructure and the basis for providing essential services to residents. There are many technological platforms involved, including but not limited to automated sensor networks and data centres. Though this may sound futuristic, it is now likely to become a reality as the 'smart cities' movement unfolds in India.

    In a smart city, economic development and activity is sustainable and rationally incremental by virtue of being based on success-oriented market drivers such as supply and demand. They benefit everybody, including citizens, businesses, the government and the environment.

    The origin

    The concept of smart cities originated at the time when the entire world was facing one of the worst economic crises. In 2008, IBM began work on a 'smarter cities' concept as part of its Smarter Planet initiative. By the beginning of 2009, the concept had captivated the imagination of various nations across the globe.

    Countries like South Korea, UAE and China began to invest heavily into their research and formation. Today, a number of excellent precedents exist that India can emulate, such as those in Vienna, Aarhus, Amsterdam, Cairo, Lyon, Málaga, Malta, the Songdo International Business District near Seoul, Verona etc.

    In India

    The cities with ongoing or proposed smart cities include Kochi in Kerala, Ahmedabad in Gujarat, Aurangabad in Maharashtra, Manesar in Delhi NCR, Khushkera in Rajasthan, Krishnapatnam in Andhra Pradesh, Ponneri in Tamil Nadu and Tumkur in Karnataka. Many of these cities will include special investment regions or special economic zones with modified regulations and tax structures to make it attractive for foreign investment. This is essential because much of the funding for these projects will have to come from private developers and from abroad.

    Challenges

    The concept is not without challenges, especially in India. For instance, the success of such a city depends on residents, entrepreneurs and visitors becoming actively involved in energy saving and implementation of new technologies. There are many ways to make residential, commercial and public spaces sustainable by ways of technology, but a high percentage of the total energy use is still in the hands of end users and their behaviour. Also, there is the time factor — such cities can potentially take anything between 20 and 30 years to build.

    http://www.thehindu.com/features/homes-and-gardens/green-living/what-are-smart-cities/article6321332.ece


    • Image result for smart city in india

    • Image result for smart city in india

    • Image result for smart city in india

    • Image result for smart city in india

    More images for smart city in india


    Mint reports:

    The ministry of urban development has prepared a draft concept note on the smart city scheme. The government had announced a plan to develop 100 smart cities to provide better amenities in urban areas. The 100 smart cities will include all state capitals and union territories. It will also comprise 44 cities in the population range of 1-4 million people, nine satellite cities with a population of 4 million or more, 10 cities that are of religious and tourist importance and 20 cities in the 0.5 to 1 million population range. The Delhi Development Authority (DDA) will develop a smart city through a land pooling scheme as a demonstrative city. The New Delhi Municipal Corp. (NDMC) area is also being considered to demonstrate components of a smart city. Smart cities aim to provide reliable utility services, sanitation, solid waste management, storm water drainage, energy efficiency and improved access to information. The high-power expert committee on investment estimates that the annual fund requirement for smart cities will be Rs.35,000 crore. This estimate covers water supply, sewerage, sanitation and transport-related infrastructure. A large part of the funds will come from private investments. According to the scheme, this amount shall be covered by complete private investment or through public-private partnership. In the budget, finance minister Arun Jaitley had allocated Rs7,060 croreto develop 100 smart cities. The development of smart citiies was also a part of the Bharatiya Janata Party's election manifesto. "We welcome the initiative which is the need of the hour for the Indian economy. Cities are the growth enablers and current Indian cities are choking with the economic growth in India," said Jaijit Bhattacharya, partner, infrastructure and government services, at consultancy KPMG. Various states will have to submit proposals based on the reference framework to the central government. Minister for urban development Venkaiah Naidu will discuss the smart cities project with state development ministers on Friday.


    Read more at: http://www.livemint.com/Politics/JrEighhFPgJaLLS5yqY9QN/Centre-prepares-concept-note-on-smart-cities.html?utm_source=copy


    Mr Arif Jamal posted this report:

    NEW DELHI----'Smart leadership and smart people are essential pre-requisites for making cities smart' asserted the Minister of Urban Development and Housing & Urban Poverty Alleviation M.Venkaiah Naidu . He elaborated on the attributes of smart leadership and smart people while addressing the "National Conclave of States/UTs on Smart Cities" attended by the Ministers and Principal Secretaries here .


    After broadly defining the concept of 'Smart Cities', Naidu spoke at length on the state of urban governance in the country and the imperative need to uplift urban life to a higher level. He said, effective urban governance requires smart leadership that is 'bold, initiative bearing, willing and able to take hard decisions like raising, if required and recovering cost of services, implement reforms in governance, prevent unauthorized constructions besides removing encroachments and take on mafia'. Regarding the people, he said, 'they should be alert, able to question, pay the cost of services, prevent fellow citizens from violating rules and demand their due.' Shri Naidu emphasized that only then the task of developing smart cities can be realized.


    Taking advantage of the presence of ministers and officials from different states and Union Territories, Shri Venkaiah Naidu invited their attention to the inadequacies in the implementation of Jawaharlal Nehru Urban Renewal Mission (JNNURM) that fell substantially short of physical and financial targets. He noted that the political leadership of urban entities at various levels failed to provide the required impetus to galvanize urban local bodies that adversely impacted implementation of JNNURM. Shri Naidu urged that this should not be allowed in respect of Smart Cities Project.


    Shri Venakaiah Naidu broadly defined a Smart City as one that makes urban life comfortable and improves living standards through good governance, efficient health care services and education, 24 x 7 power and water supply, efficient transport, high quality sanitation, employment to the needy and robust cyber connectivity and benefits all irrespective of income, age and gender. 'The ultimate objective is building Wealthier, Healthier and Happier' cities, he said. He said the Draft Concept Note on Smart Cities made public would be revisited based on the suggestions/views of states/UTs and asked them to send their final views in a week's time. He made it clear that states/UTs/Cites which are willing to take smart/hard decisions alone will be qualified for inclusion in the Smart Cities project.


    Reflecting on urbanization scenario,  Naidu said that at present 377 million people are living in urban areas of the country (31%). In the next 15 years, this will increase by another 157 millions and by another 500 millions by 2050, by when more than half of the country's population will be living in urban areas, for the first time. More than 70% of urban people live in 468 cities/towns with more than one lakh population. He said, this growing urbanization offered immense opportunities for converting it into 'engine of economic growth, since urbanization and economic development are interlinked. In support of this, the Minister said, though only 31% of the population lives in urban areas, they contribute over 60% of the country's GDP. It was in this context that the Prime Minister suggested building 100 Smart Cities besides improving amenities in other cities and towns.


    Publish by Arif Jamal

    http://www.newobserverpost.co.vu/2014/09/smart-leaders-smart-people-can-only.html


    On Wednesday, the ministry unveiled a 'Concept Note on Smart Cities' giving broad contours about smart cities and their related aspects like financing and selection criteria. The Jawaharlal Nehru National Urban Renewal Mission, which was launched in 2005, had almost 40 per cent of its work incomplete at the time of its closure on March 31 this year.

    "A smart city cannot have only a few hours of water supply a day, or electricity that goes off for several hours, or streets littered with garbage. The general appearance of the city has to be pleasing and clean. In Delhi, it is being proposed that the DDA will develop a new smart city through the land pooling scheme and in that, parts of the NDMC area may also be considered for demonstrating all the components of smart cities,'' Naidu added.

    Using an average figure of 1 million people in each of the 100 smart cities, the High Power Expert Committee on Investment Estimates in urban infrastructure has assessed investment requirements for the services covered comes to Rs.7 lakh crore over 20 years. This translates into an annual requirement of Rs.35,000 crore. "A large part of the financing for smart cities will have to come from the private sector with the states/cities and central government only supplementing that effort," the document said.

    A senior ministry official said that the ministry is deliberating on new models and various global cities in Korea, Canada, North America and some Nordic countries. The ministry has also started talking to states and asked them for proposals on which city they would nominate for the NDA's ambitious Smart City project.

    "We're taking states along on this. A lot of state capitals and a few heritage and historic cities with a high spiritual value and tourism appeal have already made to the list,'' the official said. Most of these cities would thrive on high quality information accessible to citizens.

    "A very important feature of all smart cities is good citizen access to information. Whether it be regarding city specific data or the measures being taken by municipal bodies or information relating to various service providers such as transport and similar information relevant for potential investors has to be conveniently available. This could be through multiple channels - internet, mobile apps, radio, TV, print media, etc,'' the official said.

    In the Union Budget, Finance Minister Arun Jaitley had promised allocation of a sum of Rs.7,060 crore for the development of the smart cities.



    Read more at: http://indiatoday.intoday.in/story/narendra-modi-imprint-on-smart-city-project/1/382571.html


    URBAN PLANNING

    The long and short of what we know about Modi's 100 smart cities

    The government has allocated Rs 7,060 crore to the cities, but what will that money actually go towards?

    Rohan Venkataramakrishnan· Jul 18, 2014 · 07:18 am





    The grandiose promise of building 100 smart cities has been part of Modi's acche din vision from the outset, and it would have been surprising if the budget had not made some mention of it.


    In the event, Jaitley did promise 100 cities to be built for what the Bharatiya Janata Party is calling the neo-middle class – those who have just emerged from above the poverty line and are striving to ensure they remain there.


    Less promising was the amount he allocated to the project: Rs 7,060 crore, which is a little over Rs 70 crore per city. As with the Rs 100 crore club, the finance minister has insisted that this is simply seed money to get the projects going and more will be allocated once things have moved forward.


    What are smart cities?

    There's no simple definition for smart cities. The term encompasses a vision of an urban space that is ecologically friendly, technologically integrated and meticulously planned, with a particular reliance on the use of information technology to improve efficiency.


    The Smart Cities Council, an industry-backed outfit that advocates the concept in India, describes them as cities that leverage data gathered from smart sensors through a smart grid to create a city that is livable, workable and sustainable.


    What is smart about them?

    According to the Smart Cities Council, all the data that is collected from sensors – electricity, gas, water, traffic and other government analytics – is carefully compiled and integrated into a smart grid and then fed into computers that can focus on making the city as efficient as possible.


    This allows authorities to have real-time information about the city around them, and allows computers to attempt "perfect operations", such as balancing supply and demand on electricity networks, synchronising traffic signals for peak usage, and optimising energy networks.


    Why do we need them?

    India's is urbanising at an unprecedented rate, so much that estimates suggest nearly 600 million of Indians will be living in cities by 2030, up from 290 million as reported in the 2001 census.


    Alongside the hordes of Indians go the jobs and the money as well: a McKinsey Global Institute study estimated that cities would generate 70% of the new jobs created by 2030, produce more than 70% of the Indian gross domestic product and drive a fourfold increase in per capita incomes across the country.


    "The cost of not paying attention to India's cities is enormous," the MGI report said. "The speed of urbanisation poses an unprecedented managerial and policy challenge – yet India has barely engaged in a national discussion about how to handle the seismic shift in the makeup of the nation."


    Are they going to be new cities?

    In his budget speech, Jaitley listed out exactly why the government believes it needs to be spending money on 100 smart cities. He claimed that "unless new cities are developed to accommodate the burgeoning number of people, the existing cities would soon become unlivable."


    That said, he also made it clear that the Rs 7,060 crore allocation would not all go into setting up brand new cities. Instead, the aim is to build satellite towns near existing urban areas on the smart city template, upgrade existing mid-sized cities, and to build settlements along industrial corridors.


    Which cities have been picked out?

    At the moment 100 cities remains a tentative figure, with much still to be pinned down. The budget speech only officially identified cities along the Amritsar-Kolkata Industrial Master Plan, which covers seven states. Although they weren't named in the budget, seven cities have also been named along the Delhi-Mumbai Industrial Corridor, some which would overlap with the Amritsar-Kolkata plan.


    Officially, the budget only pointed out three cities in the Chennai-Bengaluru Industrial Corridor: Ponneri in Tamil Nadu, Krishnapatnam in Andhra Pradesh and Tumkur in Karnataka.


    What about those cities that don't make the cut?

    At a meeting regarding the smart cities in June, the urban development ministry secretary said that the focus will not be just 100 cities but all urban areas across the country. "There exists no valid reason to leave the 101st city in the process of development," he said.


    The secretary, Sudhir Krishna, has asked the National Institute of Urban Affairs to work on the smart city project, based on a framework that covers overall smartness and sustainability. For now, though, the focus will be on a much smaller number of cities in states where conditions are amenable before the government even attempts to look at expanding to cover 100 urban areas.


    Do we have any smart cities already (and who is building them)?

    A quick Google search for India's "first smart city" produces more than 70,000 results, and many of them lead to different places. In Bangalore, Cisco is working to set up a smart grid-based Education City, where all the utilities will be integrated with data.


    Outside Mumbai, the Lodha group has given IBM a contract to build all data systems in their Palava city project. Kochi has a special economic zone that seeks to replicate Dubai's smart city project. Gujarat has two projects, the Dholera urban area, which is part of the Delhi-Mumbai industrial corridor, and the Gujarat International Finance Tec-City, both of which have problems but are being touted as examples that could be scaled up across the country.


    Who will pay for them?

    Rs 70 crore per city will clearly not be enough, and even if more is added, it's unlikely the government will have the resources to pay for the cities. In the budget, the government announced that it was relaxing norms for foreign direct investment to make it easier for outside companies to invest in smart cities. In addition, India has spoken to France, Japan and Singapore about collaborating on the projects.


    We welcome your comments at letters@scroll.in.

    http://news.scroll.in/article/670881/The-long-and-short-of-what-we-know-about-Modi's-100-smart-cities


    Girija PandeGirija PandeContributor

    I write on business trends in China, India and ASEAN.

    Opinions expressed by Forbes Contributors are their own.

    FOLLOW

    ASIA OUTLOOK 8/26/2014 @ 3:51AM 5,124 views

    Building 100 Smart Cities In India, Can Singapore Seize This Once-In-A-Lifetime Opportunity?

    Comment Now

    Follow Comments

    India's new BJP-led government has widely and correctly shown its desire to create 100 new smart cities in the country as satellite townships around the larger cities – many of which are along the Delhi Mumbai Industrial Corridor (DMIC) – though not restricted to the area. Stretching over 1,000km, the corridor between Delhi and Mumbai is expected to garner over $90 billion of overseas investment to develop manufacturing zones, business parks and new smart cities along a dedicated rail freight corridor.

    Urbanization challenge in India and China:

    India is expected to see massive urbanization along the same lines of what we have seen in China, where urbanization crossed 50% last year and is projected to cross 75% in the next 5 years. Statistically more people live in cities globally than in rural areas. India is nearly a third urbanized in comparison, but this trend will accelerate as the economy grows, becomes more sophisticated and is in need of more skilled labor. Concomitantly, there is a greater need to improve agricultural productivity by lessening manpower on farms and transferring them to areas of higher productivity in industry, resulting in an overall growth in productivity in the economy. After all, assembling Apple iPhones creates higher added value than growing rice!

    This massive migration to urban areas will be the defining feature of the Indian economy in the coming decade – very much in line with the urbanization happening all over the globe. Smart cities need multidimensional, integrative thinking, and will not happen organically. They can only result from a central planning authority. Without any state level intervention, existing cities will become unlivable and chaotic, given the scale of the migration expected. Consequently, new cities have to be set up – many around existing urban areas as satellite towns. This has additional advantages of clustering and benefits of scale in creation of all kinds of urban infrastructure needed for a smart city.

    Creation of such new satellite cities need to be closely tied to the concepts of sustainability. This requires these new cities to be "smart," i.e. creating new types of transport systems to avoid congestion that is currently so rampant in many Asian towns, construction using low energy housing materials, newer water harvesting techniques and extensive use of IT systems on cloud in running various urban functions and the provision of e-government services to its citizens. Moreover, such cities should be self-sufficient in being able to create gainful employment for residents so that cross city travel is minimized.

    Singapore advantage:

    Many countries in the world are moving towards creating such cities. Singapore has widely experimented with and successfully created various smart green corridors/urban townships within its limited land area of around 700 sq km. Its transport systems, water management, extensive use of IT and land use planning is world class and has won many accolades over the years and placed it in the top leagues of well-planned smart and liveable cities. Even though it is one of the densest cities in the world, it has created an ambient living environment with parks and gardens around concentrated mini townships all connected with an excellent metro system, which has reduced road congestion.

    The Chinese government has extensively utilized Singapore's skills in such urban planning. In the mid-nineties, it created a model business park-cum-city in a joint venture with Singapore at Suzhou, which became the model for new business parks around China. Thereafter, JVs were created via Singbridge (a consortium of major Singaporean companies) for an Eco-city in Tianjin and Knowledge City in Guangzhou. All of these are examples of smart cities created as satellite towns in highly urbanized environments with sustainability being the principle driver and ability to create employment at the same time. In India, a Singapore government company, Ascendas, has been at the forefront of creating state of the art IT and business parks which have been role models for such facilities in India since the mid-nineties. This experience should be leveraged further in India.

    One way to fast track planning and construction of such smart cities is to include the private sector in India within a given framework for such new townships by the government. This would need to be specific to the creation of such smart cities in designated areas, so that existing and outdated laws do not become a barrier. These activities would need to be undertaken by approved consortia (consisting of experts in smart city planning/consulting groups/infrastructure and urban developers/IT experts), which would assist in conceptualizing, designing world class smart city clusters. Such consortia with well-known Singaporean partners with proven expertise in smart city planning and development, would bring the latest techniques and would additionally project manage the construction of such smart cities via well-known developers. Creating such consortia is a prerequisite to planning and project managing the creation of such world class sustainable townships. Using Singapore based urban planning groups is recommended given their experience in Asia and its closeness to India.

    India is going down the path to manage its urbanization better via the creation of 100 smart cities. Singapore with its closeness to India and with relevant skills and experience in creation of smart and liveable cities in Asia is ideally positioned. What it needs to do is to boldly seize the moment.

    Girija Pande is the executive chairman of Apex Avalon Consulting Pte ltd, Singapore, which is a joint venture with Avalon Consulting, India's largest consulting and analytics group. Mr. Pande is the former chairman of Tata Consultancy Services Asia Pacific. He has also recently co-authored a book on Indian businesses in China -The Silk Road Rediscovered, published by John Wiley Inc.

    http://www.forbes.com/sites/girijapande/2014/08/26/building-100-smart-cities-in-india-can-singapore-seize-this-once-in-a-lifetime-opportunity/

    1. ndia's smart city craze: big, green and doomed from the start?

    2. www.theguardian.comNewsCitiesSmart cities

  • Apr 17, 2014 - Ayona Datta: Twice the size of Mumbai, the "smart city" of Dholera is one of dozens of new cities planned in India– but will it just end in more ...

  • Smart cities to soon become a reality in India - Livemint

  • www.livemint.com/.../Smart-cities-to-soon-become-a-reality-in-India.ht...

  • Jun 18, 2014 - An aerial view of Palava city. A smart city is one that completely runs on technology—be it for electricity, water, sanitation and recycling, ...

  • Consultants start queuing up for helping in smart city... - DNA

  • www.dnaindia.comNewsIndia

  • Aug 29, 2014 - The smart cities will be equipped with all the utilities, including uninterrupted ... "It has a pyramidal approach and suits best in the Indian context.

  • India's push for 100 smart cities has tech firms scrambling ...

  • www.techrepublic.com/.../indias-push-for-100-smart-cities-has-tech-firm...

  • Jul 31, 2014 - As India looks to build smart cities to boost economic development, global tech firms, including IBM and Cisco, vie for a slice of the action.

  • Govt to open discussion on '100 smart cities' via portal - The ...

  • www.thehindubusinessline.com/...to...smart-cities.../article6391650.ece

  • 5 days ago - Progressive formats such as smart cities are the result of vast knowledge and know-how. In a developing country like India, where the more ...

  • Wave City - IBM Smart City

  • city.thewavegroup.com/ibm-smart-city.php

  • Wave City is one of India's largest Smart Cities based on the IBM Smart City Concept spread across 4500 acres and located 30 minutes away from Delhi situated ...

  • Smart Cities Summit 2014 - ASAPP Conferences

  • www.asappconferences.com/smartcities/

  • SM@RT CITIES SUMMIT 2014 will be hosted in Mumbai, the financial hub of India, in an impressive five star venue of Hotel Four Seasons on 22 & 23 August, ...

  • IBM bets big on India, excited about 'smart cities' project ...

  • www.moneycontrol.comNewsManagement Interviews

  • Sep 4, 2014 - IBM bets big on India, excited about 'smart cities' project. The company is also seeing a strong revival in the telecom sector and expects clients ...

  • Smart City Challenge | A Techfest Initiative

  • www.techfest.org/smart-city

  • What is the objective of Smart City Challenge? ... the state of urban infrastructure inIndia cannot withstand the population pressures of tomorrow's urban India.

  • India, Japan sign MoU to develop Varanasi into a 'smart city...

  • ibnlive.in.comIndia

  • Aug 30, 2014 - India and Japan on Saturday signed an agreement to develop the age-old Varanasi city using the experience of Kyoto, the 'smart city' of Japan, ...


  • Why these ads?

    1. Smart Cities

    2. Adwww.dholerametrocity.com/‎

    3. 097 12 951453

    4. Residential Plots, Villas,Bungalows Dholera SIR. For Best Deal Enquire

  • Smart City / SuperSmart - Top grade nutritional supplements‎

  • Adwww.super-smart.eu/‎

  • The Great European Vitamin Shop

  • Conference Smart Cities

  • Adwww.smartlivingcity.com/‎

  • High level speakers Workshops and masterclasses



  • 0 0


    झारखण्ड में जेलों में बंद आदिवासियों की सूची .
    राजनैतिक पार्टियां आदिवासियों की हत्याएं कर के और उन्हें जेलों में ठूंस कर जंगलों पर बंदूक के दम पर कब्ज़ा कर के उन जंगलों को देशी विदेशी कंपनियों को सौंपने में लगी हुई हैं .
    अभी एक मुकदमे में सर्वोच्च न्यायालय नेएक मुकदमे में पूछा था कि बताइए कि जेलों में कितने आदिवासी बंद हैं . सरकार ने कोई जवाब नहीं दिया .
    हमारे वरिष्ठ साथी स्टैन स्वामी ने यह नाम मीडिया रिपोर्ट से जमा किये हैं .
    सर्वोच्च न्यायालय इसका संज्ञान ले . इन आदिवासियों को रिहा करे और इन्हें फर्ज़ी मामलों में फंसाने वाले पुलिस अधिकारियों पर मुकदमा चलाया जाय .




















    0 0
  • 09/14/14--12:59: পশ্চিমবঙ্গে কিন্তু ক্ষমতা বেদখল বামেরা এখন সারদায় নিমজ্জিত মমতার পরিবর্তনকে বঙ্গোপসাগরে জলাজন্জলি দেওয়ার তালে আছেন এবং বাংলায় গৌরিক পতাকার বাড়বাড়ন্ত তৃণমুলের সর্বনাশ হলেও বামেরা পৌষমাসের আশায় আছেন৷ ফ্যাসিস্ট নাজি সাম্রাজ্যবাদী করপোরেট মুক্তবাজারি বিদেশ নীতির প্রশংসায় হামিদ সাহেবের মন্তব্যে তাই অনেক কিন্তু কিন্তু,থেকে যাচ্চে কিন্তু৷ বাবরি ধ্বংস যেমন য়েরশলুম মন্দির দখলের ড্রেস রিহার্সল, মোদী সরকারের নূতন বৈদেশিক সম্পর্ক বিন্যাস কিন্তু আসলে মধ্যযুগের শত বর্ষের ইসলাম বিরুদ্ধে ক্রুসেডেরই নামান্তর৷ পলাশ বিশ্বাস
  • পশ্চিমবঙ্গে কিন্তু ক্ষমতা বেদখল বামেরা এখন সারদায় নিমজ্জিত মমতার পরিবর্তনকে বঙ্গোপসাগরে জলাজন্জলি দেওয়ার তালে আছেন এবং বাংলায় গৌরিক পতাকার বাড়বাড়ন্ত তৃণমুলের সর্বনাশ হলেও বামেরা পৌষমাসের আশায় আছেন৷


    ফ্যাসিস্ট নাজি সাম্রাজ্যবাদী করপোরেট মুক্তবাজারি বিদেশ নীতির প্রশংসায় হামিদ সাহেবের মন্তব্যে তাই অনেক কিন্তু কিন্তু,থেকে যাচ্চে কিন্তু৷

    বাবরি ধ্বংস যেমন য়েরশলুম মন্দির দখলের ড্রেস রিহার্সল, মোদী সরকারের নূতন বৈদেশিক সম্পর্ক বিন্যাস কিন্তু আসলে মধ্যযুগের শত বর্ষের ইসলাম বিরুদ্ধে ক্রুসেডেরই নামান্তর৷

    পলাশ বিশ্বাস





    আজকালের প্রতিবেদন: বিদেশ নীতির ক্ষেত্রে বুদ্ধিদীপ্ত পদক্ষেপ করেছে নরেন্দ্র মোদির সরকার৷‌ শনিবার কলকাতায় লেডিজ স্টাডি গ্রুপের এক আলোচনাচক্রে এ কথা বলেছেন ভারতের উপরাষ্ট্রপতি এম হামিদ আনসারি৷‌ তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশগুলির সঙ্গে সম্পর্ক আরও উন্নয়নে ভারত প্রতিনিয়ত প্রয়াস চালাচ্ছে৷‌ তিনি বলেন, স্কুল পর্যায় থেকেই খেলাধুলা শুরু করা উচিত৷‌ কিন্তু বহু স্কুলেরই নিজস্ব খেলার মাঠ নেই৷‌ সন্ত্রাসবাদ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সাহসের সঙ্গে সন্ত্রাসের মোকাবিলা করতে হবে৷‌ ভয়ের সঙ্গে নয়৷‌ আমাদের সমাজ বিশ্বের যে কোনও সমাজের মতোই নিরাপদ৷‌ রাজ্যসভায় এ'-অফিসিও চেয়ারম্যান পদ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এই পদের ভূমিকা অনেকটা রেফারির মতো৷‌ তিনি সভা পরিচালনা করেন৷‌ কিন্তু নিজস্ব কোনও ভূমিকা নেই৷‌ অন্যদিকে, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইনস্টিটিউট অফ ফরেন স্টাডিজ আয়োজিত 'ইউরোপ অ্যান্ড এমার্জিং এশিয়া'শীর্ষক এক আম্তর্জাতিক আলোচনাচক্রের উদ্বোধন করে উপরাষ্ট্রপতি এশিয়া-ইউরোপের শতাব্দীপ্রাচীন সম্পর্কের কথা উল্লেখ করেন৷‌ বলেন, দু'টি মহাদেশের সমস্যা ও সুযোগ সম্বন্ধে সজাগ থাকলেই পারস্পরিক সহযোগিতার পথ গড়ে উঠবে৷‌ পাশ্চাত্য অর্থনীতি এশীয় অর্থনীতির অগ্রগতির কাছে হার মানছে৷‌ তা সত্ত্বেও ইউরোপ এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নগুলি গুরুত্বপূর্ণ স্হান অধিকার করে রয়েছে৷‌ বিশ্বশাম্তি, নিরাপত্তা ও উন্নতির লক্ষ্যে দুই মহাদেশকেই এক হয়ে কাজ করতে হবে৷‌ এই অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্হিত ছিলেন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য সুরঞ্জন দাস প্রমুখ৷‌ এদিন ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ কমার্স আয়োজিত 'ইমার্জিং ট্রেন্ডস অ্যান্ড চ্যালেঞ্জ ইন ইন্ডিয়া'শীর্ষক এক আলোচনাচক্রেও যোগ দেন হামিদ আনসারি৷‌

    আজকালের প্রতিবেদন: ঢাকা, ১৩ সেপ্টেম্বর– মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সফরে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২৭ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের ফাঁকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠকে বসবেন৷‌ রাষ্ট্রপুঞ্জে নিযুক্ত বংলাদেশের স্হায়ী প্রতিনিধি আবুলকালাম আবদুল মোমেন জানিয়েছেন, দুই প্রধানমন্ত্রী সাধারণ পরিষদে ওই দিন ভাষণ দেওয়ার পরই বৈঠকে বসবেন৷‌ মোদি সাধারণ পরিষদের ওই অধিবেশনের ষষ্ঠ বক্তা, হাসিনা অষ্টম৷‌ নরেন্দ্র মোদি সরকার ক্ষমতায় আসার পর এই প্রথম শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক হবে তাঁর৷‌ তবে সম্প্রতি ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বাংলাদেশ সফর করেছেন৷‌ ঢাকায় শেখ হাসিনার সঙ্গে সুষমা স্বরাজের বৈঠকও হয়েছে৷‌ দিল্লিতে তিন দিন আগে সুষমা জানিয়েছেন, ভূমিসীমা নির্ধারণ চুক্তি ও তিস্তার জলবণ্টন চুক্তি রূপায়ণে ভারত আম্তরিক চেষ্টা চালাচ্ছে৷‌ ভূমিসীমা নির্ধারণ (ছিটমহল বিনিময়) চুক্তির খসড়া এখন রয়েছে ভারতের রাজ্যসভার সিলে'কমিটিতে৷‌ ভূমিসীমা চুক্তি ও তিস্তা চুক্তি নিয়ে মোদি সরকার রাজনৈতিক ঐকমত্যের চেষ্টা চালাচ্ছে৷‌ সুষমার এ কথায় বাংলাদেশ আশাবাদী৷‌ নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রপুঞ্জের অধিবেশনের ফাঁকে মোদির সঙ্গে বৈঠকে হাসিনা এই দুই চুক্তির কথা তুলতে পারেন৷‌ ওদিকে দিল্লির খবর, পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফও যাচ্ছেন নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রপুঞ্জের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে ভাষণ দিতে৷‌ রাষ্ট্রপুঞ্জের ওই অধিবেশনের ফাঁকে মোদির সঙ্গে শরিফের বৈঠকের জন্য পাকিস্তান জোর চেষ্টা করছে৷‌ গত মাসে দিল্লির পাক দূতাবাসে কাশ্মীরি বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাদের ডেকে পাক হাইকমিশনার আবদুল বাসিত বৈঠক করায় ভারত দু'দেশের বিদেশ সচিবদের বৈঠক বাতিল করে দেয়৷‌ এতে দু'দেশের সম্পর্কে ফের যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে, তা মেরামত করার চেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান৷‌ গতকাল দিল্লিতে বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ বলেছিলেন, দু'দেশের কূটনৈতিকতায় পূর্ণচ্ছেদ বলে কিছু নেই৷‌ এতে আশার আলো দেখছে পাকিস্তান৷‌



    বিদেশনীতিতে মোদী সরকারকে শংসাপত্র দিলেন উপরাষ্ট্রপতি হামিদ আনসারি৷ তাঁর মতে, বিদেশনীতি রূপায়ণে সঠিক পদক্ষেপই নিয়েছে নরেন্দ্র মোদীর সরকার৷তাঁর মতে আন্ত্রজাতিক সম্পর্কের পুনর্বিন্যাসে এশিয়ার প্রতিপত্তি বাড়বে৷শনিবার কলকাতায় এক অনুষ্ঠানে বিদেশনীতির ধারাবাহিকতা  প্রসঙ্গে হামিদ স্যার এই মন্তব্য করেছেন৷


    হক কথা৷

    ডলার আধিপাত্য শেষ হতে চলেছে,এমনটা বুঝতে নাগপুরের সঙ্ঘ হেডকোয়ার্টারের ভূল হওয়ার কথা নয়৷সম্পর্কের পুনর্বিন্যাসে ভারতের পদক্ষেপ নিঃসন্দেহ স্বাগত৷এশিয়া ও বিশেষকরে  ভারতীয় উপমহাদেশগুলির সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক ভালো হলেই সবচেয়ে ভালো৷নিঃসন্দেহ আমেরিকা ও ডলারের পতন হওয়ার পর ভারতের বৈস্বিক কার্যকরি বিদেশনীতি থাকতেি হবে৷বিদেশনীতির ধারাবাহিকতার প্রসঙ্গ তুলে কিন্তু হামিদ সার নিজেকেই কন্ট্রাডিক্ট করলেন৷


    মুক্তবাজারি বৈদেশিক নীতি এখন দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য সম্পর্কে সামাবদ্ধ৷জাপানের ভারতে অর্থলগ্নি বা ভারতে চিনের অর্থলগ্নি বোঝায় না সার্বিক উন্নতি কতটা হল৷উপমহাদেশের মানুষ যদি সীমান্তের কাঁডাতারে আটকেই থাকে এবং সহযোগিতা সন্ত্রাসির বিরুদ্ধ মার্কিন যুদ্ধ গৃহযুদ্ধর হের ফের হয়,স্ট্র্যাটেজিক শয্যাসঙ্গী বদলে, যেমন ইজরাইলের জন্য প্যালাস্টাইন আন্দোলনে সমর্থন প্রত্যাহার বা মার্কিন আধিপাত্যর বদলে জাপানি আধিপাত্য অঙ্গীকার,তাহলে শেষ দশা পাকিস্তান,বাংলাদেশ,শ্রীলন্কা বা নেপালের চাইতে আলাদা কিছু হবে,আশা করার কোনো কারণ আপাততঃ দেখছি না৷


    হামিদ সাহেব বিদ্বান মানুষ কিন্তু তিনি বামপন্থী এবং বলাই বাহুল্য বামপন্থীদের চিন্তা ভাবনা শাসক শ্রেণীর স্বার্থের বাইরে অন্য খাতে চলার আজ অবধি কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় নি৷


    পশ্চিম বঙ্গে ক্ষমতা ধরে রাখতে বামপন্থীরা দীর্ঘকাল কংগ্রেসের লেজুড় হয়ে বাম আন্দোলন,মতাদর্শ ওদায়বদ্ধতার দফা রফা করেছেন৷


    সেই পশ্চিমবঙ্গে কিন্তু ক্ষমতা বেদখল বামেরা এখন সারদায় নিমজ্জিত মমতার পরিবর্তনকে বঙ্গোপসাগরে জলাজন্জলি দেওয়ার তালে আছেন এবং বাংলায় গৌরিক পতাকার বাড়বাড়ন্ত তৃণমুলের সর্বনাশ হলেও বামেরা পৌষমাসের আশায় আছেন৷


    ফ্যাসিস্ট নাজি সাম্রাজ্যবাদী করপোরেট মুক্তবাজারি বিদেশ নীতির প্রশংসায় হামিদ সাহেবের মন্তব্যে তাই অনেক কিন্তু কিন্তু,থেকে যাচ্চে কিন্তু৷



    সারদার টাকায় জামাতকে মদদের ইস্যু কিন্তু আস্তে আস্তে ভারতব্যাপি পদ্মপ্রলয়ে সারদায় সর্বস্বান্ত মানুষদের টাকা ফেরত দেওয়া বা এই কেলেন্কারিতে শামিল দোষীদের শাস্তির চেয়ে বড় রাজনেতিক প্রশ্ন হয়ে উঠছে এপার ওপার বাংলায়৷


    মনে রাখা দরকার বিজেপি ও সঙ্ঘ পরিবার ধর্মীয অন্ধ জাতি সত্তার বিস্পাযণ মার্ফতে ক্ষমতায় এবং একই সঙ্গে মোদী ও দিদি,দু পক্ষই কিন্তু পিপিপি গুজরাতি মডলের দায়বদ্ধ অনুসারি,দুজনকে ক্ষমতায় আনতে বাজারের লগ্নি অনেক বেশি


    মমতা ব্যানার্জিও মুসলমান ভোটের রাজনীতি করছেন মুসলিমদের জন্য কিছু না করেইএক্কেবারে বামপন্থী রাস্তায়৷


    অন্যদিকে সারা দেশে সঙ্ঘ পরিবার সাম্প্রদায়িক মেরুকরণের জন্য ইতিহাস ভূগোল সবই ওলট পালট করছে যেমন অছুত বাল্মীকিদের ব্রাহ্মণ আখ্যা দিয়ে তাঁদের অস্পৃশ্যতার দায় চাপানো হচ্ছে মুসলিম আক্রমণকারিদের উপর,যেমন ভূসংস্কার.জাতি উন্মুলন ও নারী অধিকারের মূল এজেন্ডা যে হরিচাঁদ ঠাকুর নিয়ে ব্রাহ্মণ্যবাদকে খারিজ করে মতুয়া আন্দোলন শুরু করেচছিলেন নবজাগরণ সময়ে,তাঁকে হিন্দু মহাসভার উত্তরসুরিরা মৈষিলী ব্রাহ্মণ ও পরমব্রহ্ম সাজিয়ে নমশুদ্রদের ব্রাহ্মণ করে ছেড়েছে৷

    নমো ঋত্বিকরা ত পৈতা ধারণ করছেন হিন্দু মহাসভার বৈদিকী মতে বহুকাল আগে৷


    বাল্মীকিদের অস্পৃশ্যতা ও মুসলিম আগ্রাসনের তত্বের মতোই তাই সারদা জামাত যোগাযোগও সারা দেশে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধ মার্কিন যুদ্ধকে ত্বরান্বিত করার কান্ড কারখানা হতে চলেছে,যার পুঁজি মুসলমানদের সন্ত্রাসীই নয় শুধু,জাতি প্রথা,সামাজিক অন্যায়,বর্ণ বৈষম্য ঔর অন্যায় অসাম্যের জন্য দায়ী করে জঘন্যতম মুসলিম বিদ্বেষ তৈরি করা৷


    বাবরি ধ্বংস যেমন য়েরশলুম মন্দির দখলের ড্রেস রিহার্সল, মোদী সরকারের নূতন বৈদেশিক সম্পর্ক বিন্যাস কিন্তু আসলে মধ্যযুগের শত বর্ষের ইসলাম বিরুদ্ধে ক্রুসেডেরই নামান্তর৷


    ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির শাহরিয়ার কবির বলেছেন, জামায়াতে ইসলামীকে অর্থ যোগানে ইমরানের ভূমিকা আমরা জানি না। তবে নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের নির্বাচিত একটি সরকারকে উৎখাতে সিমির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ইমরানের সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ ছিল। আর পশ্চিমবঙ্গে একজন সিনিয়র মন্ত্রী ইমরানকে রক্ষার জন্য কিভাবে বলছেন, ইমরান মুসলিম বলেই তাঁকে টার্গেট করা হচ্ছে-প্রশ্ন করেন শাহরিয়ার কবির।

    ইতিমধ্যে মধ্যপ্রাচ্যে আবার পশ্চিমা সা্রাজ্যবাদী তেল যুদ্ধের বিভীষিকা ঘনিয়ে আসছে।গাজা গণসংহারে ইজরাইলকে নিঃশব্দ সমর্থন করার পর এি প্রসঙ্গে ভারতের অবস্থান বলাই বাহুল্য।


    অথচ পোপ ফ্রান্সিস তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বাঁধতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে নিহত এক লাখের বেশি ইতালীয় সৈন্যের প্রতি সম্মান দেখাতে নির্মিত স্মৃতিস্তম্ভ পরিদর্শনকালে শনিবার তিনি এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেন। খবর এএফপি ও টেলিগ্রাফ অনলাইনের।


    প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরুর ১শ'বছর পূর্তি উপলক্ষে শনিবার ইতালির উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় রেদিপুগলিয়া সমাধি ক্ষেত্র পরিদর্শন করেন পোপ।


    উপস্থিত লোকজনের উদ্দেশে বলেন, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ বাঁধতে পারে বলে তিনি আশঙ্কা করছেন। এখন যারা 'সন্ত্রাসের যড়যন্ত্র'করছে তাদের নিন্দা করে তিনি বলেন, এরা ধ্বংস ও মৃত্যুর বীজ বপন করছে।


    পোপ বলেন, 'আজকের পৃথিবীতে স্বার্থ, ভূরাজনৈতিক কৌশল, অর্থ ও ক্ষমতার লিপ্সা ও অস্ত্র বাণিজ্য চলছে। আরেকটি বিশ্বযুদ্ধ আটকাতে না পারার ব্যর্থতার পরও আমরা তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের আশঙ্কা থেকে নিরাপদ মনে করতে পারছি না। কেউ খাদ্যের জন্য, কেউ অপরাধের জন্য, কেউ গণহত্যার জন্য অথবা কেউ ধ্বংসের জন্য এই যুদ্ধ বাঁধাবে 'তিনি বলেন, 'মানবতা আজ কাঁদছে এবং এটা কাঁদারই সময়'।


    যুদ্ধকে একটি উন্মাদনা হিসাবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যুদ্ধ অযৌক্তিক, এটি কেবল ধ্বংসই ডেকে আনে। ধ্বংসের মধ্য দিয়েই যুদ্ধের পরিধি বাড়তে থাকে। যদিও যুদ্ধের আসল কারণ লোভ, অসহিষ্ণুতা ও ক্ষমতার লোভ... তবে অনেক সময় আদর্শবাদকেও এর একটি কারণ হিসাবে দেখান হয়।


    পোপ এমন সময় সমাধি ক্ষেত্রগুলো পরিদর্শন করলেন যখন ইরাক, সিরিয়া ও ইউক্রেনে সংঘাত অব্যাহত আছে।


    প্রসঙ্গতঃ উল্লেখ্য,গত মাসে পোপ ইরাকের ইসলামিক স্টেটের 'অযৌক্তিক আগ্রাসনের'বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের শক্তি প্রয়োগ বৈধ হতে পারে বলে মত দেন।


    জঙ্গী গ্রুপটির বিরুদ্ধে ইরাক ও সিরিয়ায় হাজার হাজার মানুষকে বাস্তুচ্যুত ও হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে, যাদের অধিকাংশই খ্রিস্টান। পোপ প্রায়শ ঈশ্বরের নামে যুদ্ধের ধারণার সমালোচনা করে থাকেন।


    সেøাভেনিয়ার সীমান্তবর্তী রেদিপুগলিয়ায় ফ্যাসিবাদী আমলে তৈরি হয়েছি ইতালির একটি সামরিক সমাধিক্ষেত্র। সেখানে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে এক লাখের বেশি সৈন্যের সমাধি রয়েছে।


    এর আগে পোপ কাছাকাছি আরেকটি যুদ্ধ স্মৃতিসৌধ পরিদর্শন করেন, যেখানে ১৫ হাজার সৈন্যের সমাধি রয়েছে। নিহত সৈন্যরা অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সাম্রাজ্য অধীন পাঁচটি দেশের থেকে প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যোগ দিয়েছিল। যুদ্ধে পরাজিত পক্ষে ছিল অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সাম্রাজ্য।


    পোপের আপন পিতামহ প্রথম বিশ্বযুদ্ধে ইতালির পক্ষে ১৯১৭ ও ১৮ সালে অংশ নিয়েছিলেন।



    জনকন্ঠের রিপোর্টঃপশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদের কাছ থেকে জামায়াতে ইসলামীকে অর্থ যোগান দেয়ার ঘটনায় চরম অস্বস্তিতে পড়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিশেষ করে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এ ঘটনার তদন্তে আগ্রহের কথা জানার পর থেকে মমতা এখন চরম বিব্রত বোধ করছেন। এ কারণে কলকাতায় বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনার আবিদা ইসলামের সঙ্গে নিজেই বসতে চেয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী। রবিবার কলকাতার টেলিগ্রাফ পত্রিকায় এ বিষয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।



    টেলিগ্রাফের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রায় দুই বছর ধরে কলকাতার ডেপুটি হাইকমিশনার তাঁর সাক্ষাত চাইলেও সময় দেননি মুখ্যমন্ত্রী। তবে সারদা কেলেঙ্কারি এবং তৃণমূল নেতা আহমেদ হাসান ইমরানের জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সম্পৃক্ততার অভিযোগ উঠার পর এ বৈঠকে সম্মতি দিয়েছেন মমতা। সোমবারই তাঁদের সাক্ষাত হতে পারে বলে মুখ্যমন্ত্রীর দফতরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।


    টেলিগ্রাফ উল্লেখ করেছে-নাম প্রকাশ না করে এক কর্মকর্তা বলেন, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং তৃণমূলের এক নেতার বিরুদ্ধে বাংলাদেশে অস্থিরতা তৈরিতে জামায়াতে ইসলামীকে অর্থ দেয়ার অভিযোগ তদন্ত চলার ইঙ্গিত দেয়ার পর বিষয়টি নিয়ে চরম অস্বস্তিতে পড়েছেন মমতা। ঢাকা থেকে বিষয়টি তোলার পর ভারত সরকার তা তদন্ত করছে বলে খবর প্রকাশিত হওয়ায় ডেপুটি হাইকমিশনারের কাছে এ বিষয়ে বাংলাদেশ সরকারের মনোভাব জানতে চাইতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী।


    বাংলাদেশী কয়েকটি সংবাদপত্রে বলা হয়েছে-তৃণমূল সাংসদ আহমেদ হাসান ইমরানের সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর সম্পর্ক নিয়ে প্রকাশিত খবরের বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের অবস্থান জানাতে ডেপুটি হাইকমিশনারকে তলব করেছেন মমতা। তবে মুখ্যমন্ত্রীর দফতর ও বাংলাদেশ ডেপুটি হাইকমিশন সূত্র জানায়, বাংলাদেশের ডেপুটি হাইকমিশনার মমতার সাক্ষাত চাওয়ায় তাঁদের এ বৈঠক হচ্ছে।


    গত জুলাইয়ে ভারতে দায়িত্বের মেয়াদ শেষ হয়েছে আবিদা ইসলামের। তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে ঘনিষ্ঠতা ও আগামী ২০ সেপ্টেম্বর পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীর সঙ্গে দিল্লী সফর কেন্দ্র করে আবিদার মেয়াদ দুই মাস বাড়ানো হয়। চলতি মাসের শেষদিকে তিনি ঢাকায় ফিরবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।


    তৃণমূলের কয়েক নেতা জানান, আবিদা ইসলাম আগে মমতার সাক্ষাত চাইলে দুই বছরেও বাংলাদেশী কূটনীতিকের সঙ্গে দেখা করেননি মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য সরকারের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি ও স্থলসীমান্ত চুক্তির মতো বিষয়গুলো থাকায় বাংলাদেশী কূটনীতিকের সঙ্গে বৈঠক এড়ানোর চেষ্টা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী।

    ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি সই এবং স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিলেও তার বিরোধিতা করেন মমতা। কেউ কেউ বলছেন, মমতা এমন সময়ে বাংলাদেশী কূটনীতিকের সঙ্গে বসতে সম্মত হয়েছেন যখন জামায়াতের সঙ্গে তাঁর দলের নেতা ইমরানের সম্পর্ক নিয়ে সীমান্তের উভয় পাশে আলোচনা চলছে।


    সম্প্রতি বিজেপির মুখপাত্র সিদ্ধার্থ নাথ সিং এক নির্বাচনী সভায় সাবেক সিমি নেতা ইমরানের সঙ্গে জামায়াতে ইসলামীর সম্পর্কের বিষয়টি তুললে তা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা শুরু হয়। ভারতে ২০০১ সাল থেকে নিষিদ্ধ স্টুডেন্টস ইসলামিক মুভমেন্ট অব ইন্ডিয়ার (সিমি) অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ইমরান বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভার সদস্য।


    বাংলাদেশ ও ভারতের কয়েকটি পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের বরাত দিয়ে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা সিদ্ধার্থ বলেন, বাংলাদেশে শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে জ্বালাও-পোড়াওয়ে সারদার টাকা পাঠিয়েছেন ইমরান। এ সব অভিযোগ অস্বীকার করে ভারতীয় টেলিগ্রাফকে ইমরান বলেছেন, ১৯৮৪ সালে আমি সিমি ছেড়েছি এবং জামায়াতের সঙ্গে আমার কিছু করার নেই।

    তৃণমূলের দুই প্রভাবশালী নেতা সুব্রত মুখার্জী ও ফিরহাদ হাকিমের মতো অনেক নেতাই ইমরানের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ নাকচ করছেন। সোমবার অনুষ্ঠানরত উপনির্বাচন ঘিরে ভোটারদের মন ঘোরাতে বিজেপি কৌশল হিসেবে ইমরানের বিরুদ্ধে এ সব অভিযোগ তুলেছে বলে দাবি তাদের।

    তৃণমূল ভবনে ফিরহাদ হাকিম বলেন, ইমরান সন্ত্রাসী নয়। শুধু সংখ্যালঘু সম্প্রদায় থেকে আসায় তাঁকে টার্গেট করা হচ্ছে।


    আজকালের প্রতিবেদন: নন্দীগ্রাম আন্দোলনে সোনাচূড়ায় যে-সব বেআইনি জিনিসপত্র কেনা ও ব্যবহার হয়েছিল তাতেও সারদার টাকা ঢুকে থাকতে পারে৷‌ ওই সময় যে-সব মাওবাদী কর্মী ও তৃণমূল কর্মীরা একযোগে কাজ করেছিলেন, পরবর্তীকালে যে-সব মাওবাদী আত্মসমর্পণ করেছেন বা জেলে আছেন তাদের সবাইকে অবিলম্বে জেরা করুক সি বি আই৷‌ অনেক তথ্য বেরিয়ে আসবে৷‌ শনিবার বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু সাংবাদিকদের এ কথা বলেছেন৷‌ পাশাপাশি এদিন বামফ্রন্টের বৈঠকে সমস্ত শরিকদল একমত যে যেটুকু তদম্ত হয়েছে তাতে পরিষ্কার বোঝা যাচ্ছে, সারদা ও অন্যান্য চিটফান্ডের সঙ্গে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস ওতপ্রোতভাবে জড়িত৷‌ সি বি আই তদম্তে যেটুকু তথ্য প্রকাশিত তাতেই মুখ্যমন্ত্রী থেকে শুরু করে মন্ত্রী, সাংসদ, নেতা-কর্মীদের আচরণ, মুখের চেহারা ও কথাবার্তা বদলে গেছে৷‌ মানুষের কাছে স্পষ্ট হয়ে গেছে যে সারদা দুর্নীতিতে ডুবে আছে শাসকদল৷‌ তাই ২২ সেপ্টেম্বর রামলীলা ময়দান থেকে বড়সড় মিছিল, জমায়েত ও সভার ডাক দিয়েছে রাজ্য বামফ্রন্ট৷‌ বিমান বসু এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে জানিয়েছেন, একজন নিজের গায়ে সততার প্রতীক লেবেল লাগিয়ে সারাদিন ধরে অসৎ কাজ করে চলেছেন, মিথ্যে কথা বলে চলেছেন৷‌ চোর, ডাকাত, গুন্ডা, বদমায়েশরা কপালে লেবেল লাগিয়ে কুকর্ম করে না৷‌ তেমনি সমাজে যাঁরা প্রকৃত সৎ মানুষ তাঁরা কপালে লেবেল লাগিয়ে কাজ করেন না৷‌ নীরবে সৎ জীবনযাপন করে থাকেন৷‌ আদালতের নির্দেশে সি বি আই তদম্তে আজ যখন একের পর এক তথ্য উঠে আসছে, প্রকৃত সত্য মানুষের কাছে স্পষ্ট হচ্ছে তখন ফের কপালে লেবেল লাগিয়ে গলাবাজি শুরু হয়ে গেছে৷‌ আইন মন্ত্রীর নেতৃত্বে সি বি আই অফিসের সামনে ধর্নার আয়োজন করে ফের মানুষকে বোঝাতে চাইছে তারা কত সৎ! এ জন্য আমরা বামফ্রন্ট মনে করছি রাস্তাই রাস্তা৷‌ রাস্তায় নেমে আমরাও মানুষের কাছে প্রকৃত তথ্য তুলে ধরব৷‌ এদিন সারদা, রাজ্য সরকার, পরিবহণ দপ্তর-সহ সমস্ত বিষয় নিয়ে কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু৷‌ তিনি বলেন, সারদা ও অন্যান্য চিটফান্ডের কালো টাকার সঙ্গে যে এই শাসকদল আষ্টেপৃষ্ঠে বাঁধা পড়ে গেছে তা জলের মতো পরিষ্কার হয়ে গেছে৷‌ তৃণমূলের সহসভাপতি, প্রাক্তন আমলা, যিনি এই মুহূর্তে সি বি আই হেফাজতে, তাঁর বাড়িতেই বৈঠক হয়েছে৷‌ বৈঠকে ছিলেন, দলের সর্বভারতীয় সম্পাদক, প্রাক্তন রেলমন্ত্রী মুকুল রায় ও সারদা কর্তা সুদীপ্ত সেন৷‌ সুদীপ্তের পালানোর ছকও ওখানে বসেই হয়েছিল৷‌ কোনও সম্পর্ক না থাকলে এমন ঘটবে কেন? তিনি বলেন, সবকিছু দেখে আমার মনে হয়েছে ক্ষমতায় আসার জন্য এবং ক্ষমতায় আসার পর সারদা নামক একটি কামধেনুকে দোহন করেছে এই তৃণমূল কংগ্রেস৷‌ ফলে, লাখ লাখ আমানতকারী আজ সব হারিয়ে রাস্তায় বসেছেন৷‌ শুধু কি অর্থ নয়ছয়, বাংলাদেশের একটি শক্তির মাধ্যমে অ্যাম্বুলেন্সে করে বস্তা বস্তা টাকা বিদেশে গেছে৷‌ এবং তা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসেরই এক সাংসদের মাধ্যমে৷‌ বিমান বসু বলেন, শোনা যাচ্ছে বাংলাদেশের ওই শক্তির স্বার্থ বজায় রাখতেই শেষ মুহূর্তে বাংলাদেশে শেখ হাসিনার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের বৈঠকে না যাওয়ার সিদ্ধাম্ত নেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ যেখানে তিস্তা চুক্তি ও ছিটমহলের দীর্ঘ সমস্যার সমাধান হওয়ার কথা ছিল৷‌ দেশ-বিরোধী শক্তিকে আরও শক্তিমান করতে সারদাকে ব্যবহার করা হয়েছিল৷‌ এ তো দেশ-বিরোধী ষড়যন্ত্র! এরা তো জনগণের শত্রু৷‌ সি বি আইয়ের উচিত দেশের স্বার্থে এই তথ্যকে তদম্তের মাধ্যমে আরও সম্প্রসারিত করা৷‌ স্বাধীন ভারতে চিটফান্ড নিয়ে এত বড় অর্থনৈতিক কেলেঙ্কারি কখনও হয়নি, যে কেলেঙ্কারির সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে তৃণমূল কংগ্রেস৷‌ এদিন বিমান বসু বলেন, রাত ১২টার পর উত্তরবঙ্গে ডেলো রিসর্টে মুখ্যমন্ত্রী শুধু সুদীপ্ত সেন নন, রোজভ্যালির কর্তার সঙ্গেও বৈঠক করেছেন৷‌ মুকুল রায় আর কুণাল ঘোষ সেখানে ছিলেন৷‌ বৈঠক চলে রাত দেড়টা পর্যম্ত৷‌ কোনও মুখ্যমন্ত্রী এত রাতে কেন বৈঠক করবেন? যাতে কাকপক্ষী টের না পায়! তার মানেই তো 'ডাল মে কুছ কালা হ্যায়!'অসৎ কাজ না করলে কেউ এত গোপনীয়তা রক্ষা করে? নিজেকে সততার প্রতীক বলে মুখ্যমন্ত্রী যত সব অসৎ কাজ করে চলেছেন৷‌ ফলে, রাজ্যে অসৎ কাজ আর মিথ্যে কথা বলার প্রতিযোগিতা শুরু হয়ে গেছে৷‌ এভাবে তো বেশিদিন চলতে পারে না! তাই আমরা রাস্তায় নেমে মানুষকে জানাবার পথ নিয়েছি৷‌ এদিন বিমান বসু প্রশ্ন তোলেন আদৌ সরকারটা চলছে? দিনের পর দিন ‌ট্যাক্সি চালকরা আন্দোলন করছেন, শহর অচল করে দিচ্ছেন, ধর্মঘট করছেন৷‌ সরকারের কোনও উদ্যোগ চোখে পড়েছে এই সমস্যা মেটানোর জন্য? সিঙ্গুরে যে তাপসী মালিকের মৃত্যুকে নিয়ে এত প্রচার করলেন, সেই তাপসীর বাবাও প্রতারিত সারদার কাছে৷‌ তাঁর ১ লক্ষ টাকা ফেরত পেতে জুতোর সুখতলা ক্ষয়ে গেছে৷‌ শ্যামল সেন কমিশন এক টাকাও ফেরাতে পারেনি৷‌ আর মুখ্যমন্ত্রী আমানতকারীদের টাকা ফেরত দেওয়া হয়েছে বলে গল্প শোনাচ্ছেন৷‌ তদম্তকারী সি বি আইয়ের কাছে আমাদের দাবি, অবিলম্বে শাসকদলের যোগসাজশে এই যে কোটি কোটি টাকা নয়ছয় হয়েছে তার যথাবিহিত সমাধান চাই৷‌ আমানতকারীদের টাকা ফেরত চাই৷‌ যারা যারা জড়িত ও টাকা নয়ছয় করেছে তাদের ধরে শাস্তি দিতে হবে৷‌ দরকারে তাদের সম্পত্তি উদ্ধার করে, বিক্রি করে আমানতকারীদের টাকা মেটাতে হবে৷‌ তিনি বলেন সি বি আইকে অবিলম্বে কার্যকরী ভূমিকা নিতে হবে৷‌ আইনমন্ত্রী আইন ভাঙছেন৷‌ সেটাও বন্ধ করতে হবে৷‌ এদিন বিমান বসু অন্য এক প্রশ্নে বলেন, নন্দীগ্রামে আন্দোলনের সময় মাওবাদী, চিটফান্ড, অন্যান্য সংগঠনের সঙ্গে তৃণমূলের জোট হয়েছিল৷‌ সোনাচূড়ায় যে বেআইনি জিনিসপত্র মজুত হয়েছিল ও ব্যবহার হয়েছিল তা সারদার কালো টাকায় কেনা হয়েছিল বলেই মনে হচ্ছে৷‌ নন্দীগ্রামের বহু আমানতকারী বার বার আবেদন-নিবেদন করেও শ্যামল সেন কমিশনের কাছে টাকা পাননি৷‌ তিনি বলেন, সি বি আইয়ের কাছে আমাদের আবেদন, যে সমস্ত মাওবাদী নেতা জেলে আছেন, তাদেরও জেরা করা হোক৷‌ যারা বন্ধু তৃণমূল সরকারের আনুকূল্যে আত্মসমর্পণ করে পুলিসি নিরাপত্তা নিয়ে দিব্যি ঘুরে বেড়াচ্ছেন তাদেরও জেরা করুক সি বি আই৷‌ সারদার নয়ছয় হওয়া টাকার বেশ কিছু হদিশ মিলবে৷‌


    আজকালের প্রতিবেদন: কলকাতা ও বহরমপুর, ১৩ সেপ্টেম্বর– সারদা-কাণ্ড নিয়ে পথে নামছে কংগ্রেস৷‌ অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার, ক্ষতিগ্রস্তদের টাকা ফেরত, সুষ্ঠুভাবে তদম্তের দাবিতে ১৯ সেপ্টেম্বর শহিদ মিনারে সভা করবে কংগ্রেস৷‌ দুপুর ১টায় সভা শুরু হবে৷‌ তার আগে ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে জেলায় জেলায় আন্দোলন, প্রতিবাদ সভা করবে কংগ্রেস৷‌ শনিবার বহরমপুরে এ কথা জানিয়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরি৷‌ তিনি এদিন অভিযোগ করে বলেন, বাংলাদেশের মৌলবাদী সংগঠন জামাত-ই-ইসলামির হাত শক্ত করতেই তৃণমূল সরকার তিস্তা চুক্তির বিরোধিতা করেছে৷‌ ওই চুক্তি না হওয়ার জন্য জামাতের বড় হাত রয়েছে৷‌ ছিটমহল বিনিময়েরও বিরোধিতা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷‌ বি জে পি রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা এদিন জানিয়েছেন, সারদা-কাণ্ডে জামাতের যোগ নিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি দিয়েছেন তিনি৷‌ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিংকে এই ঘটনা নিয়ে তদম্তের আবেদনও করেছেন তিনি৷‌ এদিকে, বাংলাদেশের জামাত-ই-ইসলামি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তৃণমূল কংগ্রেসের কোনও যোগ নেই৷‌ এক প্রেস বিবৃতিতে ওই সংগঠনের প্রচার সচিব তসনিম আলম বলেছেন, তৃণমূলের সঙ্গে তাঁদের সম্পর্ক তো নেই-ই, এমনকি ওই দলের সাংসদ আহমদ হাসান ইমরানের কাছ থেকে টাকা নেওয়ারও প্রশ্ন ওঠে না৷‌ অন্যদিকে, তৃণমূল সাংসদ আহমদ হাসান ইমরানের সঙ্গে তাদের যোগাযোগের খবর ভিত্তিহীন বলে জানিয়েছে স্টুডেন্টস অর্গানাইজেশন অফ ইন্ডিয়া৷‌


    আজকালের প্রতিবেদন: কেন্দ্রের নতুন বি জে পি সরকার আগুন নিয়ে খেলা করছে৷‌ রেগা কর্মসূচি সঙ্কোচন করার চেষ্টা হলে দেশে আগুন জ্বলবে৷‌ তেলিয়ামুড়ার সমাবেশে এই হুঁশিয়ারি দিলেন সি পি এম পলিটব্যুরো সদস্য মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার৷‌ গণতন্ত্র ও সমৃদ্ধ ত্রিপুরা গড়ার শক্তি সংহত করা এবং সারা দেশে দলিতদের অধিকার প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার সংগ্রাম মজবুত করার স্লোগান সামনে রেখে শনিবার শুরু হল ত্রিপুরা তফসিলি জাতি সমন্বয় সমিতির অষ্টম রাজ্য সম্মেলন৷‌ তেলিয়ামুড়ার চিত্রাঙ্গদা কলাকেন্দ্রে এই সম্মেলনকে সামনে রেখে টাউন হলের সামনে হয় ভিড় উপচে পড়া সমাবেশ৷‌ সি পি এম পলিটব্যুরো সদস্য মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার এই সমাবেশে 'আচ্ছে দিন'-এর নামে কেন্দ্রের ক্ষমতায় বসা প্রবঞ্চক বি জে পি, সম্রাসবাদীদের সুযোগ এবং রাজ্যভাগের ষড়যন্ত্রকারী আই পি এফ টি-আই এন পি টি সম্পর্কে সতর্ক করেন৷‌ তুলে ধরেন জনবর্জিত দুর্নীতিগ্রস্ত কংগ্রেস দেশের মানুষের কী সর্বনাশ করেছে৷‌ মুখ্যমন্ত্রী ছাড়াও দেশের জটিল রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরে সমাবেশে বক্তব্য পেশ করেন তফসিলি জাতি উন্নয়ন দপ্তরের মন্ত্রী রতন ভৌমিক, সাংসদ ঝর্না দাস, সমবায়মন্ত্রী খগেন্দ্র জমাতিয়া, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক বিধায়ক সুধন দাস৷‌ সি পি এম নেতা বিধানসভার মুখ্য সচেতক সমীর দেব সরকার, সুধীর সরকার-সহ বিভাগীয় নেতৃত্ব ছিলেন৷‌ বড়মুড়া থেকে আঠারমুড়া রাজ্য সম্মেলনে সামনে রেখে গোটা তেলিয়ামুড়া শহর সাজিয়ে তোলা হয়৷‌ জননেতা বৈদ্যনাথ মজুমদারের নামাঙ্কিত নগরে এদিন দুপুর ১টা থেকেই তেলিয়ামুড়ার বিভিন্ন জায়গার সংগঠনের কর্মী-সমর্থকরা লাল পতাকা, ফ্ল্যাগ ও ব্যানার নিয়ে মিছিল করে এসে পৌঁছতে থাকে তেলিয়ামুড়া টাউন হল প্রাঙ্গণে৷‌ এখানে তফসিলি জাতি সংগঠনের রাজ্যনেতা বিধুভূষণ মালাকারকে সভাপতি করে শুরু হয় প্রকাশ্য সমাবেশের কাজ৷‌ সমাবেশে প্রধান বক্তার ভাষণে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, আকাশছোঁয়া দ্রব্যমূল্য সাধারণ মানুষকে শোষণ করে পুঁজিপতিদের তোষামোদ করা, সঙ্গে দুর্নীতির জন্য মানুষ কংগ্রেসকে ছুঁড়ে ফেলে দিয়েছে৷‌ একই নীতি নিয়ে নতুন ভারত গড়ার স্বপ্ন দেখিয়ে ক্ষমতায় বসেছে বি জে পি৷‌ কট্টর হিন্দুত্ববাদী আর এস এস পরিচালিত বি জে পি ক্ষমতায় বসেই ধর্ম-বর্ণের নামে দেশভাগের চেষ্টা করছে৷‌ জনগণকে বোকা বানিয়ে ক্ষমতায় বসা বি জে পি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম কমানোর উদ্যোগ নেয়নি৷‌ বৃদ্ধি করা হয়েছে পেট্রল, ডিজেলের দম৷‌ মুখ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বি জে পি সরকারের ১০০ দিন হল৷‌ ক্ষমতায় বসার পর পেট্রল, ডিজেলের দাম থেকে রেলভাড়া বৃদ্ধি করে জনগণের ওপর একের পর এক বোঝা কীভাবে চাপাচ্ছে, তা তুলে ধরেন৷‌ অসংখ্য দুর্নীতির কড়া সমালোচনা করেন৷‌ তিনি বলেন, আমাদের রাজ্যে ৫৮টি ব্লকের মধ্যে ১৫টি ব্লকে রেগার কাজ চলবে৷‌ বাকি ব্লকে রেগার কাজ চলবে না৷‌ আমরা প্রতিবাদ করছি৷‌ আমরা বলছি, আগুন নিয়ে খেলার চেষ্টা করবেন না৷‌ এই আগুন যদি জ্বালানোর চেষ্টা করেন৷‌ এই আগুন হনুমানের আগুনের মতো লঙ্কা যেমন ছাড়খাড় হয়েছে, এই বি জে পি সরকার পরিস্হিতি সেরকম হবে৷‌ সেই হুঁশিয়ারি দিচ্ছি৷‌ একইসঙ্গে কট্টর হিন্দুত্ববাদী এই দল ভারতের জাতীয় সংহতি বিনষ্ট করার চেষ্টা করছে৷‌ এই লোকসভা নির্বাচনের পর মোদি সরকার শপথ নেওয়ার পর ১০০ দিনের মধ্যে প্রায় ৩৫-৩৭টি দাঙ্গা সংগঠিত হয়েছে ভারর্তে৷‌ তিনি আরও বলেন, গরিবের ভোটে জয়ী হয়ে ধনীদের স্বার্থে রাস্তা করছে বি জে পি-র সরকার৷‌ আই পি এফ টি পৃথক তিপ্রাল্যান্ড গঠনের নামে রাজ্যের শাম্তি-সম্প্রীতি নষ্টের চেষ্টা করছে জনগণকে চোখ-কান খোলা রাখতে সতর্ক করেন৷‌ সন্ত্রাসবাদ মোকাবিলা করে সুসমৃদ্ধ ত্রিপুরার উন্নয়নকে এগিয়ে নিতে তফসিলি জাতি মানুষের প্রতি আহ্বান রাখেন৷‌ এছাড়া সমাবেশে আলোচনা করেন মন্ত্রী রতন ভৌমিক, তফসিলি সংগঠনের রাজ্য সম্পাদক সুধন দাস, রাজ্যসভার সাংসদ ঝর্না দাস বৈদ্য প্রমুখ৷‌ রাজ্যের ২৩টি বিভাগ থেকে মোট ৭১০ জন প্রতিনিধি সম্মেলনে অংশগ্রহণ করছেন৷‌ সম্মেলনে আম্তর্জাতিক জাতীয় এবং রাজ্যের বর্তমান রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং সামাজিক প্রেক্ষাপট নিয়ে আলোচনা হবে৷‌ আলোচনা হবে সংগঠনের বিগত দিনের সফলতা-দুর্বলতাও৷‌ গৃহীত হবে আগামী দিনের কর্মসূচি৷‌ সম্মেলন চলবে তিনদিনব্যাপী৷‌


    আজকালের প্রতিবেদন: পশ্চিমবঙ্গে যে কারণে বিপর্যয় তা তুলে ধরেই ত্রিপুরার বাম শিক্ষক-কর্মচারী আন্দোলনের নেতা-কর্মীদের সতর্ক করলেন প্রাক্তন সাংসদ সুকোমল সেন৷‌ শনিবার সারা ভারত সরকারি কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সভা শেষ হয় আগরতলায়৷‌ এরপর রবীন্দ্র শতবার্ষিকী ভবনের সামনে হয় বাম কর্মচারী সমাবেশ৷‌ এখানে বক্তব্য পেশ করতে গিয়ে সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি সুকোমল সেন পশ্চিমবঙ্গের বিপর্যয়ের কারণ তুলে সতর্ক করেন৷‌ তাঁর অভিযোগ পশ্চিমবঙ্গে এখন দুর্বৃত্তরাজ চলছে৷‌ ছাত্রী অবস্হায় পরীক্ষায় নকল করা থেকে দুর্বৃত্তায়ন যে করেছেন তিনি এখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী৷‌ সারদা থেকে লুট করা আড়াই হাজার কোটি টাকা, গুন্ডা বাহিনী কাজে লাগিয়ে পুলিসকে দর্শক বানিয়ে দুর্বৃত্তায়ন চলছে৷‌ প্রাক্তন সাংসদ প্রবীণ বাম নেতা সুকোমল সেন বলেন, জনগণকে রাজনৈতিক সচেতন করা যায়নি বলেন পশ্চিমবঙ্গের ৩৪ বছরের বামফ্রন্ট সরকারের পর দুর্বৃত্তের সরকার এসেছে৷‌ তিনি শিক্ষক-কর্মচারীদের উদ্দেশে বলেন, শুধু কর্মসূচি গ্রহণ করলে হয় না৷‌ কর্মসূচি সম্পর্কে সচেতন ধারণা জন্ম দিতে হবে৷‌ কত টাকা ছেলের লেখাপড়ায় খরচ করলাম৷‌ কত ভাল জায়গায় মেয়ের বিয়ে ছিলাম৷‌ কত বড় বাড়ি বানালাম এই সব হিসেব-নিকেশ মাথায় থাকলে মূল লক্ষ্যে যাওয়া যাবে না৷‌ মেয়ের বিয়েতে পণ অন্য জাতে বিয়ে সমাজসংস্কারমূলক এই কাজগুলোকে গুরুত্ব না দিয়ে শ্রেণীহীন সমাজ ব্যবস্হা হবে না৷‌ সারা ভারত রাজ্য সরকারি কর্মচারী ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অজয় মুখার্জিও এই বিষয়গুলো তুলে ধরেন৷‌ টি ই সি সি (এইচ বি রোড)-এর চেয়ারম্যান সুভাষচন্দ্র সাহা, সাধারণ সম্পাদক অসীম পাল-সহ হরিয়ানা, বিহার, উত্তরপ্রদেশের কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা বিশাল এই কর্মচারী সমাবেশে বক্তব্য পেশ করেন৷‌ কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদি সরকারের তিন মাসের কাজে দেশের সাধারণ মানুষের কোনও উপকার হয়নি বলে মম্তব্য করেন প্রায় সব বক্তাই৷‌ শ্রম আইন সংশোধন করার উদ্যোগ নিয়ে এই সরকার প্রকৃতপক্ষে বৈদেশিক পুঁজিকে সুবিধা করে দিতে চাইছে বলে দাবি ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব৷‌ ব্যাঙ্ক, বিমা বেসরকারীকরণ, দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, রেগা প্রকল্পের সঙ্কোচন-সহ কেন্দ্রের জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে জোর লড়াই করার ডাক দেওয়া হয় সমাবেশ থেকে৷‌ ত্রিপুরার বামফ্রন্ট সরকারের বিকল্প কর্মসূচি তুলে ধরে মানিক সরকারের নেতৃত্বে চলা রাজ্য সরকারের প্রশংসা করা হয়৷‌ রত্না সরকার, মহুয়া রায়-সহ রাজ্যের শীর্ষ কর্মচারী নেতৃত্বে ছিলেন৷‌


    শ্রীনগর, ১৩ সেপ্টেম্বর (পি টি আই)– বন্যা তিক্ততা ভুলিয়ে দিল এন সি এবং পি ডি পি-র মধ্যে৷‌ মিলিয়ে দিল বি জে পি আর কংগ্রেসকে৷‌ রাজনৈতিক মতভেদ সরিয়ে রেখে শনিবার শ্রীনগরে সর্বদলীয় বৈঠক থেকে দুর্গত মানুষকে সর্বতোভাবে সাহায্য করার ডাক দেওয়া হল৷‌ পি ডি পি নেত্রী মেহবুবা মুফতি, কংগ্রেস নেতা সইফুদ্দিন সোজ এবং বি জে পি নেতা যুগল কিশোর জম্মু ও কাশ্মীরের মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লার সঙ্গে একযোগে উদ্ধার কাজে অনবদ্য উদ্যোগ নেওয়ার জন্য ধন্যবাদ দিলেন সেনাকে, দুঃখপ্রকাশ করলেন জীবনহানিতে৷‌ রাজ্যের বিধায়ক, সাংসদদের এলাকা উন্নয়ন তহবিলের একাংশ পুনর্গঠনের কাজে দেওয়ার প্রস্তাবও এল সর্বদল বৈঠক থেকেই৷‌ বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রী বললেন, এন সি এবং পি ডি পি যদি একসঙ্গে বসে কথা বলতে পারে, কংগ্রেস আর বি জে পি যদি আলোচনা চালাতে পারে, তা হলে আর সব মানুষও এই দুর্যোগে হাতে হাত মিলিয়ে কাজ করতে পারবেন৷‌ তবে অন্য জায়গায় কমলেও উত্তর কাশ্মীরে বন্যার জল বাড়ায় কিছুটা চিম্তিত তিনি৷‌ এই বন্যার জন্য বছরের শেষে বিধানসভা নির্বাচনে আপনার সুবিধা হবে না অসুবিধা? কী ভাবছেন নির্বাচন নিয়ে? সাংবাদিকেরা প্রশ্ন করাতে সঙ্গে সঙ্গে উত্তর দিলেন, নির্বাচন নিয়ে ভাবার এখন কোনও সময় নেই৷‌ শ্রীনগরে সর্বদল বৈঠকের পাশাপাশি রাজ্যের মন্ত্রিসভার প্রতিনিধিদল এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে দেখা করে৷‌ এই বন্যাকে জাতীয় বিপর্যয় বলে ঘোষণা করার দাবি জানিয়েছেন তাঁরা৷‌ সব গৃহহারা মানুষকে অবিলম্বে প্রাথমিকভাবে ৫ লাখ টাকা করে সাহায্য করার দাবিও জানান মন্ত্রীরা৷‌ প্রধানমন্ত্রী নিজেই রাজ্যের বন্যা পরিদর্শন করার পর বলেছিলেন, এটা প্রায় জাতীয় বিপর্যয়৷‌ তবে জাতীয় বিপর্যয় ঘোষণার নির্দিষ্ট কিছু নিয়মনীতি না থাকায় এ নিয়ে কী করা হবে সেটা নিশ্চিত নয়৷‌ পাশাপাশি যোগাযোগ মন্ত্রী রবি শঙ্কর প্রসাদ ঘোষণা করেছেন, বি এস এন এল এক সপ্তাহ ধরে বিনামূল্যে পরিষেবা দেবে৷‌ রাজ্যসভার সি পি এম সাংসদ সীতরাম ইয়েচুরি রাজ্যের বাইরের সাংসদদেরও এই দুর্যোগে উন্নয়ন তহবিলের অর্থ দান করার সুযোগ করে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছেন রাজ্যসভার চেয়ারম্যান হামিদ আনসারির কাছে৷‌


    এদিকে, এখনও পর্যম্ত প্রায় দেড় লাখ মানুষকে উদ্ধার করেছেন সেনা এবং জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর জওয়ানরা৷‌ সাহায্যের অপেক্ষায় প্রায় সম সংখ্যক মানুষ৷‌ ভোর চারটে থেকে রাত ১২টা পর্যম্ত চলছে উদ্ধার কাজ৷‌ রাত ১২টা থেকে ভোর ৪টে পর্যম্ত নৌকা এবং হেলিকপ্টারগুলো মেরামত করা হচ্ছে৷‌ তারপরে ফের ভোর ৪ থেকে উদ্ধার কাজে ঝাঁপিয়ে পড়ছেন সেনারা৷‌ এখন জোর দেওয়া হচ্ছে জল শোধনের ট্যাবলেট বিলিতে, ছোট জল শোধনের প্ল্যান্ট বসানো, যোগাযোগ ব্যবস্হার উন্নতিতে টাওযার মেরামতি এবং বিদ্যুৎ সমস্যা মেটাতে ৩ থেকে ৫ কে ভি এ-র জেনারেটর বসানোর ওপর৷‌ এত কিছু করেও কিন্তু সেনার জিপ এবং হেলিকপ্টারের ওপর পাথর ছোঁড়া থামছে না৷‌ মাঝে-মধ্যেই এমন ঘটনা ঘটছে৷‌ নিচু দিয়ে উড়ে যাওয়া একটি হেলিকপ্টারের এতে অল্প ক্ষতিও হয়েছে৷‌ সেনারা অবশ্য দমে যেতে রাজি নন৷‌ বলছেন, বিচ্ছিন্নতাবাদীরা অনেক জায়গায় মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছেন বলেই এমন কাণ্ড ঘটছে৷‌ তবে মুখ্যমন্ত্রী আবদুল্লা নিন্দা করে বলেছেন, বন্যার ঘোলা জলে মাছ ধরতে চাইছে কিছু বিভেদকামী শক্তি৷‌ এখনই এ সব করতে হচ্ছে? ত্রাণ আর উদ্ধার কাজে বাধা দিতে হচ্ছে? পরেও তো অনেক সময় পাবেন ওরা! বিশ্বে সব থেকে বেশি সামরিকীকরণ হওয়া এই উপত্যকায় পরে কী হতে চলেছে তা নিয়ে চিম্তিত সেনাবাহিনীর কিছু কর্তাও৷‌ কারণ শ'য়ে শ'য়ে এ কে, ইনসাস, এবং এস এল আর রাইফেল জলের নিচে৷‌ বেশ কিছু রাইফেল নাকি জলে ভেসে গেছে৷‌ ভিজে জবজবে হ্যান্ড গ্রেনেড এবং বিস্ফোরকও৷‌ সব কিছু ব্যারাকে ফেলে কোনওরকমে প্রাণ হাতে নিয়ে পালিয়ে বেঁচ্ছেেন জওয়ানেরা৷‌ এইসব রাইফেল এবং তাদের কার্তুজ পরে অয়েলিং এবং সার্ভিসিং করালে ফের ব্যবহার করা যেতে পারে বটে৷‌ কিন্তু গ্রেনেড বা বিস্ফোরকের ক্ষেত্রে তা হবে না৷‌ উগ্রপম্হীরা এর সুযোগ নেবে না তো? চিম্তায় সেনাকর্তারা৷‌


    সেনাবাহিনীর পাশাপাশি বিধ্বংসী এই বন্যায় উদ্ধার কাজে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়া৷‌ আজ থেকে ২০ বছর আগে প্রথম যখন এদেশে এই মিডিয়া চালু হয় তখন বেজিং, মস্কোর পাশাপাশি দিল্লিও সন্দেহের চোখে দেখেছিল একে৷‌ বলেছিল, এতে সরকারের কর্তৃত্ব ক্ষুন্ন হবে৷‌ আজকে কিন্তু সোশ্যাল মিডিয়া সম্পর্কে ধারণাটাই অনেক বদলে গেছে৷‌ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি নিজে সাধারণ মিডিয়াকে পাশে সরিয়ে রেখে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যোগাযোগ রক্ষার ওপর জোর দিচ্ছেন৷‌ কারণ এতে জনগণের মত খুব দ্রুত এবং সরাসরি পাওয়া যায়৷‌ এই ব্যাপারটা নীতি নির্ধারণ এবং দ্রুত কাজ পরিচালনার ক্ষেত্রে কতটা গুরুত্বপূর্ণ তার প্রমাণ মিলল কাশ্মীরের বন্যা থেকে৷‌ সাধারণ টেলিফোন, মোবাইল এবং ইন্টারনেট পরিষেবা স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল৷‌ কিন্তু অনেকটাই উপগ্রহ নির্ভর হওয়ায় চালু ছিল মোবাইলে ৩-জি ইন্টারনেট পরিষেবা৷‌ হাজার হাজার দুর্গত মানুষ টুইটার, ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা পাঠিয়েছেন৷‌ তা থেকে প্রায় ১২,০০০ মানুষকে উদ্ধার করতে সমর্থ হয়েছে সেনাবাহিনী৷‌


    আজকালের প্রতিবেদন: দিল্লি, ১৩ সেপ্টেম্বর– উত্তরপ্রদেশের মৈনপুরী, গুজরাটের বরোদা ও তেলেঙ্গানার মেডাক– এই ৩ লোকসভা আসন ও ১০ রাজ্যে ৩৩টি বিধানসভা আসনে আজ উপনির্বাচন হল মোটামুটি নির্বিঘ্নেই৷‌ শুধু মাওবাদী উপদ্রুত ছত্তিশগড়ের অম্তগড় বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন চলার সময় দুপুরে ওই এলাকার এদেঙ্গা গ্রামের কাছে আমাবেদা জঙ্গলে টহলদার পুলিস-কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদের ওপর হামলার চেষ্টা করে সশস্ত্র মাওবাদীদের একটি দল৷‌ তারা বিস্ফোরণ ঘটায়, ঝাঁক ঝাঁক গুলি চালায়৷‌ সঙঘর্ষ বেধে যায়৷‌ জওয়ানরা ওই অঞ্চল ঘিরে ফেললে মাওবাদীরা গভীর জঙ্গলের ভেতর পালায়৷‌ কেউ হতাহত হননি৷‌ ভোটেরও কোনও ক্ষতি হয়নি৷‌ শুধু এই এলাকার কয়েকটি বুথে বেলা ১টা নাগাদ এ ঘটনায় কিছুক্ষণের জন্য ভোট থমকে গিয়েছিল৷‌ দিনের শেষে অম্তগড়ে ভোট পড়েছে ৫০ শতাংশ৷‌ এই বিধানসভা কেন্দ্রটির ২০২টি বুথের ১৯০টি বুথই ছিল মাওবাদী উপদ্রবের কারণে অতি স্পর্শকাতর৷‌ নির্বিঘ্নে ভোট করানোর জন্য দেড় লক্ষ ভোটারের এই বিধানসভা আসনে ছিল রাজ্য পুলিস ও কেন্দ্রীয় বাহিনীগুলির ১০ হাজার নিরাপত্তা কর্মীর পাহারা৷‌ এ ছাড়া তেলেঙ্গানার মেডাক লোকসভা কেন্দ্রের গঙ্গাপুরের ভোটাররা তাঁদের গ্রামে বুথ না হওয়ার ক্ষোভে ভোট বয়কট করেছেন৷‌ এই লোকসভা কেন্দ্রের পেড্ডাপুরে গ্রামের বেহাল রাস্তাঘাট সারানোর দাবিতে গ্রামবাসীরা ভোট দিতে যাননি৷‌ পশ্চিমবঙ্গের চৌরঙ্গি বিধানসভা কেন্দ্রে খুচরো সঙঘর্ষের ঘটনা ঘটলেও ভোট নির্বিঘ্নে হয়েছে চৌরঙ্গি ও বসিরহাট (দক্ষিণ) বিধানসভা কেন্দ্রে৷‌ মে মাসে নিরঙ্কুশ গরিষ্ঠতার বিপুল জয়ে ক্ষমতায় মোদি সরকার আসার পর গত মাসে প্রথম পরীক্ষায় বি জে পি ডাহা ফেল করে বিহার-সহ ৪ রাজ্যে ১৮ বিধানসভা আসনের উপনির্বাচনে মাত্র ৭টিতে জিতে৷‌ বিহারে কংগ্রেস, নীতীশ, লালুর মহাজোটের ধাক্কায় ১০ বিধানসভা আসনের মাত্র ৪টিতে জেতে বি জে পি৷‌ আজকের উপনির্বাচন সবে ১০০ দিন উত্তীর্ণ মোদি সরকারের দ্বিতীয় পরীক্ষা৷‌ আজ যে ৩ লোকসভা আসনে ও ৩৩ বিধানসভা আসনের ভোট হল, তার ফল গণনা হবে ১৬ সেপ্টেম্বর৷‌ আজ যে আসনগুলিতে ভোট হল, তার মধ্যে গুজরাটের বরোদা আসনটি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ছেড়ে দিয়েছেন বারাণসীতে সাংসদ হওয়ায়৷‌ উত্তরপ্রদেশের মৈনপুরী লোকসভা আসনটিতে ভোট হল সমাজবাদী পার্টি নেতা মুলায়ম সিং যাদব আজমগড় আসনে জিতে মৈনপুরী ছেড়ে দেওয়ায়৷‌ তেলেঙ্গানার মেডাক লোকসভা কেন্দ্রে আজ পুনর্নির্বাচন হল চন্দ্রশেখর রাও তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী হয়ে এই লোকসভা কেন্দ্রটি ছেড়ে দেওয়ায়৷‌ মেডাকে ভোট পড়েছে ৬৫ শতাংশ৷‌ উত্তরপ্রদেশের ১১ বিধানসভা আসন-সহ ১০ রাজ্যে যে ৩৩ বিধানসভা আসনে আজ ফের নির্বাচন হল, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই জয়ী বিধায়করা গত লোকসভা নির্বাচনে দাঁড়িয়ে জিতে যাওয়ায় বিধানসভা আসনগুলি ছেড়ে দেওয়ায়৷‌ এই উপনির্বাচনে খুবই নজর করার উত্তরপ্রদেশের এই ১১ বিধানসভা কেন্দ্র৷‌ লোকসভা নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশের ৮০ লোকসভা কেন্দ্রের ৭১টিতেই জিতেছে বি জে পি৷‌ সঙ্গী আপনা দলও জিতেছে ২টিতে৷‌ বিধানসভা কেন্দ্রগুলির কী ফল হয় তা দেখতে উদগ্রীব সব দলই৷‌ প্রতিটি কেন্দ্রেই লড়াই মূলত ত্রিমুখী বি জে পি, কংগ্রেস, সমাজবাদী পার্টি৷‌ বহুজন সমাজ পার্টি নেত্রী মায়াবতী জানিয়ে দিয়েছিলেন তাঁর দল উপনির্বাচনে নীতিগতভাবে লড়েনি৷‌ দিনের শেষে উত্তরপ্রদেশে ভোট পড়েছে ৫২ শতাংশ৷‌ উপনির্বাচন হয়েছে গুজরাটে ৯ বিধানসভা কেন্দ্রে, রাজস্হানে ৪টি বিধানসভা কেন্দ্রে, পশ্চিমবঙ্গে ২টি বিধানসভা কেন্দ্রে, আসামে শিলচর-সহ ৩টি বিধানসভা কেন্দ্রে, ত্রিপুরায় ১টি বিধানসভা কেন্দ্রে, অন্ধ্রে ১টি বিধানসভা কেন্দ্রে ও সিকিমে ১টি বিধানসভা কেন্দ্রে৷‌ রাজস্হানে ভোট পড়েছে ৬৬ শতাংশ, আসামে ৭০ শতাংশ৷‌ সবচেয়ে বেশি ভোট পড়েছে ত্রিপুরার সংরক্ষিত মনু বিধানসভা আসনে ৮৭ শতাংশ৷‌


    এবার ব্রিটিশ কর্মীর শিরচ্ছেদ

    ভিডিও প্রকাশ আইসিসের ॥ ঘাতককে বিচারের মুখোমুখি করতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ক্যামেরন

    জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট অব ইরাক এ্যান্ড সিরিয়া (আইসিস) শনিবার তৃতীয় বিদেশী বন্দী ব্রিটিশ ত্রাণকর্মী ডেভিড ক্যাথর্ন হেইন্সের শিরñেদের ভিডিও প্রকাশ করেছে। এই ভিডিওতে আরেক ব্রিটিশ বন্দীকেও শিরñেদের হুমকি দেয়া হয়। এই হত্যাকাণ্ড ব্রিটেনের প্রতি আইসিসের একটি পরিষ্কার বার্তা। এই ইসলামী এই জঙ্গী সংগঠনের বিরুদ্ধে লড়তে দেশটি তার প্রধান মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আন্তর্জাতিক জোট গঠন করেছে। ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এই হত্যাকাণ্ডকে চরম নৃশংসতা বলে এর তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। খবর নিউইয়র্ক টাইমস, গার্ডিয়ান ও বিবিসি অনলাইনের।

    ৪৪ বছর বয়সী এই ব্রিটিশ ত্রাণকর্মীকে হত্যার আগে তাকে তার মৃত্যুর জন্য তার দেশের নেতারা দায়ী লেখা স্ক্রিপ্ট পড়তে বাধ্য করে এক আইসিস জঙ্গী। তিনি ভিডিওতে বলেন, আমি ঘোষণা করতে চাই আমার মৃত্যুর জন্য ডেভিড ক্যামেরন সম্পূর্ণ দায়ী। আইসিসের বিরুদ্ধে লড়তে আপনি স্বেচ্ছায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জোটে যোগ দিয়েছেন। দুর্ভাগ্যবশত আমরা ব্রিটিশ জনগণ, আমাদের পার্লামেন্টের স্বার্থপর সিদ্ধান্তের কারণে শেষ পর্যন্ত আমাদেরই মাসুল দিতে হবে। ভিডিওর শেষে কালো মুখোশ পরা আইসিস জঙ্গী ব্রিটিশ উচ্চারণে ইংরেজীতে এলান হেইনিং নামে আরেক ব্রিটিশকে হত্যার হুমকি দিয়েছে। মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সাইট ইন্টেলিজেন্ট বলেছে, এই ঘাতকই মার্কিন দুই সাংবাদিককে হত্যা করেছিল বলে মনে করা হচ্ছে। স্কটল্যান্ডে জন্ম নেয়া হেইন্সকে সিরিয়া থেকে ২০১৩ সালের মার্চ মাসে অপহরণ করা হয়। তিনি একটি আন্তর্জাতিক ত্রাণসহায়তাকারী প্রতিষ্ঠানে কাজ করতেন। 'যুক্তরাষ্ট্রের মিত্রদের প্রতি বার্তা'শিরোনামের ওই ভিডিওটির সময়কাল ছিল ২ মিনিট ২৭ সেকেন্ড। ২ সেপ্টেম্বর মার্কিন সাংবাদিক স্টিভেন সটলফের শিরচ্ছেদ করার পর প্রকাশিত ভিডিওতে হেইন্সকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছিল। এর আগে ১৯ আগস্ট প্রথম মার্কিন সাংবাদিক জেমস ফলির শিরচ্ছেদের ভিডিও প্রকাশ হয়। আইসিসের ওপর মার্কিন হামলা বন্ধ না হলে সটলফেকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছিল ওই ভিডিওতে। শুক্রবারই অপহরণকারীদের উদ্দেশে হেইন্সের পরিবার আবেদন জানিয়েছিল তাদের সঙ্গে যেন সরাসরি যোগাযোগ করা হয়। কিন্তু এর কয়েক ঘণ্টা পরেই হত্যাকাণ্ডটি ঘটেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। আইসিসের বিরুদ্ধে আমেরিকান হামলায় সহযোগিতা আর কুর্দিযোদ্ধাদের সহায়তা করার জবাবে এই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করা হচ্ছে বলে এক শিরচ্ছেদকারী ভিডিওতে বক্তব্য দিয়েছেন। তিনি ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে বলেছেন, আমাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে আপনি স্বেচ্ছায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে জোট বেঁধেছেন। আপনার পূর্বসূরি টনি ব্লেয়ারও এমনটা করেছিলেন। যুক্তরাষ্ট্রকে 'না'বলার সাহস ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীদের নেই। ক্যামেরন, আপনি ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়তে পেশমার্গকে অস্ত্র সরবরাহের যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তার মাসুল দিতে হবে এই ব্রিটিশকে। পরিহাসের বিষয় হলো, এই ব্যক্তি তার চাকরি জীবনের এক দশক ব্যয় করেছেন রয়্যাল এয়ার ফোর্সে। আর রয়্যাল এয়ার ফোর্সই কুর্দিদের কাছে অস্ত্র সরবরাহের জন্য দায়ী।

    এই হত্যাকাণ্ডের নিন্দা জানিয়ে ক্যামেরন বলেছেন, যত সময়ই প্রয়োজন হোক না কেন, হত্যাকারীকে অবশ্যই বিচারের মুখোমুখি করা হবে। নির্দোষ এই ত্রাণকর্মীকে হত্যাকরা ঘৃণ্য ও জঘন্য কাজ। আমার হৃদয় ডেভিড হেইন্সের পরিবারকে স্পর্শ করছে। যারা এমন কঠিন সময়েও অসাধারণ সাহস দেখিয়েছেন ও ধৈর্য ধারণ করেছেন। ব্রিটিশ পররাষ্ট্র দফতর জানিয়েছে যে, তারা ওই ভিডিওটির সত্যতা যাচাইয়ের কাজ করছেন।



    অনিশ্চয়তার দোলাচলে যুক্তরাজ্যের ভবিষ্যত

    স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতার পক্ষে-বিপক্ষে সহস্র লোকের মিছিল

    স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতা প্রশ্নে এক ঐতিহাসিক গণভোটের চার দিন আগে যুক্তরাজ্যের ভাষ্য অস্পষ্ট হয়ে রয়েছে। কারণ তিনটি নতুন জরিপে ইউনিয়নের সমর্থকরা জনসমর্থনের দিক দিয়ে সামান্য ব্যবধানে এগিয়ে আছেন বলে দেখা যায়, কিন্তু একটিতে বিচ্ছিন্নতাবাদী শিবির এগিয়ে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করা হয়। প্রচার অভিযানের শেষ সপ্তাহান্তে উভয় পক্ষের হাজার হাজার সমর্থক স্কটল্যান্ডের রাজধানী এডিনবরা ও সবচেয়ে বড় শহর গ্রাসগোর রাস্তায় নেমে আসে। প্রতিদ্বন্দ্বী নেতারা এখনও সিদ্ধান্ত নেননি এমন ভোটারদের সপক্ষে টানতে দেশজুড়ে জোর চেষ্টা চালাচ্ছেন। খবর ইয়াহুনিউজ, এএফপি ও বিবিসি অনলাইনের।

    গণভোটে কেবল স্কটল্যান্ডের ভবিষ্যতই নয়, যুক্তরাজ্যের ভাগ্যও নির্ধারিত হবে। ৩০৭ বছর আগে স্কটল্যান্ড ইংল্যান্ডের সঙ্গে ইউনিয়নভুক্ত হওয়ার ফলে যুক্তরাজ্যে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। রবিবার প্রকাশিত চারটি জনমত জরিপে ইউনিয়নিস্টরা শতকরা ২ থেকে ৮ পয়েন্টে এগিয়ে আছেন বলে দেখা যায় আর ইন্টারনেটযুগে পরিচালিত আইসিএমের এক জরিপে দেখানো হয় যে, স্বাধীনতার সমর্থকরা শতকরা ৫৪ ভাগ ভোট এবং ইউনিয়নিস্টরা শতকরা ৪৬ ভাগ ভোট পেতে যাচ্ছেন। সেপ্টেম্বরের আগপর্যন্ত ২০১৩ সালের পরিচালিত একটি জরিপ ছাড়া অন্য সব জরিপেই ইউনিয়নিস্টরা সহজেই জয়ী হতে পারেন বলে দেখানো হয়।

    কিন্তু চলতি মাসে পরিচালিত কয়েকটি জরিপে বলা হয়, জাতীয়তাবাদীরা স্কটল্যান্ডের ৪০ লাখ ভোটারের মধ্যে কয়েক লাখ ভোটারের মন জয় করেছেন। স্কটল্যান্ডের স্বাধীনতা প্রশ্নে বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠেয় গণভোটকে কেন্দ্র করে প্রচার অভিযানের চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছেছে।

    আইসিসের বিরুদ্ধে লড়তে আমিরাতে ৬শ'সেনা পাঠাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া

    জঙ্গী সংগঠন ইসলামিক স্টেট অব ইরাক এ্যান্ড সিরিয়ার (আইসিস) বিরুদ্ধে চলমান লড়াই জোরদার করতে মার্কিন নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক জোটে যোগ দিতে সংযুক্ত আরব আমিরাতে ছয় শ'সেনা পাঠাচ্ছে অস্টেলিয়া। দেশটির প্রধানমন্ত্রী টনি এ্যাবোট রবিবার এ কথা বলেছেন। খবর এএফপি ও বিবিসি অনলাইনের।

    এই আন্তর্জাতিক জোটে ১০টি আরব দেশসহ প্রায় ৪০টি দেশ এতে যোগ দিয়েছে। ফ্রান্স সোমবার আঞ্চলিক নিরাপত্তাবিষয়ক একটি সম্মেলনের আয়োজন করেছে। এতে যোগ দিতে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি চার দিনের মধ্যপ্রাচ্য সফর শেষে শনিবার রাতে প্যারিস পৌঁছেছেন। গত সপ্তাহে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ইরাক ও সিরিয়ায় এই জিহাদী সংগঠনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের একটি পরিকল্পনা তুলে ধরেন। এ্যাবোট বলেন, ইরাক পরিষ্কার করে জানিয়েছে তারা দেশের নিরাপত্তা পুনরুদ্ধারে সামরিক সাহায্যকে স্বাগত জানাবে।

    আইএস মোকাবেলায় মহাজোট

    যুগান্তর ডেস্ক

    প্রকাশ : ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৪

    ইসলামিক স্টেট (আইএস) হুমকি মোকাবেলায় পশ্চিমা বিশ্ব। অস্ট্রেলিয়াসহ মোট ৪০টি দেশ ইতিমধ্যে আইএসবিরোধী মার্কিন জোটে যোগ দিয়েছে। এর মধ্যে আছে ১০টি আরব দেশও। এসব দেশ একজোট হয়ে মহাজোট গঠন করছে। জোটের মোড়ল যুক্তরাষ্ট্রর ডাকে সাড়া দিয়ে মধ্যপ্রাচ্যে সেনা ও যুদ্ধবিমান পাঠানোর ঘোষণা দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। রোববার এক বিবৃতিতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী টনি অ্যাবোট এ ঘোষণা দেন। অ্যাবোট বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে ৬০০ সেনা ও আটটি যুদ্ধবিমান শিগগিরই পাঠানো হবে। যুক্তরাষ্ট্রের আইএসবিরোধী যুদ্ধের অংশীদার হতেই মধ্যপ্রাচ্যে সেনা পাঠানোর এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ৪০০ বিমান ও ২০০ বিশেষ বাহিনীর সমন্বয়ে গড়া সেনারা সংযুক্ত আরব আমিরাত ও যুক্তরাষ্ট্রের পরিচালিত হেডকোয়ার্টারে মোতায়েন করা হবে। আগামী সপ্তাহেই এ সেনাদের একটি অংশ সংযুক্ত আরব আমিরাতে পৌঁছবে। পাশাপাশি আটটি সুপার হরনেট যুদ্ধবিমানও পাঠানো হচ্ছে।

    এরপর ইরাকসহ ধাপে ধাপে অন্যান্য আরব দেশেও সেনা পাঠানো হবে বলে জানান অস্ট্রেলীয় প্রধানমন্ত্রী। সরকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অস্ট্রেলিয়ার এ সিদ্ধান্তকে স্বাগতম জানিয়েছে ইরাক।

    জোট গঠনে এবার ফ্রান্সে কেরি

    ইরাক ও সিরিয়ায় সুন্নিপন্থী জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) প্রতিরোধে শক্তিশালী জোট গঠনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি এখন ফ্রান্সে অবস্থান করছেন। চার দিনের মধ্যপ্রাচ্য সফর শেষে রোববার তিনি প্যারিসে পৌঁছেছেন। ইতিমধ্যে ১০টি আরব দেশসহ ৪০টি দেশ যুক্তরাষ্ট্রের আইএসবিরোধী এই পরিকল্পনায় সমর্থন দিতে জোটবদ্ধ হয়েছে। এসব দেশের প্রতিনিধিরা আজ সোমবার সিকিউরিটি সামিট-এ যোগ দিতে সমবেত হবেন ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে।

    এই সামিটে ইরানের অংশ নেয়ার কথা থাকলেও দেশটিকে অংশগ্রহণের সুযোগ দিতে রাজি নয় যুক্তরাষ্ট্র। ওয়াশিংটন মনে করে, শুধু আলোচনা পণ্ড করার জন্যই ইরান এই সামিটে যোগ দিতে ইচ্ছুক। বিবিসি, সিএনএন, আলজাজিরা

    ফ্রান্সে ৯৩০ জন জিহাদের

    সঙ্গে জড়িত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    ফ্রান্সের নাগরিক ও অভিবাসী মিলিয়ে মোট ৯৩০ জন ইরাক ও সিরিয়ায় জিহাদের সঙ্গে সক্রিয়ভাবে জড়িত রয়েছে অথবা জিহাদে যোগ দিতে সেখানে যাওয়ার পরিকল্পনা করছে। ওই ৯৩০ জনের মধ্যে কমপক্ষে ৬০ জন নারী রয়েছেন।

    ফ্রান্সের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বার্নাড কাজেনুভে রোববার সাপ্তাহিক লা জার্নাল দ্য ডিমানসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ফ্রান্সের নাগরিক ও অভিবাসী মিলিয়ে মোট ৯৩০ জন ইরাক ও সিরিয়ায় সম্পূর্ণভাবে জিহাদের সঙ্গে জড়িত রয়েছে। এর মধ্যে ৬০ নারীসহ ৩৫০ জন জিহাদে লিপ্ত রয়েছে। আনুমানিক ১৮০ জন সিরিয়া থেকে ফিরে এসেছে এবং ১৭০ জন ওই এলাকার পথে রয়েছে।

    - See more at: http://www.jugantor.com/ten-horizon/2014/09/15/147811#sthash.6tsEHi5T.dpuf





    সারদার মহিলা কর্মী ও রজতের মুখোমুখি জেরা

    সোমনাথ মণ্ডল

    রাজ্য পুলিসের প্রাক্তন ডিরেক্টর জেনারেল রজত মজুমদারকে সারদার এক মহিলা কর্মীর মুখোমুখি বসিয়ে জেরা করা হল৷‌ আর্থিক লেনদেনের বিষয়ে ওই মহিলা কর্মী সি বি আই-কে অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিলেও, রজতবাবু জেরায় বেশি কিছু বলতে চাননি৷‌শুধু বলেছেন, সময় এলে ঠিক বলব৷‌ জানা গেছে, রজতবাবুকে জেরা করতে দিল্লি থেকে সি বি আইয়ের একটি বিশেষ দল কলকাতায় আসছে৷‌ এদিকে, সারদা রিয়েলটি মামলায় জামিন পেলেন সুদীপ্ত সেন, কুণাল ঘোষ-সহ ৬ অভিযুক্ত৷‌ সারদার অন্যতম কর্তা সোমনাথ দত্তের বিরুদ্ধে আর কোনও মামলা না থাকায়, তিনি শনিবার রাতেই হাওড়া জেল থেকে ছাড়া পান৷‌ বাকি অভিযুক্তরা আপাতত জেলেই থাকবেন বলে আদালত সূত্রে খবর৷‌ রজতবাবু তদম্তে অসহযোগিতা করছেন বলে জানিয়েছেন গোয়েন্দারা৷‌ শনিবার দিনভর রজতবাবুকে বিধাননগরের সি জি ও কমপ্লেক্সে জেরা করা হয়৷‌ সারদা-কাণ্ডে আর্থিক তছরুপের বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে, তিনি সঠিকভাবে কোনও উত্তর দেননি৷‌ বারবারই বয়ান বদল করেছেন৷‌ সারদা-কাণ্ডে সুদীপ্ত সেনের কাছ থেকে কোন কোন প্রভাবশালী টাকা পেয়েছেন? সুদীপ্ত সেনের সঙ্গে তাঁর কীভাবে পরিচয়? লাস ভেগাসে বঙ্গসম্মেলনের জন্য ৪ কোটি টাকা তিনি কীভাবে খরচ করেছিলেন– এই সব জানতেই রজতকে জেরা করবে ওই বিশেষ দল৷‌ এদিন আলিপুর আদালতে অভিযুক্তদের আইনজীবী সওয়াল করেন, এই মামলায় ৯০ দিন হয়ে গেলেও সি বি আই চার্জশিট দিতে পারেনি৷‌ তাই অভিযুক্তদের জামিন দেওয়া হোক৷‌ অন্যদিকে, সি বি আইয়ের আইনজীবী বিরোধিতা না করে বলেন, চার্জশিট দিতে আরও দেরি হবে৷‌ তদম্ত বাকি রয়েছে৷‌ বিচারক দু'পক্ষের সওয়াল-জবাব শুনে প্রত্যেককে ২০ হাজার টাকার ব্যক্তিগত বন্ডে জামিন দেন৷‌ এর পাশাপাশি আসামের গায়ক সদানন্দ গগৈ-এর ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যম্ত সি বি আই হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত৷‌ আইনজীবী শ্যামলকাম্তি বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, 'শর্তসাপেক্ষে সোমনাথ দত্তকে জামিন দেওয়া হয়েছে৷‌ দেশ ছেড়ে কেউ যেতে পারবেন না৷‌ তদম্তকারীরা যখনই ডাকবেন যেতে হবে৷‌'আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা বলেন, 'সারদা রিয়েলটির মামলায় সুদীপ্ত, কুণাল, সোমনাথ ছাড়াও মনোজ নাগেল ও অরবিন্দ সিং চৌহান জামিন পান৷‌'তাঁর বক্তব্য, পশ্চিমবঙ্গে সারদা-কাণ্ডে দায়ের হওয়া ৫৫ এফ আই আর একত্রিত করে সি বি আই একটি মামলা দায়ের করে তদম্ত শুরু করে৷‌ সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ ছিল, সারদা তদম্তে সব ক'টি অভিযোগকে একত্রিত করে তদম্ত করতে হবে৷‌ যদিও সে পথে না হেঁটে কয়েকটি এফ আই আর-কে একত্রিত করে মামলা দায়ের করেছে সি বি আই৷‌ যে মামলাগুলিতে চার্জশিট হয়ে গেছে, সেগুলিকেও সি বি আই নতুন মামলার সঙ্গে যুক্ত করেছে, যা আইনের পরিপম্হী৷‌'এদিকে, এদিন রাতে জেল থেকে জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর সোমনাথ দত্ত সাংবাদিকদের বলেন, সি বি আই ভাল তদম্ত করছে৷‌ আমি সম্পূর্ণ নির্দোষ৷‌ আমাকে জড়ানো হয়েছে৷‌ আমি শুধুমাত্র মিডিয়া সংক্রাম্ত বিষয়টা দেখাশোনা করতাম৷‌ সারদার অন্যান্য ব্যবসা সম্পর্কে আমার কিছু জানা নেই৷‌


    প্রাক্তন মন্ত্রী হেমম্ত বিশ্ববর্মাকে তলব?


    এদিন রাতেই সদানন্দ গগৈকে জেরা করা হয়৷‌ বয়ানে অসঙ্গতি মিলেছে৷‌ সারদা গোষ্ঠীর বিজ্ঞাপনের ভিডিও সিডি তৈরির জন্য কত টাকার চুক্তি হয়েছিল? সে-বিষয়ে কোনও স্পষ্ট তথ্য দিতে পারেননি আসামের এই লোকসঙ্গীত গায়ক৷‌ গগৈ আসামের প্রাক্তন মন্ত্রী হেমম্ত বিশ্ববর্মার ঘনিষ্ঠ ছিলেন৷‌ জেরায় তাঁর নাম নিয়েছেন গগৈ৷‌ বিজ্ঞাপনের ভিডিও সিডি তৈরি ছাড়াও বিভিন্ন বিষয়ে টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে৷‌ পাশাপাশি ওই রাজ্য দিয়ে প্রতিবেশী রাষ্ট্রে টাকা গেছিল কিনা, তা নিশ্চিত হতে আরও তদম্তেরপ্রয়োজন রয়েছে বলে মনে করছেন গোয়েন্দারা৷‌ তাই আসামের কয়েকজন প্রভাবশালীকেও তলব করা হতে পারে৷‌


    ফের বিস্ফোরক কুণাল


    ফের বিবৃতি দিয়ে গুরুতর অভিযোগ আনলেন কুণাল ঘোষ৷‌ তাঁর অভিযোগ, চলচ্চিত্র উৎসবে বিধাননগরে যে নৈশভোজের আয়োজন করা হয়েছিল, তার দায়িত্বে ছিল সারদা গোষ্ঠী৷‌ শহরে যে হোর্ডিং দেওয়া হয়েছিল, তার অনেকটাই সারদার টাকায় হয়েছিল৷‌ তাই ওই ঘটনা ধামাচাপা দিতে সি বি আইয়ের বিরুদ্ধে মহিলা তৃণমূল কংগ্রেসের ধর্নায় উপস্হিত ছিলেন বিধাননগরে দলের প্রভাবশালী নেত্রী৷‌ কুণালের আরও অভিযোগ, দক্ষিণ কলকাতার এক প্রভাবশালীর পুজোয় বেশ কয়েকটি চিটফান্ড কর্পোরেটের তকমা লাগিয়ে টাকা দিয়েছিল৷‌ তাই তাদেরও সি বি আইয়ের জেরা করা উচিত৷‌ তিনি বিবৃতিতে বলেছেন, সি বি আই তদম্তে সাধ্যমতো সাহায্য করছি৷‌ কিন্তু তার পরেও তদম্ত প্রভাবিত করার চেষ্টা চলছে৷‌ আইনমন্ত্রী যেভাবে রাস্তায় নেমেছেন, তার ফলে তদম্ত প্রভাবিত হতে পারে৷‌ যদি এই রাজনৈতিক চাপ মেনে নেয় সি বি আই, তাহলে অনশন করবেন বলে হুমকি দিয়েছেন কুণাল৷‌


    সারদার স্কুল, তলব প্রাক্তন মালিককে


    সারদা-কাণ্ডে এবার এক স্কুলের প্রাক্তন মালিককে ডেকে পাঠাল এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ই ডি)৷‌ শিলিগুড়ির ওই স্কুলের মালিক সারদা-কর্তা সুদীপ্ত সেনকে স্কুলটি বেচে দেন৷‌ স্কুল কত টাকায় বিক্রি করা হয়েছিল, তা খতিয়ে দেখার জন্য প্রাক্তন মালিককে ডেকে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে৷‌ এই বেচাকেনায় জড়িয়েছে কয়েকজন প্রভাবশালীর নামও৷‌ ই ডি-র অফিসারেরা শিলিগুড়িতে গিয়ে প্রাক্তন মালিকের সঙ্গে দেখা করেন৷‌ তাঁর কথায় অসঙ্গতি ধরা পড়ায় এবার তাঁকে তলব করা হয়েছে৷‌ সুদীপ্ত সেন দাবি করেছিলেন, কয়েক কোটি টাকার বিনিময়ে স্কুলটি সারদা গোষ্ঠীকে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছিল৷‌ যদিও ওই প্রাক্তন মালিক অভিযোগ তুলেছেন, প্রতিশ্রুতি দিয়েও প্রায় ১ কোটি টাকা দেননি সারদা-কর্তা৷‌

    অসহযোগিতার আড়ালেই তদন্তে সিবিআইকে সাহায্য করছেন রজত মজুমদার! EXCLUSIVE

    Last Updated: Sunday, September 14, 2014 - 17:18
    Inline image 1
    অসহযোগিতার আড়ালেই তদন্তে সিবিআইকে সাহায্য করছেন রজত মজুমদার! EXCLUSIVE

    ওয়েব ডেস্ক: অসহযোগিতার আড়ালেই কি তদন্তে সিবিআইকে সহযোগিতা করছেন রজত মজুমদার? প্রাক্তন এই পুলিসকর্তা প্রকাশ্যে জানিয়েছেন, সিবিআইকে তিনি কোনও সহযোগিতা করবেন না। রীতিমতো চ্যালেঞ্জ করেছেন সিবিআইকে। যদিও তদন্তকারীদের ইঙ্গিত, প্রাক্তন এই পুলিসকর্তার হাত ধরেই মিলছে প্রভাবশালী রাজনীতিকদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রমাণ। সিবিআইয়ের দাবি যে মিথ্যে নয় তার প্রমাণ মিলেছে কুণাল ঘোষের চিঠিতেও। কুণালের দাবি, আদালতে রজত মজুমদার যে দাবি করেছেন তা ঠিক নয়। আদালতে রজত যাঁদের নাম করেছেন, মুখোমুখি জেরার সময় তাঁদের নাম আদৌ উল্লেখ হয়নি। তাহলে ভরা আদালতে কেন মুখ্যমন্ত্রীর নাম উল্লেখ করলেন রজত মজুমদার, তা নিয়েই শুরু হয়েছে জল্পনা।

    চিঠিতে কুণালের দাবি-

    দেখলাম রজত মজুমদার বলেছেন সুদীপ্তর টাকা ওঁকে (রজত মজুমদার) দিয়ে মমতাকে পাঠানো হয়েছে। এটা নাকি জেরার সময় আমি বলেছি। সিবিআই কর্তারা সাক্ষী, এই প্রসঙ্গটিতে মমতার নাম পর্যন্ত উল্লেখ হয়নি। রজতদা কেন এমন বললেন, বুঝলাম না।

    বৃহস্পতিবার আদালতে দাঁড়িয়ে রজত মজুমদার কী বলেছিলেন?

    কুণালের মুখোমুখি হলাম। তখন কুণাল এই কথা বলল যে মমতা-মুকুলকে নাকি ভোটের আগে টাকা দিতাম সুদীপ্তর থেকে নিয়ে। ওই যে সিবিআইয়ের যে অফিসার পিছনে দাঁড়িয়ে আছেন তাঁকে বলছি, আমার নাম রজত মজুমদার। আমার মুখ থেকে একটাও কথা বের করতে পারবেন না। মুকুল-মমতাকে টাকা দিয়েছি এটা বলাতে পারবেন না। মমতা-মুকুলকে টাকা দিয়েছি? সাতদিন পরে বলবেন, মুকুলকে টাকা দিয়েছি। তারও সাতদিন পরে বলবেন মমতাকে টাকা দিয়েছি। সাতদিন কেন সত্তর দিনেও প্রমাণ করতে পারবেন না। আপনি কোনওদিন মুখ থেকে বার করতে পারবেন না মুকুল-মমতাকে টাকা দিয়েছি।

    সুদীপ্ত সেনকে রজত কী বলেছিলেন---

    তুমি কুণালকে বলেছ আমার হাত দিয়ে মুকুল-মমতাকে টাকা পাঠাতে? চালাকির একটা সীমা থাকা উচিত।


    মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি করলেন বিরোধী দলনেতা

    মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি করলেন বিরোধী দলনেতা

    ওয়েব ডেস্ক: সারদাকাণ্ডে এখনও পর্যন্ত যারা গ্রেফতার হয়েছেন তাঁরা নেহাতই চুনোপুঁটি। আসল রাঘব বোয়ালের কাছে এখনও পৌছতেই পারেননি তদন্তকারীরা। সারদাকাণ্ডে ফের শাসকদলের শীর্ষনেতৃত্বের বিরুদ্ধে তোপ দেগে আজ এই মন্তব্য করলেন বিরোধী দলনেতা সূর্যকান্ত মিশ্র। একইসঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবি করেছেন বিরোধী দলনেতা।

    এদিকে, শনিবার সুরেন্দ্রনাথ কলেজে এসএফআই কর্মীদের উপর হামলার প্রতিবাদে পথে নামল সিপিআইএম। আজ শিয়ালদহ অঞ্চলে প্রতিবাদ মিছিল করেন সিপিআইএম কর্মী সমর্থকরা। মিছিলের শেষে  সুরেন্দ্র নাথ কলেজের সামনে বেশ কিছুক্ষণ পথ অবরোধ করে বামেরা।

    মিছিলে ছিলেন চৌরঙ্গির বাম প্রার্থী ফৈয়াজ আহমেদ খান সিপিআইএম নেতা অনাদি সাহু।  পুলিসের বিরুদ্ধে নিস্ক্রিয়তার অভিযোগ এনেছেন তাঁরা।গতকাল সুরেন্দ্রনাথ কলেজে  ভাঙচুর করা হয় সিপিআইএমের বুথ। ওই হামলায় আহত হন এসএফআই  নেত্রী ডোনা গুপ্ত।  বন্দুকের বাঁট দিয়ে আঘাত করা হয় তাঁকে এবং তাঁর সঙ্গে থাকা অনন্যাকে।  মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দুজনের চিকিত্সা চলছে।  আজ ডোনা ও অনন্যাকে হাসপাতালে দেখতে যান গণতান্ত্রিক মহিলা সমিতি নেতৃত্ব।


    বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যবস্থা নিতে হবে রাজ্যকে, বললেন সেবির চেয়ারম্যান

    Last Updated: Sunday, September 14, 2014 - 22:32
    বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থার বিরুদ্ধে প্রথমে ব্যবস্থা নিতে হবে রাজ্যকে, বললেন সেবির চেয়ারম্যান

    ওয়েব ডেস্ক: বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থার বাড়বাড়ন্ত রুখতে প্রথমে ব্যবস্থা নিতে হবে রাজ্যকেই। এমনই মত সেবি চেয়ারম্যান ই উকে সিনহার। তাঁর বক্তব্য, ভারতবর্ষের মতো বড় দেশের প্রতিটি কোণায় নজরদারি চালানো সেবির মতো কেন্দ্রীয় সংস্থার পক্ষে কার্যত অসম্ভব। পঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ বা পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যে কোনও বেআইনি অর্থলগ্নি সংস্থা  বাজার থেকে টাকা তুললে তা প্রথমে নজরে আসে সংশ্লিষ্ট রাজ্য প্রশাসনেরই।

    সেবির চেয়ারম্যানের মতে, রাজ্য সরকারের হাতে যে ক্ষমতা রয়েছে তা যথাযথ ব্যবহার করলে সহজেই বড়বড় আর্থিক কেলেঙ্কারি আটকানো সম্ভব।

    সম্প্রতি বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যসচিব, রিজার্ভ ব্যাঙ্কের গভর্নর ও সেবির আধিকারিকদের নিয়ে একটি বৈঠকও করেছেন তিনি।  মুখ্যসচিবদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বাজার থেকে পঞ্জি স্কিমের মাধ্যমে যাঁরা টাকা তুলছেন  তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নিতে হবে। পাশাপাশি, এবিষয়ে রাজ্য সরকারকে সবরকম সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সেবির চেয়ারম্যান।

    ঝিলামের বাঁধ ভাঙল, দাঁড়িয়ে দেখলেন ডাক্তার বাবু, তারপর একটা লড়াই

    কার্যত মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে ফিরে এসেছেন। কিন্তু, এখনও তাড়া করে বেড়ায় আতঙ্কের সেই স্মৃতি। কীভাবে ভেঙে পড়েছিল ঝিলাম নদীর বাঁধ? কীভাবে কেটেছে তিন-তিনটে দিন? তবে সব ছাপিয়ে উঠে এসেছে সেনাবাহিনীর প্রশংসা। সবটাই শোনালেন কিষামগঞ্জ মেডিক্যাল কলেজের চক্ষু চিকিত্সক ডক্টর পরিমল।

    উত্তর কাশ্মীরের জলস্তর চিন্তায় রেখেছে মুখ্যমন্ত্রীকে উত্তর কাশ্মীরের জলস্তর চিন্তায় রেখেছে মুখ্যমন্ত্রীকে

    উত্তর কশ্মীরের বাড়তে থাকা জলস্তর চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লার কপালে। তিনি মনে আশা করছেন দ্রুত পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে যাবে। মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, মধ্য কাশ্মীরে জল অনেকটা নামলেও উত্তর কাশ্মীরে জলস্তর বিপদসীমার নিচে নামার অপেক্ষায় রয়েছে প্রশাসন।

    ধীরে ধীরে কাশ্মীরে স্বাভাবিক হচ্ছে যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিনামূল্যে টেলিফোন করার সুবিধা দেবে বিএসএনএল ধীরে ধীরে কাশ্মীরে স্বাভাবিক হচ্ছে যোগাযোগ ব্যবস্থা, বিনামূল্যে টেলিফোন করার সুবিধা দেবে বিএসএনএল

    জল কমতেই পুরোদমে শুরু হয়েছে উদ্ধারকাজ। বন্যা পরিস্থিতির ক্রমশ উন্নতি হচ্ছে জম্মু ও কাশ্মীরে।  সেনা ও এনডিআরএফের উদ্ধারকারীরা ইতিমধ্যেই প্রায় দেড় লাখ দুর্গত মানুষকে উদ্ধার করেছেন। বন্যা বিধ্বস্ত এলাকায় জল পরিশোধনের জন্য পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে এক সেনা মুখপাত্র জানিয়েছেন।

    ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে বন্যা বিধ্বস্ত ভূস্বর্গের যোগাযোগ ব্যবস্থা ধীরে ধীরে স্বাভাবিক হচ্ছে বন্যা বিধ্বস্ত ভূস্বর্গের যোগাযোগ ব্যবস্থা

    ধীরে ধীরে স্বাভাবিক জীবন যাত্রা ফিরে আসছে জম্মু-কাশ্মীরে। এক সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে টেলিকম্যুনিকেশন ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়ার পর ৮০% নেটওয়ার্ক পুনরুদ্ধারে সক্ষম হয়েছে বিএসএনএল। অনান্য বেসরকারি মোবাইল সার্ভিস প্রোভাইডার সংস্থাও বন্যা বিধ্বস্ত কাশ্মীর উপত্যকার বিভিন্ন অংশে তাদের নেটওয়ার্ক পুনরুদ্ধারে সক্ষম হয়েছে।

    সারা দেশে ৩৩টি বিধান সভা ও ৩টি লোকসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনের জন্য শুরু ভোট গ্রহণ সারা দেশে ৩৩টি বিধান সভা ও ৩টি লোকসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনের জন্য শুরু ভোট গ্রহণ

    দেশের দশটি রাজ্যের তেত্রিশটি বিধানসভা আসন ও তিনটি লোকসভা আসনে আজ উপনির্বাচন। তার মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ গুজরাতের ভদোদরা আসনটি। লোকসভা নির্বাচনে এই আসন থেকেই জিতেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু বারাণসী আসনটি রেখে ভরোদরা আসনটি ছেড়ে দেন তিনি।

    মাদুরাইয়ে ২  ছাত্রীর ওপর অ্যাসিড হামলামাদুরাইয়ে ২ ছাত্রীর ওপর অ্যাসিড হামলা

    তামিলনাডুর মাদুরাইয়ে কলেজের বাইরে দুই ছাত্রীকে অ্যাসিড হামলা করল এক ব্যক্তি। গুরুতর আহত অবস্থায় দু'জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মাদুরাই কামরাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি কলেজে ইংরাজি বিভাগের স্নাতক স্তরের দুই ছাত্রী পরীক্ষা দিয়ে বেরনোর পর তাঁদের ওপর হামলা চালানো হয়।

    সুপ্রিম কোর্টে পিছল টেট মামলার শুনানি সুপ্রিম কোর্টে পিছল টেট মামলার শুনানি

    মামলাকারীদের আইনজীবীর আর্জিতে পিছিয়ে গেল সুপ্রিম কোর্টে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে টেট মামলার শুনানি। প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত যেসব চাকরিপ্রার্থী প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরে স্কুলে চাকরি পাননি, তাঁরা রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন। প্রশিক্ষণ না পাওয়া প্রার্থীদের নিয়োগের বিরোধিতা করেছিলেন তাঁরা। আজ বিচারপতি AK সিকরি ও J চেলমেশ্বরের বেঞ্চে মামলাকারীরা আবেদন জানান SSC টেট সংক্রান্ত মামলার সঙ্গেই তাঁদের মামলাটি জুড়ে দেওয়া হোক।

    ক্যান্সার-যুদ্ধে হার, চলে গেলেন সৈফুদ্দিন

    মারণ-রোগের সঙ্গে লড়াইয়ে শেষ পর্যন্ত হেরে গেলেন প্রাক্তন সাংসদ সৈফুদ্দিন চৌধুরী। দিল্লির একটি বেসরকারি হাসপাতালে রবিবার রাতে মৃত্যু হল সিপিএমের এই প্রাক্তন নেতার। ক্যানসারে আক্রান্ত সফি বেশ কিছু দিন ধরেই ওই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত কয়েক দিনে তাঁর অবস্থার অবনতি হয়েছিল। তাঁর মৃত্যুতে ভারতীয় রাজনীতি যে এক সুভদ্র নেতা এবং ভাল মানুষকে হারাল, এই বিষয়ে সফির কাছের মানুষ বা প্রতিপক্ষ দল, কারওরই কোনও দ্বিমত নেই।

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    হরেকৃষ্ণ শতবর্ষেই প্রয়াত বিনয় কোঙার

    কৃষক নেতা হরেকৃষ্ণ কোঙারের জন্মশতবর্ষ চলাকালীনই প্রয়াত হলেন তাঁর ভাই, সিপিএমের প্রবীণ নেতা বিনয় কোঙার। কিছু দিন ধরেই অসুস্থ হয়ে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন তিনি। অবস্থার অবনতি হওয়ায় কয়েক দিন আগে তাঁকে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল আইসিইউ-এ। ওই হাসপাতালেই রবিবার বিকালে মারা যান বিনয়বাবু। ঘটনাচক্রে, দাদা হরেকৃষ্ণবাবুর জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে গত মাসে রাজ্য সিপিএমের অনুষ্ঠানেই শেষ বার জনসমক্ষে বক্তৃতা করেছিলেন বিনয়বাবু।

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    এ বার ব্রিটিশ নাগরিকের মাথা কাটল জঙ্গিরা

    ড্যানিয়েল পার্ল, জেমস ফোলি, স্টিভেন সটলফ-এর পরে ইসলামিক স্টেট (আইএস)-এর জঙ্গিদের হত্যার তালিকায় ঢুকে পড়লেন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের কর্মী ডেভিড হাইনেস। প্রকাশ করা হল জেভিডের মুণ্ডচ্ছেদের একটি ভিডিও। ব্রিটিশ নাগরিক ডেভিড ফ্রান্সের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের হয়ে কাজ করতেন। এক বছর আগে সিরিয়া থেকে তাঁকে অপহরণ করা হয়।

    সংবাদ সংস্থা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    ডেল্টার পর এ বার বন্ধ কাঁকিনাড়ার নফরচাঁদ জুটমিল

    রাজ্যে চটশিল্পের পরিস্থিতি ক্রমশ ঘোরালো হয়ে উঠছে। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে একের পর এক জুটমিল। গত ৯ সেপ্টেম্বর শ্রমিক অসন্তোষের কারণ দেখিয়ে বন্ধ করে দেওয়া হয় সাঁকরাইলের ডেল্টা জুটমিল। সপ্তাহ ঘুরতে না ঘুরতেই সেই ছায়া এসে পড়ল ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চলে। রবিবার সকালে বন্ধ হয়ে গেল কাঁকিনাড়ার নফরচাঁদ জুটমিল।

    নিজস্ব সংবাদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    ফের বৃষ্টির চোখরাঙানি, ত্রস্ত ভূস্বর্গ

    জম্মু-কাশ্মীরে রবিবার ফের বৃষ্টি শুরু হওয়ায় প্রশাসন ও বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। রাজ্য আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, এ দিন সকাল সাড়ে আটটা থেকে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বৃষ্টির মাত্রাও বাড়বে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে দফতর। তার সঙ্গে দোসর হয়েছে বজ্র-বিদ্যুত্। গত তিন দিন ধরে আকাশ-ভাঙা বৃষ্টি থেমে গিয়েছিল। ফলে উদ্ধার কাজের গতিও বেড়েছিল। এত দিন ধরে টানা বৃষ্টিতে প্লাবিত এলাকাগুলিতে জলস্তর বাড়ায় উদ্ধারকাজে প্রচণ্ড বেগ পেতে হয় সেনাবাহিনীকে।

    সংবাদ সংস্থা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    অকাল ভোটে ছবি বদল, খুশি বিরোধীরা

    চাপে তা হলে কাজ হল! খাস কলকাতার চৌরঙ্গি এবং উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রে শনিবার সারা দিন উপনির্বাচনের ছবি দেখে এমনই মনে হচ্ছে অধিকাংশ বিরোধী রাজনৈতিক দল এবং আম জনতারও। গোলমাল বা অশান্তির প্রভূত আশঙ্কা সত্ত্বেও প্রায় নির্বিঘ্নেই উতরে গেল ভোটযজ্ঞ।

    নিজস্ব প্রতিবেদন
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মর্যাদা বাঁচাতে তৃণমূল সেনাপতি বসিরহাটেই

    কন্ট্রোল রুমে নেই প্রধান সেনাপতিই! প্রতি বার তপসিয়ায় তৃণমূল ভবন থেকেই ভোট পরিচালনার দায়িত্ব থাকে দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদকের উপরে। চৌরঙ্গি ও বসিরহাট দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের গুরুত্বপূর্ণ উপনির্বাচন হয়ে গেল শনিবার। একে বিজেপি-র উত্থানের বিপদ, তার উপরে সারদা-কাণ্ডে প্রবল অস্বস্তিতে শাসক দল। এমন চাপের পরিস্থিতিতে কোথায় তিনি?

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    ইমরান-কাণ্ডে আরও চাপ বাড়াল বিরোধীরা

    তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ আহমেদ হাসানকে জড়িয়ে যে অভিযোগ উঠেছে, তার জেরে শাসক দলের উপরে আরও চাপ বাড়াতে সক্রিয় হল বিরোধীরা। নাম না করে ওই তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে দেশদ্রোহিতার অভিযোগ করেছেন বামফ্রন্টের চেয়ারম্যান বিমান বসু। ইমরানের মদতেই তিস্তা জল চুক্তিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বাধা দিয়েছেন বলেও বিমানবাবুর অভিযোগ।

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    Click Here!

    অ্যাম্বুল্যান্সের গায়ে সরকারি তকমা, আমানতে বাজিমাত

    মহাকরণের মঞ্চে রিমোট কন্ট্রোলের বোতাম টিপলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। রাজ্যের জঙ্গলমহল ও লাগোয়া অঞ্চলের মানুষের জন্য স্বাস্থ্য-পরিষেবার সূচনা হয়ে গেল। কয়েকটি বৈদ্যুতিন মাধ্যমে সরাসরি সম্প্রচারিত অনুষ্ঠানটি পুরুলিয়া-বাঁকুড়া-পশ্চিম মেদিনীপুরের হাজারো মানুষকে দেখানো-ও হল। ওই সব তল্লাটে বিশেষ এক সংস্থার খোলা দেড়শো শাখা অফিসের সামনে, এলসিডি স্ক্রিন খাটিয়ে।

    শুভাশিস ঘটক
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    এত ওজন কমছে কেন, খুঁজতে বোর্ড

    একই সঙ্গে দু'জনে ধরা পড়েছিলেন কাশ্মীরের সোনমার্গ থেকে। পুলিশি হেফাজতে গিয়ে প্রাথমিক ভাবে স্বাস্থ্য ভেঙে পড়েছিল দু'জনেরই। ইদানীং এক জনের স্বাস্থ্যের হাল কিছুটা ফিরেছে। জেল থেকে আদালতে যাতায়াতের পথে দেবযানী মুখোপাধ্যায়ের চেহারায় দেখা যাচ্ছে পরিপাটি প্রসাধনের চিহ্ন। আর অন্য জনের চেহারা চোখে পড়ার মতো শুকিয়ে গিয়েছে গত দেড় বছরে। ওজন কমে গিয়েছে ১৮ কেজি। সুদীপ্ত সেনের ভগ্নস্বাস্থ্য নিয়ে এতটাই উদ্বিগ্ন সিবিআই, যে তাদের অনুরোধেই সারদা কর্তার জন্য এসএসকেএমের বিশেষ মেডিক্যাল বোর্ড গড়তে রাজি হয়েছে রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর।

    নিজস্ব প্রতিবেদন
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    নীরবতা ভেঙে সিবিআইকে তথ্য দিলেন রজত

    বৃহস্পতিবার প্রকাশ্যে বলেছিলেন, কিছুই বলবেন না সিবিআই-কে। সেই ভোল বদলাতে লাগলো মোটে ৪৮ ঘণ্টা। সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার তদন্তকারীদের প্রশ্নের জবাবে প্রাক্তন ডিজি তথা তৃণমূলের সহ-সভাপতি রজত মজুমদার জানিয়েছেন, সারদায় তাঁর দায়দায়িত্ব ও কাজের ধরন কী ছিল। মুখ যে তিনি খুলবেন, তার ইঙ্গিত দিয়ে এ দিন সকালে সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই দফতরে ঢোকার সময় বলে গেলেন, "সময় এলেই বলব।"

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    সারদা-আতঙ্কে তটস্থ অসমের প্রভাবশালীরা

    শুরু হল গায়ক সদানন্দ গগৈকে দিয়ে। কিন্তু এর পর কে? তদন্তে নেমে সিবিআই সারদা কেলেঙ্কারির অসম-যোগে যাঁকে প্রথম গ্রেফতার করেছে, তিনি ওই সদানন্দ। গত কাল গ্রেফতার হওয়া সদানন্দকে আজ আলিপুর আদালতে হাজির করানো হলে বিচারক তাঁকে ১৭ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত সিবিআই হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

    রাজীবাক্ষ রক্ষিত
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    চাণক্য জেটলিকে দিয়েই চন্দ্রগুপ্ত শ্রীনির সাম্রাজ্য ধ্বংসের উদ্যোগ

    নতুন ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড প্রেসিডেন্ট হিসেবে অপ্রত্যাশিত উঠে এসেছে অরুণ জেটলির নাম। অবশ্যই যদি জেটলি তাঁর মন্ত্রিত্বের গুরুদায়িত্ব সামলে বোর্ড প্রধান হতে রাজি থাকেন! জেটলির ঘনিষ্ঠমহলের ধারণা, অর্থ এবং প্রতিরক্ষা দুটো এত গুরুত্বপূর্ণ দফতর সামলে ভারতীয় ক্রিকেট প্রশাসনের দায়িত্ব নিতে তিনি রাজি হবেন না। ভারতীয় বোর্ডের বিরোধী শিবিরের আবার বিশ্বাস, তাঁকে যদি বোঝানো যায় যে চার মাসে মাত্র একটা বৈঠক করলেই চলবে। কাজগুলো অন্যরাই দেখে নেবে। কেবল ভাবমূর্তি উদ্ধারের জন্য তাঁর আসা প্রয়োজন, তা হলে জেটলি রাজি হয়ে যাবেন।

    গৌতম ভট্টাচার্য
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e


    সকালে বচসা ছাড়া দিনভর অফিসেই ইকবাল

    খানিক আগেই গোলমাল বেধেছিল ৬২ নম্বর ওয়ার্ডের ওয়েলেসলি পাড়ায়। শনিবার ভোট শুরুর ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই চৌরঙ্গি কেন্দ্রে প্রথম উত্তেজনার আঁচ। স্থানীয় বরোর চেয়ারম্যান এবং খানাকুলের তৃণমূল বিধায়ক ইকবাল আহমেদের খাসতালুক এটা। সেখানেই বুথের সামনে ভিড় করা নিয়ে কংগ্রেস প্রার্থী সন্তোষ পাঠকের সঙ্গে তাঁর বচসা, দু'দলে ধাক্কাধাক্কি। খবর পেয়ে ছুটে গেলেন তৃণমূল প্রার্থী নয়না বন্দ্যোপাধ্যায়। ইকবাল তত ক্ষণে রিপন স্ট্রিটে। দু'জনের দেখা হল সেখানেই। ভিড় থেকে সরে নিচু গলায় কিছু কথাও হল।

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মেয়েদের ফেলে মার, দাপাল বাইক বাহিনী

    শনিবার ভরদুপুরে শহরের রাস্তায় পড়ে কাতরাচ্ছেন দুই যুবতী। অথচ তাঁদের উদ্ধারে এগিয়ে আসতে দেখা যাচ্ছে না কাউকে। কেন? কারণ, শাসক দলের বাইক বাহিনী তখনও দাপিয়ে বেড়াচ্ছে গোটা এলাকা। শেষমেশ এগিয়ে এলেন পাঁচ নম্বর বরোর চেয়ারম্যান অপরাজিতা দাশগুপ্ত। তিনিও তৃণমূলের। ডোনা গুপ্ত ও অনন্যা দে নামে গুরুতর জখম ওই দুই যুবতীকে রাস্তা থেকে তোলার চেষ্টা করতে করতে বললেন, "এটা আমার কর্তব্য।"তার অনেক পরে ঘটনাস্থলে পুলিশ এল। তারাই আহতদের নিয়ে গেল মেডিক্যাল কলেজে।

    নিজস্ব প্রতিবেদন
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মাটির বাঁধ উজিয়ে ভোট দিয়ে যান ওঁরা

    ভাদ্রের ভরা বেলায় খাঁ খাঁ করছে উত্তরপাড়া। ছড়িয়ে ছিটিয়ে কাঁঠাল-জামরুলের ছায়া। গ্রামের বুক চিরে ধুলো ঢাকা একটা আদ্যন্ত মেঠো রাস্তা এঁকেবেঁকে ঠোক্কর খেয়েছে যেখানে, গ্রামের লোকজন চিনিয়ে দেন, 'অবতারের ভেড়ি'। মানে? মুখে আঁচল চাপা দিয়ে উত্তরপাড়ার মাঝবয়সী মহিলা বলেন, "আমাগো দ্যাশে যেমন কাঁটাতার, বাংলাদ্যাশের তেমনই অবতার কোম্পানির বাঁধ।"

    নির্মল বসু
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    কড়া নজরদারি, বহিরাগতেরা রইলেন বাইরেই

    রাত দুপুরে লজের ঘরের দরজায় 'ঠকঠক'। ভিতরের বাসিন্দা দরজা খুলতেই মুখোমুখি হলেন সশস্ত্র বাহিনীর। বাহিনীর সঙ্গে থাকা পদস্থ অফিসারেরা জানতে চাইলেন পরিচয়। ছাড় দিলেন চিত্র সাংবাদিক পরিচয় সম্পর্কে নিঃসন্দেহ হয়ে। লজের বাগানে পায়চারিরত এক যুবকও একই প্রশ্নের মুখে পড়লেন ও ছাড়া পেলেন নির্বাচনী দায়িত্ব নিয়ে আসা সরকারি আধিকারিক বলে। হলটা কী?

    অরুণাক্ষ ভট্টাচার্য ও নির্মল বসু
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    সাইকেলের বদলে গাড়িতে ভোট দিতে গেলেন দীপেন্দু

    বৃদ্ধাকে রিকশা থেকে নামাচ্ছিলেন আত্মীয়েরা। অসুস্থ শরীরে এসেছেন ভোট দিতে। দেখতে পেয়ে এগিয়ে গেলেন প্রার্থী। মশকরা করে বললেন, "এই যে বুড়ি, চিনতে পারছ?""কে বাবা?"চোখ তুলে তাকালেন অশীতিপর বৃদ্ধা। একগাল হেসে বললেন, "ও মা, এ যে আমাদের মিঠু। ভাল আছিস তো?""দেখলেন, এরপরে আমাকে কি কেউ আর বহিরাগত বলবে?"— বললেন প্রার্থী।

    অরুণাক্ষ ভট্টাচার্য ও নির্মল বসু
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    তৃণমূলে বড় ছেলে, ভাঙন প্রয়াত বিধায়কের ঘরে

    ভাইয়ের সঙ্গে কথা বন্ধ করে দেয় ভাই। মা আর মুখ দেখেন না ছেলের। মানুষে-মানুষে এমন বিচ্ছেদ করাতে পারে কেবল তিনটে জিনিস। প্রেম, সম্পত্তি, আর রাজনীতি। বসিরহাটের প্রয়াত বিধায়ক নারায়ণ মুখোপাধ্যায়ের পরিবার ভেঙেছে রাজনীতি। ৮ বার বিধানসভা নির্বাচনে জিতেছেন এই সিপিএম নেতা। তাঁর মৃত্যুর জেরেই বসিরহাটে দক্ষিণ কেন্দ্রে এই নির্বাচন হচ্ছে। নারায়ণবাবুর বড় ছেলে উৎপলকে শনিবার দেখা গেল তৃণমূলের ক্যাম্পে। ছোট ছেলে জ্যোতিপ্রকাশ নারায়ণবাবুর বাড়ির পাশেই সিপিএমের ক্যাম্পে বসে ভোট সামলাতে ব্যস্ত।

    অরুণাক্ষ ভট্টাচার্য
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    ফের অনুব্রতর হুমকি, পুলিশ শাসালেন মনিরুল

    আবার স্বমহিমায় অনুব্রত। সঙ্গে দোসর মনিরুল। এক জন বিরোধীদের প্রাণে মারার হুমকি দিলেন, অন্য জন পুলিশকর্মীদের বুঝিয়ে দিলেন শাসক দলের কথা না শুনলে জঙ্গলমহলে বদলি করে দেবেন। বীরভূম পাড়ুই থানা এলাকার ক্ষতিপুর গ্রামে বিজেপি ও সিপিএমের 'যৌথ সন্ত্রাসের'বিরুদ্ধে তৃণমূলের প্রতিবাদসভা ছিল শনিবার।

    নিজস্ব সংবাদদাতা
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    শহরে আল কায়দার কারা, তদন্তে গোয়েন্দা

    ভারতীয় উপমহাদেশে আল কায়দার শাখা খোলার ঘোষণা সম্বলিত আয়মান আল জাওয়াহিরির ভিডিও টেপটির অস্তিত্ব জানা গিয়েছে গত সপ্তাহে। কিন্তু ইনটেলিজেন্স ব্যুরো (আইবি) ও কলকাতা পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স (এসটিএফ)-এর সন্দেহ, ওই জঙ্গি সংগঠনের একটি 'ঘুমন্ত'শাখা কলকাতায় রয়েছে বেশ কিছুদিন ধরেই।

    সুরবেক বিশ্বাস
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মৃতের পাশেই রোগীর ঠাঁই, ওয়ার্ডই যেন মর্গ

    মুমূর্ষু যক্ষ্মা রোগীরা হাসপাতালের শয্যায় শুয়ে ধুঁকছেন। আর ঠিক তাঁদের পাশে ওয়ার্ডের মধ্যেই একটি শয্যায় পড়ে রয়েছে সাদা চাদরে ঢাকা অন্য এক রোগীর মৃতদেহ! প্রত্যন্ত জেলায় নয়, খাস কলকাতার যাদবপুরে কে এস রায় যক্ষ্মা হাসপাতালে এমনই অবস্থা চলছে। হাসপাতালে মৃতদেহ রাখার মর্গ প্রায় তিন বছর ধরে অচল।

    পারিজাত বন্দ্যোপাধ্যায়
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    রোগিণীকে নগ্ন করে বন্দি রেখে 'শান্তি রক্ষা'র চেষ্টা

    পাভলভ আছে পাভলভেই! গত এক মাস ধরে এক মানসিক রোগিণীকে এই মানসিক হাসপাতালের একটি ঘরে নগ্ন অবস্থায় তালাবন্ধ করে রেখে দেওয়া হয়েছে। দিনে দু'বার সেই ঘরে শুধু খাবারটুকু পৌঁছে দেওয়া হয়। ভাঙা তারের জাল লাগানো ঘরটিতে বেশির ভাগ সময়েই গরাদ ধরে দাঁড়িয়ে থাকেন আঁখি নামের ওই রোগিণী।

    সোমা মুখোপাধ্যায়
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    স্বাস্থ্য

    নিজেদের পরীক্ষাতেই সন্দিহান স্বাস্থ্য দফতর

    প্রথমে জানিয়েছিল, সিরাপের মান ঠিক নেই। পরে নিজেদের পরীক্ষা-পদ্ধতি নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করে তারা! স্বাস্থ্য দফতরের এই আচরণে রাজ্যে স্থগিত হয়ে গেল শিশুদের সিরাপ খাওয়ানোর প্রকল্প। চিকিৎসকরা জানাচ্ছেন, জন্মের পরেই বহু শিশু রক্তাল্পতায় ভোগে। সরকারি হিসেবে, রাজ্যে পাঁচ বছরের কম বয়সিদের মধ্যে সংখ্যাটা শতকরা ৭০ জন।

    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    জীবজগৎ

    হাতিকে বিস্কুট খাওয়াতে গিয়ে মৃত ট্রাকচালক

    বন দফতরের একটি কুনকি হাতির পায়ে পিষ্ট হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা গেলেন এক ট্রাকচালক। অশোক শেরপা (৪৯) নামে জয়গাঁ-র বাসিন্দা ওই চালক শনিবার সকালে ট্রাক নিয়ে কোচবিহার যাচ্ছিলেন। হাসিমারার কাছে কোদালবস্তি এলাকায় কুনকি হাতিটিকে দেখে ট্রাক থামিয়ে তাকে বিস্কুট খাওয়াতে গিয়েছিলেন অশোক।

    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    বিদেশ

    জিপিএস বিকলের আশঙ্কা

    কয়েক কোটি আলোকবর্ষ দূরে একটি তারার দু'টি বিস্ফোরণে বিকল হতে বসেছে প্রযুক্তি! সূর্যের মধ্যে দু'টি বিস্ফোরণে তৈরি হওয়া সৌর ঝড় ধেয়ে এসেছে পৃথিবীর দিকে। তৈরি হয়েছে এক ধরনের 'ইলেকট্রো ম্যাগনেটিক'রশ্মি। যা কি না ইতিমধ্যেই স্পর্শ করেছে ভূপৃষ্ঠ।

    1
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    দেশ

    পাহাড়ে সেনাবাহিনীর ভরসা চারপেয়েরা

    জম্মু-কাশ্মীর থেকে অরুণাচল—হিমালয় ঘেরা রাজ্যগুলির পাহাড়ে-পাহাড়ে বহাল জওয়ানদের 'বন্ধু'ওরা। সেনাবাহিনীর অবিচ্ছেদ্য 'অঙ্গ'ও। খচ্চর আর পাহাড়ি কুকুরের দল! গোলা-বারুদ, খাদ্যসামগ্রী পিঠে নিয়ে চড়াই-উৎরাই রাস্তায় মাইলের পর মাইল হেঁটে খচ্চররা পৌঁছায় দুর্গম সামরিক ছাউনিতে।

    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    দেশ

    কাজ চাই, আরও কাজ, ৪ সূত্র মোদীর

    শুধু কাজ শুরু নয়। হাতেনাতে ফলও চাই। ভোটের আগে ভূরি-ভূরি প্রতিশ্রুতি দিলেও প্রথম একশো দিনে যে খুব বেশি কিছু মানুষের সামনে মেলে ধরা যায়নি, সেটা বুঝছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। আর সেই কারণেই আগামী দিনগুলোয় দ্রুত কাজ চাইছেন প্রধানমন্ত্রী।

    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মেদিনীপুর

    ক্লাসঘর জবরদখল আধিকারিকের

    স্কুলের কম্পিউটার রুম, অথচ সেখানে কম্পিউটার নেই একটিও। বদলে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত ওই ঘরে পরিপাটি করে পাতা বিছানা। দেওয়ালে টাঙানো আয়না। ঘটনাস্থল অনগ্রসর শ্রেণি কল্যাণ দফতর পরিচালিত আদিবাসী স্কুল 'ঝাড়গ্রাম একলব্য আদর্শ আবাসিক বিদ্যালয়'।

    1
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    মুর্শিদাবাদ

    যন্ত্রে পাট ছাড়ানোর পরামর্শ নিগমের

    যন্ত্রের সাহায্যে পাট ছাড়ানোর পরামর্শ দিচ্ছেন জুট কর্পোরেশন অফ ইন্ডিয়া-র আধিকারিকেরা। তাঁদের দাবি, যন্ত্রের সাহায্যে পাট ছাড়ানো হলে তাতে পাটের গুণগত মান ভাল হয়। পাট ছাড়াতে খরচও কম হয়। পাট পচাতে জলেরও প্রয়োজন হয় কম। ফলে সব দিক থেকেই লাভবান হবেন চাষিরা।

    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    উত্তরবঙ্গ

    দুর্গাপুজোয় নজরমিনার চালু বক্সায়

    তিন তলা বাড়ির সমান উঁচু নজরমিনারের চার দিক জঙ্গলে ঘেরা। এক পাশ দিয়ে তিরতির করে বয়ে যাচ্ছে বালা নদী। মিনারে উঠলে স্পষ্ট দেখা যায়, নদীর এক পাশের কাশ বাগান এখন ফুলে ভরে গিয়েছে। বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের জঙ্গলে 'সম্বর'নজর মিনারে এত দিন শুধুমাত্র বনকর্মীরাই উঠতে পারতেন। মিনার থেকে নজরদারির কাজ করা হত।

    1
    ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৪
    e e e

    0 0

    আল্লা,ম্যাঘ দে

    আল্লা ,পানি দে

    আল্লা,অন্ধ যেজন,তাহাদের চক্ষু

    ফুটাইয়া দে

    শারদোত্সবে বসন্তের আগমণী আমি দেখেছি নন্দিনীকে

    কলরবে উথাল পাথাল বৃষ্টিতে, শুনেছি তাঁর মধু কন্ঠস্বর

    পলাশ বিশ্বাস

    Souvik Chakrabarty

    1 hr

    https://soundcloud.com/banglarock/hok-kolorob-rupam-islam‪#‎hokkalorob‬............

    Hok Kolorob - Rupam Islam

    SOUNDCLOUD.COM|BY BANGLAROCK

    LikeLike·  · Share

    adav pure vc er baktobbo sunun.........

    Happy To Disturb - VC Jadavpur University

    SOUNDCLOUD.COM|BY RJ-SAYAN

    LikeLike·  · Share


    কলরবে উথাল পাথাল বৃষ্টিতে, শুনেছি তাঁর মধু কন্ঠস্বর

    আরব বসন্তের হাল হকীকতে ওয়েল ওয়াকিফ হওয়ার পর বসন্ত বলতে বসন্তের মহামারিকেই ভয় পাইবাংলার কৃষি বিদ্রোহকে সত্তর দশকে চিন আখ্যা দিয়েছিল,বসন্তের বজ্রনির্ঘোষ,সেই গ্রাম দিয়ে শহর ঘেরার পরিকল্পনায় আজও থমকে আছে ভুমি সংস্কার,যার সুচনা দু শো বছর আগে হরিচাঁদ ঠাকুরের আসলি নবজাগরণে,ব্রাহ্মণ্যবাদের বজ্র আটুনি থেকে বৌদ্ধময় ভারতের জ্বল জ্বল প্রতিচ্ছবি যেন, আদিবাসী কৃষক বিদ্রোহ সারি সারি ঔপনিবেশিক উত্পাদনপ্রণালির গন্ডি পেরিয়ে অধুনা মুক্তবাজারেও সেই দাবিতে সমানে সোচ্চার কৃষিজীবী জাতপাতে,বর্ণ বৈষম্যে খন্ডিত বিখন্ডিত লোক গ্রাণীণ ভারত


    জাতি ব্যবস্থা ও বর্ণবৈষম্যের রাজনীতি ক্ষমতা দখল লাড়াইয়ের মধ্যেও এপার বাংলা ওপার বাংলা পরবাসী উদ্বাসুত বাংলার ভূগোল ইতিহাসে যে সহজাত প্রগতিবাদ,সহঅস্তিত্ব ও মনুষত্বের জয়গান,সহজিযা বাউল বৈষ্ণব জীবন যাপন ভোগ ষাঁড় সংস্কৃতিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে,বাঙালি ও বাংলার সেই উদ্বুদ্ধ প্রবুদ্ধ ঐতিহ্যেই বসবাস বাঙালি জাতিসত্তার


    বর্ণ জাতি ভেদ ডিঙিয়ে ঔপনিবেশিক কাল থেকে সেই শুরু,তেভাগা খাদ্য আন্দোলন নক্সাল জমানায সেই সত্তর দশক পর্যন্ত জাত বজ্জাতির বিরুদ্ধে যা বঙ্গীয মানসবিবেক,তার প্রতিচ্ছবি দেখলাম কলকাতার জলমগ্ন রাজপথে প্রবল বৃষ্টিতে ভিজে থাকা লিঙ্গোর্ধ শ্রেণীচেতস যুব মুখে মুখে

    মিছিলের শহরে মিছিলের ফিরে আসার সবচেয়ে বড় প্রাপ্তি বোধ হয় এটাই


    বিদেশি কোনো তত্ব দিয়ে এই ছোট্ট মোডকে চিন্হিত না করে সভাষ মুখোপধ্যায়ের পদাতিকে নবান্নের সুগন্ধে চাপানি মার্কি জৌলুস থেকে এক্কেবারে আলাদা এই মিছিলের অরাজনৈতিক মুখ,যা ক্ষমতার চোখে এমনকি অন্ধ ভক্তবৃন্দের চোখে বহিরাগতের রাজনৈতিক আস্ফালন


    আল্লা,ম্যাঘ দে

    আল্লা ,পানি দে

    আল্লা,অন্ধ যেজন,তাহাদের চক্ষু

    ফুটাইয়া দে

    চক্ষুষ্মান চক্ষুষ্মতী বাঙালি বাঙালিনীর বড়ই আকাল


    দশ হাতে তশটি রত্নপাথর,তাবিজ ধাগা রুদ্রাক্ষ ভুষিত শপিং মলে যে বাঙালির অধিষ্ঠান,টিভি তেখ অন্দরমহলে যার জ্যোতিষ বসতি,বিপদে রক্ষার জন্য তেত্রিশ কোটি দেব দেবি ছাড়াও রোজই নূতন দেব দেবি,অবতার, বাবা,তান্তরিকে যার সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন,সহবাসে যার জাপানি তৈল চাইই,উত্পাদণ প্রণালির মহাশ্মশানে,জনপদের গোরস্থানে,গণসংহার কালে অন্ধকারের শাসনে এই মগের মুলুকে চক্ষুষ্মানরা সবাই একযোগে নিরুদ্দেশে


    তাঁরা যেন এই প্রবলে বৃষ্টিপাতে ফিরে এল আবার



    ভেবেছিলাম,লড়াকু সেদিনের সেই জননেত্রী পরবল বডষ্টিতে ক্ষমতার সব সমীকরণ উলটে পালটে দিয়ে উথাল জনপথে এসে দাঁড়িয়ে বলবেন,কি সমস্যা,এই ত আমি তোমাদের মুখ্যমন্ত্রী


    ঔ পথের ঠিকানা ভুলেছেন দিদি,পথি একন তাঁকে পথ দেখাবে

    কেমন পথ দেখছেন তিনিঃ

    যাদবপুরকে জবাব দিতে কাল পাল্টা মিছিল তৃণমূলের

    Last Updated: Sunday, September 21, 2014 - 11:29

    27

    SHARES

    Share on Facebook

    Share on Twitter

    যাদবপুরকে জবাব দিতে কাল পাল্টা মিছিল তৃণমূলের

    কলকতা: যাদবপুরে ছাত্রমিছিলের পাল্টা মিছিল এবার তৃণমূলের। সোমবার রাজভবন অভিযান করবে তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। তৃণমূল ছাত্র পরিষদের অভিযোগ, যাদবপুরে নৈরাজ্য চলছে। সেই বক্তব্যই রাজ্যপালের কাছে জানাবে তারা।

    অন্যদিকে সোমবার দুপুরে মিছিল করবেন তৃণমূল সমর্থক শিক্ষাকর্মীরা। দুপুর একটায় যাদবপুর থেকে শুরু হবে মিছিল। কোনও দলীয় পতাকা ছাড়াই গোলপার্ক পর্যন্ত যাবে মিছিল।

    রাজ্যপালের অনুরোধে সোমবার দুপুর পর্যন্ত আন্দোলন স্থগিত রেখেছেন যাদবপুরের ছাত্রছাত্রীরা। তবে, উপাচার্যকে সরানো না হলে আন্দোলন যে আরও বৃহত্তর আকার নেবে তাও রাজ্যপালকে জানিয়ে এলেন আট সদস্যের প্রতিনিধিদল।

    ছাত্রদের দাবি, রাজ্যপাল কথা দিয়েছেন তাঁদের সমস্ত বক্তব্য বিবেচনা করবেন। তবে, আন্দোলন স্থগিত থাকলেও ক্লাস, বয়কটের সিদ্ধান্তে কিন্তু এখনও অনড় ছাত্রছাত্রীরা।নন্দন থেকে রাজভবন। ঝমঝম বৃষ্টি যেন জনসুনামি হয়ে আছড়ে পড়ল রাজপথে। স্লোগান আর  গানে এ যেন এক অন্য মহানগর। বৃষ্টির সঙ্গে তাল মিলিয়ে বেড়েছে মিছিল। চেনা-অচেনার গণ্ডি ছেড়ে রাজপথের ঠিকানা যেন তখন কেয়ার অফ মেয়ো রোড।

    লক্ষ্য ছিল রাজভবন। কিন্তু, মিছিল আটকে দেওয়া হল মেয়ো রোডে। পুলিসের ব্যারিকেডের সামনেই রাস্তায় বসে পড়লেন ছাত্রছাত্রীরা। আরও তীব্র হল পুলিস-বিরোধী স্লোগান।


    গত কয়েকদিন ধরেই ফেসবুক, টুইটার ইত্যাদি সামাজিক আলাপচারিতার ক্ষেত্রগুলো মুখর হয়ে উঠেছিল শনিবার দুপুরের এই বিক্ষোভ মিছিলে যোগ দেওয়ার আহ্বানে৷ নানা পোস্টার, ছবি, কার্টুন, ছড়া আর কবিতা দিয়ে শানিয়ে তোলা হচ্ছিল প্রতিবাদকে৷


    সবকটি পোস্টেই ছিল যাদবপুরের আন্দোলনরত ছাত্রছাত্রীদের হ্যাশট্যাগ– হোক কলরব! শনিবার সকাল থেকে প্রায় একটানা বৃষ্টি সত্ত্বেও দুপুর দুটো নাগাদ ভরে উঠতে থাকে রবীন্দ্রসদন-নন্দন চত্বর৷ রাস্তা জুড়ে ছাত্রছাত্রীদের ঢল এবং তাদের সমবেত কলরব আদতেই মনে করিয়ে দিচ্ছিল, এটা আর পাঁচটা বাঁধা গতের বিক্ষোভ নয়, বরং এক অন্য ধারার প্রতিবাদ জন্ম নিচ্ছে এই শহরে৷ যেখানে স্লোগান বাঁধা হচ্ছে – লাঠির বদলে গানের সুর, দেখিয়ে দিচ্ছে যাদবপুর৷ - See

    খবর যেরকমঃকলকাতার রাজপথে প্রতিবাদী যৌবনের ঢল৷ যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশি তাণ্ডবের প্রতিবাদে এবং ঘটনার দায়ে অভিযুক্ত উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাল ছাত্র-ছাত্রীরা৷


    কলকাতার ঐতিহ্যমণ্ডিত যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়িয়েছে শিক্ষকরা। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের সঙ্গে একত্মা প্রকাশ করে শুক্রবার থেকে শিক্ষকদের একাংশ কোনো ধরনের প্রশাসনিক কাজ করবেন না বলে জানিয়েছেন।

    এছাড়া কলকাতারা প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়, কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয় ও দিল্লির জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে।

    অপরদিকে, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পক্ষে রাস্তায় নেমেছেন কলকাতার বুদ্ধিজীবী মহলের একটি অংশ।

    উল্লেখ্য, বিশ্ববিদ্যালয়ে এক ছাত্রীর শ্লীলতাহানির ঘটনা নিয়ে গঠিত তদন্ত কমিটি সঠিকভাবে কাজ করছে না- এ অভিযোগে গত ২৮ আগস্ট থেকে আন্দোলন চালাচ্ছিলেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।


    শেষ কবে এমন বিশাল ছাত্র-মিছিল দেখেছে কলকাতা, অনেকেই মনে করতে পারছেন না৷ সঠিকভাবে বলতে গেলে, এমন অরাজনৈতিক বিক্ষোভ মিছিলের নজির প্রতিবাদী এই শহরেও খ