Are you the publisher? Claim or contact us about this channel


Embed this content in your HTML

Search

Report adult content:

click to rate:

Account: (login)

More Channels


Channel Catalog


Channel Description:

This is my Real Life Story: Troubled Galaxy Destroyed Dreams. It is hightime that I should share my life with you all. So that something may be done to save this Galaxy. Please write to: bangasanskriti.sahityasammilani@gmail.comThis Blog is all about Black Untouchables,Indigenous, Aboriginal People worldwide, Refugees, Persecuted nationalities, Minorities and golbal RESISTANCE.

older | 1 | .... | 121 | 122 | (Page 123) | 124 | 125 | .... | 303 | newer

    0 0

    sc-notice-to-center-and-up-government
    रजनीश झा ने खबर करी है किसर्वोच्च न्यायालय ने उत्तर प्रदेश में पत्रकार जगेंद्र सिंह की हत्या की जांच केंद्रीय जांच ब्यूरो (सीबीआई) से कराने का निर्देश देने का अनुरोध करने वाली जनहित याचिका पर सुनवाई करते हुए सोमवार को केंद्र और राज्य सरकार को नोटिस जारी किए। आरोप है कि पत्रकार की हत्या उत्तर प्रदेश सरकार के मंत्री राममूर्ति वर्मा के इशारे पर की गई। सर्वोच्च न्यायालय के न्यायाधीश एम.वााई. इकबाल की अध्यक्षता वाली अवकाशपीठ ने इस मामले में दायर जनहित याचिका पर सुनवाई करते हुए केंद्र तथा राज्य सरकार को नोटिस जारी किए हैं।

    इससे पहले वरिष्ठ अधिवक्ता आदिश सी. अग्रवाल ने न्यायालय से मामले की सीबीआई जांच का आदेश देने की गुहार लगाई। जनहित याचिकाकर्ता डी.एस. जैन ने भी न्यायालय से अनुरोध किया कि वह इस संबंध में दिशा-निर्देश तय करे और निर्देश जारी करे कि पत्रकार की अस्वाभाविक मौत से संबंधित मामले की जांच इलाके के जिला एवं सत्र न्यायाधीश की निगरानी में हो। गौरतलब है कि जगेंद्र को मिट्टी का तेल डालकर जिंदा जला दिया गया था। आरोप है कि उत्तर प्रदेश के मंत्री के इशारे पर पुलिस ने ऐसा किया। बुरी तरह झुलस चुके जगेंद्र की आठ जून को मौत हो गई।

    0 0

    We need a law against Housing Discrimination


    FOR THE RECORD – HOUSING: WE NEED A LAW AGAINSTDISCRIMINATION
    A recent study showed how home owners in NCR were discriminating against Dalits and Muslims. In an interview to Amulya Gopalakrishnan, Tarunabh Khaitan, associate professor in law at the University of Oxford and the author of A Theory of Discrimination Law, talks about the implications of segregation

    What is the problem with housing discrimination, like instances when Dalits and Muslims are denied rentals?

    Consider a hypothetical case: a landlady refuses to let her house to me because my zodiac sign is Capricorn. Her eccentric refusal does not affect my opportunities; none of us can claim to have a moral right to live in any particular house.

    Now imagine if discrimination against Capricorns was so pervasive in the housing market that whole swathes of a city became unavailable to us. We might be obliged to live in tiny pockets that let us in, and are likely to have many other Capricorns. Such a neighbourhood will soon become a Capricorn ghetto. Let us also assume that prejudice against Capricorns also exists in government, jobs, shops, services, and education. It is likely that this ghetto will have relatively poor job options, schools, sanitation and civic amenities. Dalits and Muslims are in a similar situation (see the Sachar Committee report and studies by Prof S K Thorat). Other groups, including single women, unmarried couples, the disabled, gays and transgenders are also likely to face similar exclusions.

    For victims of such pervasive discrimination, the implications are obvious. Not only are they stigmatized and humiliated, their freedom of movement is also curtailed.They also lose out on other civic goods that go hand-in-hand with housing. Even if these urban ghettos had adequate amenities, there is something repugnant in an apartheid-like segregation of neighbourhoods. For society , such segregation is a moral loss that makes fraternity and equal citizenship impossible.A society that permits pervasive forms of discrimination against minorities cannot become a true political community .

    Landlords justify it as a private decision to choose tenants they are comfortable with -vegetarians, or married couples, for instance.Can the state regulate these private choices?

    We all have the right to act as we wish, so long as our actions don't illegitimately harm others. Our Capricorn-phobic landlady need not answer to the law. But regulation becomes legitimate when discrimination becomes pervasive and enduring: when so many landlords start excluding a group that its members can't access basic goods that facilitate a good life.

    Liberals across the world have accepted this to be a justified state intervention. That said, the law could accommodate legitimate privacy interests.

    What solution, legally and socially, do you recommend to check discrimination?

    India is almost unique amongst liberal democracies in lacking a comprehensive, multi-ground, anti-discrimination statute. In other jurisdictions, such statutes typically prohibit discrimination on morally extraneous grounds like race, caste, tribe, sex, disability, sexual orientation, religion, pregnancy , marital status, gender orientation, etc. They prohibit direct discrimination (where all victims belong to the same religion or caste, like a sign saying `No Muslims') and also indirect discrimination (like a sign saying `vegetarians only' which may disproportionately affect some groups like Muslims, Christians or Dalits through cultural food preferences). Indirect discrimination is relatively easier to justify than direct discrimination.

    These statutes apply to (public and private) employers, landlords, retailers, and service providers. They also permit affirmative action in favour of disadvantaged groups: this is not considered discriminatory . Importantly, they provide civil rather than criminal remedies for acts of discrimination: the sledgehammer of criminal law can often be counter-productive when dealing with discrimination.

    Considered alongside Indian realities, the Canadian and South Africanlaws that address discrimination, and the meticulously drafted British Equality Act can be instructive. The US Title VII and Title VIII may be the mother of such statutes, but it is currently facing a reactionary backlash: we should look at the US mainly to learn from their mistakes.

    What legal recourse can a victim take?

    Currently , it is not clear whether a Muslim victim has any available statutory remedy .If a Dalit person is denied housing on the ground of untouchability, the under-enforced provisions of the Protection of Civil Rights Act 1955 provide limited criminal remedy .

    There may, however, be a constitutional remedy . The prohibition on discrimination under Article 15 of the Constitution applies to private persons too, and not just the state. However, some clarity is urgently needed from the courts, especially after the limited conclusions of the Zoroastrian Housing Society case (2005).

    Ultimately, however, the solution is a comprehensive anti-discrimination law.Like Right to Information statutes, state legislatures could lead the way.


    0 0

    Press Release : Bhopal Gas Victims demand Yoga treatment


    Press Statement: Bhopal Gas Victims demand Yoga treatment and condemn Yoga charade of MP government

     

    On the International Yoga Day, survivors of the Union Carbide disasterin Bhopal called for an end to the denial of Yoga therapy to chronic patients at the hospitals meant for them. Holding different Yoga postures in front of a abandoned Yoga center, the survivors, many withchronic illnesses,  drew attention to the misutilization of public money in the name of Yoga by the state government.

     

    DSC_0406

     

    DSC_0415

    The survivors' action was led by five local organizations that have long been fighting for proper treatment of chronically ill survivors. Aware of the ill effects of taking symptomatic medicines, the organizations have been campaigning for introduction of Yoga therapy at the six gas- relief hospitals that are meant to serve the over half million people exposed to poisonous gases in December 1984.

    "To start with, in February 2007, we had to sit on a 19 day fast to convince the government to start Yoga therapy in the hospitals meant for gas victims. Eventually it was only started in 2 hospitals and only for part of the time", says Rashida Bee of Bhopal Gas Peedit Mahila Stationery Karmachari Sangh.

    According to Mr. Balkrishna Namdeo of Bhopal Gas Peedit Nirashrit Pensionbhogi Sangharsh Morcha, in a little over two years more than 2000 gas patients reported relief through Yoga therapy for problems such as breathlessness, joint pains, back ache, menstrual irregularities, insomnia and others chronic ailments without taking steroids, painkillers and psychotropic medicines.   Despite this, he said, in 2009 the BJP government arbitrarily closed down Yoga treatment in gas-relief hospitals.

    The Bhopal Gas Peedit Mahila Purush Sangharsh Morcha's President Nawab Khan said that they had obtained documents under RTI that show that the decision to stop Yoga therapy in the hospitals was based on opinions of medical superintendents that demonstrate the ignorance of medical facts and utter indifference towards the treatment of chronically ill survivors. "All the Superintendents made the same ridiculous claims that medicines did not have any side effects and Yoga had no health benefit for gas victims.", he said

    "More recently, the State Government's indifference towards Yoga is evident in the abandoning of 6 out of 7 yoga centers since they were built to promote Yoga among the survivors of the disaster. These centers built at a cost of about Rs 4 Crores have been lying unused for last 6 months. One is even being rented out as a venue for wedding parties.", said Safreen Khan of Children Against Dow-Carbide.

    Satinath Sarangi of the Bhopal Group for Information & Action said "Most of the state government's hullabaloo on Yoga is but a charade. Its officials and ministers are too busy earning commissions on purchase of medicines and building of Yoga centers to be actually using Yoga to benefit the victims of the world's worst industrial disaster still awaiting proper medical treatment."

    Rashida Bi, Bhopal Gas Peedit Mahila Stationery Karmchari Sangh94256 88215 Nawab Khan, Bhopal Gas Peedit Mahila Purush Sangharsh Morcha8718035409 Balkrishna Namdeo,Bhopal Gas Peedit Nirashrit Pensionbhogi Sangharsh Morcha9826345423 Satinath Sarangi, Rachna Dhingra, Bhopal Group for Information and Action9826167369 Safreen Khan,Children Against Dow Carbide

    For more information visit www.bhopal.net


    0 0

    NAMASUDRA MAHA-SAMMELAN HELD ON 23 MAY 2015 AT PALTA, KOLKATA













    0 0

    অতি বাড় বেড় না ঝড়ে পড়ে যাবে..................

    ''সংবিধান ও আইনের তোয়াক্কা না করে যে সব শক্তি গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে পারে, তাদেরই এখন বাড়বাড়ন্ত। রাজনৈতিক কর্তৃত্ব এখন আগের থেকে অনেক বেশি পরিণত। কিন্তু তাতে কিছু খামতি থাকায়, জরুরি অবস্থা যে আবার ফিরে আসবে না— এমনটা জোর দিয়ে বলা যায় না।''বিজেপির বর্ষীয়ান নেতা লালকৃষ্ণ আডবানীর এই বক্তব্য, সারা ভারতের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হলেও পশ্চিমবঙ্গের ক্ষেত্রে বক্তব্যের এই অংশ ''সংবিধান ও আইনের তোয়াক্কা না করে যে সব শক্তি গণতন্ত্রকে ধ্বংস করতে পারে, তাদেরই এখন বাড়বাড়ন্ত।''যে কতটা প্রাসঙ্গিক তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না । তৃনমূল কংগ্রেসের সুপ্রিমো থেকে শুরু করে বড়, মেজ, সেজ, ছোট নেতা নেত্রী, সাংসদ, বিধায়ক এবং মা মাটি মানুষের সরকারের মন্ত্রী সান্ত্রী সবাই দেশের সংবিধান ও আইনের তোয়াক্কা না করে মমতাবিধান ও মমতা আইনের বলে বলীয়ান হয়ে বাড়তে বাড়তে প্রায় আকাশ স্পর্শ করতে চলেছে । ওদের কাছে Sky is the limit. বাড়ছে বাড়ুক, বাড়তে বাড়তে আকাশ যদি স্পর্শ করে করুক । তবে সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জি থেকে শুরু করে সব স্তরের নেতা নেত্রী, মন্ত্রী সান্ত্রী সবাই এই কথাটা, অতি বাড় বেড় না ঝড়ে পড়ে যাবে, যেন মনে রাখে । ঝড় আসছে । তার ইঙ্গিতও সাম্প্রতিক পৌর নির্বাচনে কিছুটা হলেও পাওয়া গিয়েছে । সময় থাকতে সতর্ক হলে ভালই, না হলে মানুষের প্রতিবাদের ও প্রতিরোধের ঝড়ে খড়কুটোর মতো উড়ে যেতে হবে ।


    0 0

    Bollywood Legend Amitabh Bachchan Started Reciting Holy Quran For His Hearts Satisfaction.Bollywood legend feel better with Quran recitation

    0 0

    আগে ভাত, পরে ধর্ম 
    ‪#‎bukchitiesfi‬




    0 0

    അരുവിക്കരയുടെ ശബ്ദം's photo.

    ഉമ്മന്‍ചാണ്ടിക്ക് കുടുംബയോഗം നടത്താന്‍ പാവം ലളിതയെ മോര്‍ച്ചറിയില്‍ ആക്കി...

    വെള്ളനാട് പഞ്ചായത്തില്‍ കോട്ടവിള സ്വദേശി ലളിത (62) യുടെ മൃതദേഹം ആണ് മോര്‍ച്ചറിയില്‍ ആക്കിയത്. വൃക്കരോഗ ബാധിതയായ ലളിത ഇന്ന് (22/ജൂണ്‍/2015) പേരൂര്‍ക്കട സര്‍ക്കാര്‍ ആശുപത്രിയില്‍ ഡയാലിസിസ് നടത്തുന്നതിനു ഇടയില്‍ (ഉച്ചയ്ക്ക് 12 മണി) രക്ത സമ്മര്‍ദം കൂടി മെഡിക്കല്‍ കോളേജ് ആശുപത്രിയില്‍ എത്തിച്ചപ്പോഴേക്കും മരണമടഞ്ഞു.

    മൃതദേഹം വിട്ടുകിട്ടാന്‍ ബന്ധുക്കള്‍ ആവശ്യപ്പെടുകയും പേരൂര്‍ക്കട ആശുപത്രിയിലെ ചികിത്സാ രേഖകള്‍ കാണിച്ചു കൊടുക്കുകയും ചെയ്തു. എന്നാല്‍ മൃതദേഹം വിട്ടുകൊടുക്കാതെ ആദ്യം പഞ്ചായത്ത് മെമ്പറെ വിളിച്ച് കൊണ്ട് വരാന്‍ ആണ് പറഞ്ഞത്. പഞ്ചായത്ത് മെമ്പര്‍ എത്തിയപ്പോള്‍ അത് പോരാ, ബന്ധുക്കളോ നാട്ടുകാരോ ആയ അഞ്ച് പേര്‍ വന്ന് ഒപ്പിട്ട് നല്‍കണം എന്ന് ആവശ്യപ്പെട്ടു. എന്നാല്‍ അവര്‍ എത്തി ഒപ്പിട്ട് കൊടുത്തപ്പോള്‍ പറഞ്ഞത്, അത് പോരാ, ഭര്‍ത്താവോ മക്കളോ വന്ന് ഒപ്പിട്ട് കൊടുക്കണം എന്നായി. ഉടന്‍ തന്നെ ലളിതയുടെ മകളെ അവിടെ എത്തിച്ചു. എന്നിട്ടും മൃതദേഹം വിട്ടുകൊടുത്തില്ല. ആര്യനാട് പോലീസില്‍ നിന്ന് കത്ത് വാങ്ങി വന്നാല്‍ മാത്രമേ മൃതദേഹം വിട്ടു തരാന്‍ ആകു എന്നായി. ബന്ധുക്കള്‍ ആര്യനാട് സ്റ്റേഷനില്‍ എത്തിയപ്പോള്‍ പോലീസ് പറഞ്ഞത് നാളെ രാവിലെ മാത്രമേ കത്ത് നല്‍കാന്‍ കഴിയു എന്നായിരുന്നു. ഇതിനെ ചൊല്ലി തര്‍ക്കിച്ചപ്പോള്‍ ചില പോലീസുകാര്‍ രഹസ്യമായി യഥാര്‍ഥ കാരണം പറഞ്ഞു.

    മരിച്ച ലളിതയുടെ വീട്ടില്‍ നിന്ന് 50 മീറ്റര്‍ മാത്രം അകലെ രാത്രി 8:30ന് മുഖ്യമന്ത്രി പങ്കെടുക്കുന്ന കുടുംബയോഗം ഉണ്ട്. അത് കൊണ്ട് അത് കഴിയാതെ മൃതദേഹം വിട്ടു കൊടുക്കേണ്ടതില്ല എന്ന് മുകളില്‍ നിന്ന് നിര്‍ദേശം ഉണ്ട് എന്നായിരുന്നു രഹസ്യമായി പോലീസുകാര്‍ അറിയിച്ചത്. അതോടെ ഇന്ന് മൃതദേഹം വിട്ടുകിട്ടി അടക്കം ചെയ്യാന്‍ കഴിയും എന്ന ബന്ധുക്കളുടെ പ്രതീക്ഷയും അവസാനിച്ചു.
    മുഖ്യമന്ത്രിക്ക് കുടുംബയോഗം നടത്താന്‍ വേണ്ടി അരുവിക്കരയിലെ മരണപ്പെട്ട ഒരു പാവം വീട്ടമ്മയുടെ മൃതദേഹം അങ്ങനെ മോര്‍ച്ചറിയില്‍ സൂക്ഷിക്കേണ്ടി വന്നു. ഇതാണ് ഉമ്മന്‍ചാണ്ടി പറയുന്ന കരുതല്‍...


    0 0

    ചിലർ കൂടിയ വയർ കുറയ്ക്കാനായി 'യോഗാ' ചെയ്യുന്നു..

    ഭൂരിപക്ഷമിവിടെ ഒട്ടിയ വയറ് കൂട്ടാൻ മാർഗ്ഗമില്ലാതെ എല്ലാം ഒരു " യോഗ"മാണെന്ന് വിശ്വസിച്ചു കാലചക്രം തെളിയിക്കുന്നു




    0 0

    70th Anniversary of the Victory over Fascism!

    https://www.youtube.com/watch?v=6s-jy4kgyPA

    Much is written and spoken about WW1 and WW2 - yet it is truly staggering how few people, and particularly how few British Workers, really understand the causes and significance of this struggle, in which 60 million workers gave their lives.

    The imperialists (Britain, France, USA, Germany, Japan...) fought, and many millions died to preserve and enforce the wage and colonial slavery of the capitalist class. They fought for slaves and booty and nothing more.

    And yet by their masterful leadership, bold strategy and heroic courage and self-sacrifice, the Soviet Union and international communist movement, won world-historic victories which not only preserved their hard won socialist nation, but brought into being a swath of socialist democracies across Europe and Asia, invigorated the anti-colonial struggle, and decisively shifted the balance of power in favour of working people on a global scale.

    The victories won by the Soviet Union changed and shaped our world, and all workers should not only know these episode in our history, but we should be truly proud of these earth shattering achievements made by our class, which herald the bright new world we are capable of bringing into being.

    Please join us for the Stalin Society meeting Tomorrow, Sunday June 21 @ 2pm
    Main Presentation: 1918 Finnish Revolution
    Marchmont Centre, 62 Marchmont St, London WC1N 1AB

    Harpal Brar, Chairman of the CPGB-ML speaks on the significance of the 70th anniversary of the Soviet Victory over Fascism. Much is written and spoken about ...
    Like · Comment · 

    0 0

    বাচ্চা মেয়ে একটু ভুল করে ফেলেছে !! 



    0 0

    Abir Neogy writes on crime against women in West Bengal.


    0 0


    দেশীয় পরম্পরা , দেশের গৌরব --এই সমস্ত ভোজবাজীর আড়ালের কথা হলো প্রায় ৮০০০ কোটী টাকার আন্তর্জাতিক যোগ বাণিজ্য। দেশ-ধর্ম-পরম্পরার দোহাই যারা দিচ্ছেন, তারাই এর প্রত্যেকটাকে নিত্যদিন অপমানের এক শেষ করছেন লাভ জনক পণ্যে পরিণত করে। এমন কি আমারতো মনে হয়, এই দেশের প্রধানমন্ত্রী স্বয়ং এই মেক ইন ইণ্ডিয়া জমানাতে এক পণ্যব্রেণ্ড মাত্র...The 'hijacking' by the government of this traditional practice, which has been a part of the country for centuries, is far from being just a gimmick. It makes business sense. Worldwide, yoga is estimated to be an $80 billion industry.

    According to the government's Make In India report, the wellness industry in India is worth INR 490 billion, and wellness services alone comprise 40 percent of the market. The AYUSH sector (Ayurveda, Yoga, Naturopathy, Unani, Siddha and Homoeopathy) has an annual turnover of around INR 120 billion. The sector is dominated by micro, small and medium enterprises, accounting for more than 80 percent of the enterprises.http://yourstory.com/2015/06/international-yoga-day/


    0 0

    Prabir Ghosh has been exposing Tantra Mantra Yantra Business as the President of Juktibadi Andolan in Bengal.He writes on Yoga RSS Branded and traces the history of Yoga.Very good reading!

    Palash Biswas

    যোগ ও কুলকুণ্ডলিনী
    প্রবীর ঘোষ
    (সম্প্রতি রাষ্ট্রসঙ্ঘ ২১ জুনকে আন্তর্জাতিক যোগা দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। আজ রবিবার প্রথম আন্তর্জাতিক যোগা দিবস উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তথা ভারত সরকারের উদ্যোগে গোটা দেশে দিনটিকে বিশেষ ভাবে পালন করা হয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন বেসরকারী সংস্থা, ধর্মীয় সংস্থাও দিনটিকে পালন করেছে। কিন্তু, এই 'যোগ'বিষয়টি কী? কী ভাবেই বা উৎপত্তি হল এই যোগের? তা জানাতেই কলম ধরেছেন প্রবীর ঘোষ। )

    'যোগ'হল তন্ত্র সাধনার এক রহস্যময় পথ। যোগী পতঞ্জলি যোগের প্রণেতা। ঋষি বেদব্যাস এই যোগের ভাষ্যকার। এইসব যোগীরা অনাদিনাথ বা শিবকেই যোগ বিদ্যায় উপদেশ দানকারী বলে উল্লেখ করেছেন। শিবই চুরাশি রকমের আসনের শিক্ষা দিয়েছিলেন। শ্রীমদ্ভাগবতের একাদশ স্কন্ধে শ্রীভগবান যোগসাধনের গুণগান গেয়েছেন। গীতায় যোগ মাহাত্ম্য আছে। অতএব, হিন্দু-'উপাসনা'ধর্মে বিশ্বাসীদের কাছে প্রশ্নাতীত পরম সত্য হল 'যোগ'।

    মানবাত্মার সঙ্গে পরমাত্মার সংযোগের উপায়ের নাম যোগ। এইজন্য কুলকুণ্ডলিনী জাগ্রত করার কথা বলা হয়েছে যোগে।

    যোগ মতে 'কুণ্ডলিনী'শক্তিকে জাগ্রত করতে যোগীকে 'ষট্‌চক্র'ভেদ করতে হয়। যোগ বা তন্ত্রশাস্ত্র বিশ্বাস করে, প্রতিটি মানব দেহে ছটি চক্র আছে। চক্র ছটির অবস্থান গুহ্যে, লিঙ্গমূলে, নাভিতে, হৃদয়ে, কণ্ঠে ও ভ্রুদ্বয়ের মাঝখানে। ছ'টি চক্রের নাম গুহ্যে মূলাধারচক্র থেকে পর্যায়ক্রমে স্বাধিষ্ঠান, মণিপুর, অনাহত, বিশুদ্ধ ও জ্ঞানচক্র। মস্তিষ্কে আছে সহস্রদল পদ্ম। যোগের বিশেষ প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে মূলাধারচক্রকে একের পর এক ছটি চক্র ভেদ করে কুণ্ডলিনী শক্তিকে মস্তিষ্কে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে মাথার খুলির নীচে রয়েছে সহস্রদল পদ্ম কুঁড়ি। কুঁড়ির ওপর ফণা মেলে থাকে সাপ। যার লেজ রয়েছে গুহ্যে। যোগ প্রক্রিয়ার সাহায্যে, বা বলতে পারি তন্ত্র প্রক্রিয়ার সাহায্যে ফণাটি সরিয়ে দিতে সক্ষম হলেই মস্তিষ্কে হাজারটা রঙিন পাপড়ি মেলে ফুটে উঠবে পদ্ম। এই যে সাপ বা মহাশঙ্খিনীশক্তি, ইনিই মহামায়া, মহাশক্তি। পদ্মের কর্ণিকা বা বীজকোষে রয়েছেন ব্রহ্মস্বরূপ শিব।

    ষট্‌চক্র ভেদ করে সাপের ফণা সরিয়ে মস্তিষ্কের সহস্রদল পদ্মকে ফুটিয়ে তুলতে পারলেই নাকি ঘটবে ব্রহ্মদর্শন, মিলবে চির আনন্দ, মিলবে মোক্ষ।

    প্রাক্‌-আর্য বা প্রাক্‌-বৈদিক যুগে হরপ্পা ও মহেঞ্জোদারো ছিল, তা বোঝা যায়। বৈদিক যুগে প্রথম দিকে যোগের প্রতি বিরূপতা থাকলেও পরবর্তীকালে যোগসাধনা বা যোগদর্শন বৈদিক শাস্ত্রে গৃহীত হয়। পতঞ্জলির 'যোগসূত্র'ষড়দর্শনের অন্যতম দর্শন হিসেবে গণ্য হয়। পতঞ্জলি তাঁর সূত্রে যোগ শক্তির মহিমা কীর্তন করেছেন। পতঞ্জলির মতে, যোগ সিদ্ধিতে বা যোগ বিভূতিতে নাকি পৃথিবীর সমস্ত প্রাণীর ভাষা-জ্ঞান লাভ হয়, নিজেকে অদৃশ্য করা যায়, খিদে ও তৃষ্ণা নিবারণ করা, আকাশে ভ্রমণ করা যায়। অন্যের দেহে প্রবিষ্ট হওয়া যায়। ঈষ্ট দেবতার সঙ্গে মিলিত হওয়া যায়। হিন্দু তন্ত্রশাস্ত্রই হোক অথবা বৌদ্ধ তন্ত্রশাস্ত্রই হোক- এরা প্রত্যেকেই যোগ সাধনায় মানবদেহের উপর সর্বোচ্চ গুরুত্ব আরোপ করেছে।

    যোগ দর্শনটাই দাঁড়িয়ে আছে ভুল 'অ্যানাটমি'জ্ঞানের ওপর ভিত্তি করে। এই ভুল শারীর বিদ্যে দিয়ে রোগ সারাবার চেষ্টা করলে তার পরিণতি কী হবে ভেবে শঙ্কিত হয়েছি।

    প্রচারের যুগে তরমুজের শ্যাম্পু থেকে কুমড়োর বিউটি সোপ সব'ই হৈ-হৈ করে চলে বিজ্ঞাপনে হুলস্থুল ফেলে দিতে পারলে। একই নিয়মে বিজ্ঞাপনে বাজার মাত করেছে নতুন প্রোডাক্ট 'রামদেবের যোগ'।

    অষ্টাঙ্গ সিদ্ধ হলে ত্রিলোক ভ্রমণ করা যায়। অর্থাৎ স্বর্গ-মর্ত-পাতাল, বাবা রামদেব যে ভাবে অষ্টাঙ্গ যোগ গাদা-গুচ্ছের টিভি চ্যানেলে শেখাচ্ছেন, তাতে প্লেন কোম্পানিগুলো লালবাতি জ্বাললো বলে।

    রামদেব 'NDTV ইন্ডিয়া'র মোকাবিলা অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, তিনি খেচরী মুদ্রা জানেন। অর্থাৎ তার কোনও দিনই মৃত্যু ঘটবে না। চলন্ত ট্রেনের সামনে ছুঁড়ে দিলে টুকরো টুকরো হয়ে গেলেও আবার টুকরোগুলো জোড়া লেগে যাবে। এ যেন ইংরেজি সাইন্স ফিকশন সিনেমা।

    (লেখক ভারতীয় বিজ্ঞান ও যুক্তিবাদী সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি)
    www.srai.org/যোগ-ও-কুলকুণ্ডলিনী/
    http://www.bengali.kolkata24x7.com/international-yoga-day.h

    (সম্প্রতি রাষ্ট্রসঙ্ঘ ২১ জুনকে আন্তর্জাতিক যোগা দিবস হিসাবে ঘোষণা করেছে। আজ রবিবার প্রথম আন্তর্জাতিক যোগা দিবস উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী তথা ভারত
    Like · Comment · 

    0 0

    বাঁদরের বাঁদরামি!

    Md Zim Nawaz's photo.

    যশোদাবেনজীকে বিয়োগ করে রাজপথে রমনী যোগে যোগ করছেন প্রধানমন্ত্রী নমোজী।
    আজ ফেকুজী যোগ করতে গিয়ে এক্কেয়ারে বিয়োগ করে ফেলেছেন। একটা সাধারণ যোগ করতে গিয়ে চাট্টা বিয়োগ!
    ছবিতে মোদীর বিয়োগঃ
    ১) শরীরটা লম্বভাবে থাকার কথা যেমন আশেপাশের রমনীদের রয়েছে।
    কিন্তু যোগীজী শরীরটা বক্রভাবে এলিয়ে ফেলেছেন।

    ২) মেঝের উপর ডান হাতটি বাঁ পায়ের সাথে সমান্তরালভাবে রাখা উচিত।
    অশিক্ষিত মোদী, ডান হাতটি মেঝের উপর না রেখে হাঁটুতে থাকা বুদ্ধি আঁকড়ে ধরেছেন।

    ৩) মাথাটি পেছনদিকে ঘোরানো উচিত ছিল।
    ধাপ্পাবাজের মাথাটি বাঁ দিকে ঘোরানো, গাধার মতই পেছনে ঘোরাতে পারেননি।

    ৪) পশ্চাদ্দেশের সাথে ডান হাতের দূরত্ব খুবই কম হওয়া দরকার।
    মোদীজী নিজের 'পাছার'থেকে হাতের দূরত্ব অনেক বেশি রেখেছেন।

    ছবিতে মোদীজীই হলেন যোগ লিডার। একবার ভেবে দেখুন, এমন ভুলভাল লোক যোগ লিডারের সাথে আবার আমাদের দেশের লিডার! 
    মোদীজী, একটা যোগাসন করতে গিয়ে এতভুল! 
    আপনি বরং যোগ ছেড়ে আপাতত আসনেই বসে থাকুন। আদবানীজীর ভবিষ্যৎবাণী মিলে গেলে তখন আবার এই আসনও আর থাকবেনা।


    0 0

    Reference and context LAMO Sushama chemistry: Eminent North East writer Sushant Kar writes something very interesting about his study of different editions of media news making and space management.Pl read it.
    Palash Biswas

    টাইমস নাও টিভি চ্যানেলের মালিক কে আমি জানি না। যিনিই হোন, এই সেদিন অব্দি এরা বর্তমান সরকারের খুব প্রচার দিচ্ছিল। এখনো দিচ্ছে না নয়। কিন্তু যেকোনো কারণেই সুষমা স্বরাজ ললিত মোদী প্রশ্নে খুব পেছনে লেগেছে। এই লাগাকে আভ্যন্তরীণ বিরোধ বলেই মনে হচ্ছে। অন্য দিকে ফার্স্টপোষ্ট মূলত মুকেশ আম্বানী পরিচালিত কাগজ। তারা শুরু থেকেই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছে না। বরং এর আগে টাইমস নাও এবং অর্ণবগোস্বামীর বিরুদ্ধে নিবন্ধ লিখেছিল। কিন্তু আজকের এই লেখাটি পড়ে মনে হচ্ছে সংবাদপত্রও এই ফ্যাসীবাদী জমানাতে তার সমস্ত প্রচলিত মান ছেড়ে নিচে নেমে যাচ্ছে। ফেসবুক-টুইটারের 'সাইবার হিন্দুরা' যেভাষাতে আক্রামক হয়ে উঠেন, সেই ভাবেই নিবন্ধ লিখছে। আর বিদ্রূপ করে মেইন স্ট্রিম মিডিয়ার সংক্ষেপ করেছে MSM! পড়ুন, গা জ্বলছে কীরকম আঁচ করা যাবে..আগেকার জমানাতে দুর্নীতি হলেও রাজপথে নেমে প্রতিবাদ মুখর হওয়া যেতো, বর্তমান জমানা সেই চেহারাটাই না পালটে দেয়... এমনো হতে পারে যে আপনি প্রতিবাদ করলেই দেশদ্রোহী....The MSM is particularly bad about women's rights. The sorry saga of Tarun Tejpal's infamous fingertips shows how the MSM deals with women. Another woman reporter was recently arrested in Bengal for orally 'servicing' a superior in his car, which presumably was the price of continuing to be employed.

    In politics, it remains unfathomable that with all their feminist rhetoric, Kerala communists sidelined their tallest leader, KR Gowri, never allowing her to become chief minister. It is clear that women are in the gunsights of assorted lefties, especially if they are OBCs or SC/ST.

    A third reason is that, laughably enough, the media and Congress might think that any mud that sticks to the Modi (Lalit) name will indirectly hurt Modi (Narendra). After all, the Congress has made an entire career out of using the Gandhi name to imply that the Mahatma (the real Gandhi) has somehow blessed the Nehru-Gandhis (the ‪#‎fekuGandhis‬, who should actually be the Ghandys, after Feroze Jehangir Ghandy).http://www.firstpost.com/…/lalitmodigate-is-a-red-herring-g…


    0 0

    চল বান্দর হই !!

    Sardendu Uddipan writes a excellent piece,let us be MONKEY!

    Saradindu Uddipan's photo.
     মানুষের বিবর্তনের ইতিহাসকে একটি ফিউশনের উপর দাঁড় করাতে চায়? ঢপের চপের একটা পরিধিতো থাকা উচিৎ, যে পর্যন্ত সে ফুলতে পারে?
    তার পর হয় ফটাস-ফুট
    না হয় পুড়ে ছাই!
    বিশ্বের বাজারে এই চপ বিক্রি করার বয়সতো কম হল না!
    আর এই চপের ব্যবসায় যে মুনাফা নেই তা তো ভারতের হালহকিকত দেখলেই বোঝা যায়। 
    বিশ্বমানের কোন উৎপাদন নেই যা দিয়ে দেশ চালানো যায়। 
    প্রতিটি ভারতবাসীর মাথায় ঋণের বোঝা।
    ৩ জন মানুষের ১ জন অপুষ্টির শিকার।
    প্রতিদিন ৬০০০ শিশুর মৃত্যু। 
    ১০০ জন মানুষের মধ্যে ১০-১৫জন ভিখারি 
    (বর্ধমানের কালনা-১ এবং কালনা-২ ব্লকের একটি সমীক্ষা থেকে পাওয়া)
    ৬০% উপর মায়েরা এনিমিয়ার শিকার।
    লাগাতার কৃষকের মৃত্যু।
    ঘরে ঘরে বেকার।
    চারিদিকে মানুষের নিধন যজ্ঞ।
    পঞ্চভূতের সবটাই এখন কোম্পানির হাতে। 
    কর্পোরেটদের হাতে মানুষের জিয়ন কাঠি।
    তারাই হর্তা-কর্তা-বিধাতা। 
    আসলে ঢপ আর চপ এই দুইয়ের পারম্পরিক যোগাভ্যাসে সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষকে যে ইতর প্রাণীতে পরিণত করা যায় তা যোগ অযোগের ধর্মগুরু, চলাচামুন্ডা এবং তাদের বশংবদ নেতা-গোতা, মন্ত্রী-সন্ত্রীরা বুঝে নিয়েছেন। এরা বুঝে নিয়েছেন যে ভারতের সংখ্যা গরিষ্ঠ মানুষ এখনো ঢপের চপের নেশায় বুদ হয়ে আছে। বিজ্ঞান যুক্তিবাদ এখনো ভারতের মানুষকে সেভাবে সজাগ করতে পারেনি। ভারতের অধিকাংশ মানুষ এখনো আত্মা-পরমাত্মা-প্রেতাত্মা, ইহলোক-পরলোক, স্বর্গ-নরক, দেব-দেবী, মন্ত্র-তন্ত্রের উপর ভরসা রাখে। 
    সুতরাং ঢপ যোগাভ্যাসের জন্য কোটি কোটি টাকা খরচ কর।
    যোগাভ্যাসের সাথে বর্ণাশ্রম, অন্ধবিশ্বাস ও স্বর্গীয় আবেগ জারিত কর। 
    বিশ্বের বাজারে এই পাচন বিক্রি না হলেও দেশের মানুষ তা গিলবে। 
    আর দেশের মানুষকে গেলাতে পারলেই তাদের মস্তিষ্কের মধ্যে "ঢপতন্ত্র"দীরঘস্থায়ী হবে। 
    দীর্ঘস্থায়ী হবে ফিউশন। 
    চল বান্দর হই।
    মানবিক ভাগিদারী ছেড়ে যোগ শিবিরে জাহির করি "মুই কী হনু" !

    'বর্ণমালার রোদ্দুর' শিলচরের ভাষা শহীদ স্টেশন শহীদ স্মরণ সমিতির মুখপত্র , বেরোয় শিলচর থেকে। ১৯শে মে দিনে। শুরু থেকেই সম্পাদনা করে আসছেন সমিতির সম্পাদক ডাঃ রাজীব কর। এবারেও করেছেন। এবারে সম্পাদনার সঙ্গী হয়েছেন কবি –সাংবাদিক বিজয় কুমার ভট্টাচার্যও। প্রতিবারের মতোই এবারেও সাজিয়েছেন দিনটির সামাজিক , রাজনৈতিক , সাংস্কৃতিক তাৎপর্য বাহী বেশ কিছু প্রাসঙ্গিক অনু নিবন্ধ এবং কবিতা দিয়ে।...পুরো কাগজটি এখানে পড়ুন..


    0 0

    পাহাড় কেটে ব্যবসা নয়, হুঁশিয়ারি মিছিলে
    Anandabazar Patrika
    শুভ্রপ্রকাশ মণ্ডল, কাশীপুর, ১৬ জুন, ২০১৫
    পঙ্কজের মত- আবার না সালওয়া জুডুম শুরু হয়!
    পরিবেশ এবং জীবন-জীবিকা রক্ষায় পাহাড় কাটায় বাধা দিচ্ছেন গ্রামবাসী।
    পুরুলিয়ার কাশীপুর ব্লকে সরকারি জমিতে থাকা 'পলসড়ার পাহাড়'কাটার কাজ করছে বেসরকারি সংস্থা। তারই প্রতিবাদে সরব হয়ে পাহাড়টিকে রক্ষার ডাক দিয়ে সোমবার মিছিল করেন স্থানীয় আট-দশটি গ্রামের বাসিন্দারা। মিছিলে উল্লেখযোগ্য হারে মহিলাদের উপস্থিতি চোখে পড়েছে। পরে পাহাড়ের পাদদেশে সভা করে এলাকাবাসীর হুঁশিয়ারি, পাহাড় ধ্বংস হলে এক দিকে প্রাকৃতিক ভারসাম্য নষ্ট হবে, অন্য দিকে তাঁদের জীবন-জীবিকায় টান পড়বে। ফলে, যে কোনও মূল্যে তাঁরা পাহাড় বাঁচাবেন। এই পরিস্থিতিতে পাহাড় কাটার কাজ বন্ধ রয়েছে।

    পলসড়া মৌজায় বড়রা পঞ্চায়েতের ধনারডি গ্রামে ঢোকার ঠিক মুখে ৩-৫ একর জমির উপরে রয়েছে ওই পাহাড়। উচ্চতা ২০০-২৫০ ফুট। প্রশাসন সূত্রের খবর, 'ওয়েস্ট বেঙ্গল মিনারেল ডেভলপমেন্ট অ্যান্ড ট্রেডিং কর্পোরেশন লিমিটেড'-এর (ডব্লিউবিএমডিটিসি) কাছ থেকে বরাত পেয়ে পাহাড় কেটে স্টোনচিপস তৈরির কাজ শুরু করেছে কলকাতার একটি বেসরকারি সংস্থা। বরাতের শর্ত অনুযায়ী, স্টোনচিপস তৈরি করে নিগমকে দেবে বেসরকারি সংস্থাটি। নিগম তা বাজারে বিক্রি করবে। পরিবর্তে সংস্থাটিকে নির্দিষ্ট অর্থ দেবে নিগম। গত মাসের শেষ থেকে পাহাড় কাটার কাজ শুরু করেছে সংস্থাটি। কিন্তু দিন তিনেক হওয়ার পরে স্থানীয় বাসিন্দাদের বাধায় কাজ বন্ধ হয়ে যায়। সোমবার থেকে ফের কাজ শুরুর কথা থাকলেও এ দিনই পাহাড় বাঁচাতে মিছিল, সভা হওয়ায় কাজ শুরু করেননি সংস্থার কর্মীরা।
    পাহাড় রক্ষার ডাক দিয়ে এ দিন পথে নামেন বড়রা ও পাশের গৌরাঙ্গডি পঞ্চায়েতের ধনারডি, পাহাড়পুর, পলসড়া, মুরলু, আসনমনি, কচাগোদা, সুতাবই, বাস্তারডি গ্রামের বাসিন্দাদের একাংশ। ইতিমধ্যেই 'পাহাড় বাঁচাও কমিটি'গড়েছেন তাঁরা। এ দিন দুপুর ১২টা নাগাদ পাহাড়টি থেকে শ'তিনেক বাসিন্দা মিছিল করে পাহাড়পুর গ্রামে ডব্লিউবিএমডিটিসি-র অস্থায়ী ক্যাম্প-অফিস পর্যন্ত যান। তাঁদের হাতে ছিল পাহাড়, জঙ্গল, প্রকৃতি, পরিবেশ সংক্রান্ত প্ল্যাকার্ড।
    কিছুদিন আগেই পাহাড় কাটার কাজ বন্ধ করার দাবিতে জেলা প্রশাসন ও পরিবেশ দফতরে স্মারকলিপি দিয়েছেন গ্রামগুলির বাসিন্দাদের একাংশ। জয়ধন মান্ডি, আনন্দ মান্ডি, প্রভাকর মুর্মু, অজয় বাস্কেরা বলেন, ''পাহাড়ের উপরে পাথর ফাটাতে বিস্ফোরণ ঘটানো হচ্ছে। অথচ, অদূরেই রয়েছে স্কুল, আদিবাসী বস্তি। পাহাড়ের পাশ দিয়েই রাস্তা গিয়েছে। সব মিলিয়ে পরিস্থিতি শোচনীয়।"তাঁদের ক্ষোভ, আস্ত একটি পাহাড় এ ভাবে কেটে লোপাট করে দেওয়ার প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে সরকারি তরফেই।
    এ দিন মিছিলে পা মেলানো আদিবাসী মহিলাদের অনেকে এলাকার স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলির সদস্য। ঊর্মিলা হাঁসদা, গোলাপি মান্ডিদের আশঙ্কা, ''পাহাড়ের জঙ্গলের উপরে জ্বালানি-সহ বিভিন্ন বিষয়ের উপরে নির্ভরশীল আমাদের পরিবার। পাহাড় ধ্বংস হলে জীবিকায় টান পড়বে। তা ছাড়া, পাহাড় কাটার ফলে পাহাড়ের নীচের ধানজমি ধুলোয় ভরে চাষের অযোগ্য হয়ে পড়বে।'''পাহাড় কাটা চলবে না'বলে তাঁদের এ দিনের হুঁশিয়ারি অনেককে ২০০৯-এ ওড়িশার নিয়মগিরি পাহাড় ঘিরে একই ধরনের আন্দোলনের কথা মনে পড়িয়ে দিয়েছে।
    ডব্লিউবিএমডিটিসি-র স্থানীয় মাইনস ম্যানেজার শৌভিক দত্ত এ বিষয়ে মন্তব্য করেননি। শুধু জানিয়েছেন, বৈধ ভাবেই কাজ করছে ওই বেসরকারি সংস্থাটি। পাহাড়ের অদূরে ওই সংস্থাটির অস্থায়ী অফিস থাকলেও এ দিন সেখানে কারও দেখা মেলেনি। পুরুলিয়ার জেলাশাসক তন্ময় চক্রবর্তী বলেন, ''ওই পাহাড় কেটে স্টোনচিপস তৈরির ক্ষেত্রে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।"প্রশাসন সূত্রের খবর, এ দিন কলকাতায় ডব্লিউবিএমডিটিসি-র কর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন পুরুলিয়ার অতিরিক্ত জেলাশাসক সবুজবরণ সরকার। তিনি বলেন, ''ডব্লিউবিএমডিটিসি-র অফিসারেরা শীঘ্রই জেলায় এসে পরিস্থিতি সরেজমিন দেখবেন। জেলা প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করে পরবর্তী পদক্ষেপ করা হবে।''

    পাহাড় কেটে ব্যবসা নয়, হুঁশিয়ারি মিছিলে শুভ্রপ্রকাশ মণ্ডল কাশীপুর, ১৬ জুন, ২০১৫ পরিবেশ এবং জীবন-জীবিকা রক্ষায় পাহাড় কাটায় বাধা দিচ্ছেন


    0 0

    जानिए, कैसे अगले 25 सालों में भारत अमेरिका को पीछे छोड़ देगा...

    बिजनस की काम की खबरों के लिए हमारे फेसबुक पेज Economic Times Hindi को लाइक करें।

    जापान के सॉफ्टबैंक ग्रुप के बिलियनेयर चेयरमैन मासायोशी सन का कहना है कि भारतीय अर्थव्यवस्था में...

older | 1 | .... | 121 | 122 | (Page 123) | 124 | 125 | .... | 303 | newer